ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
৩৩ °সে


বিদ্যুৎহীন ভেনিজুয়েলায় লুটপাট-খুনোখুনি, নিহত ১৭

বিদ্যুৎহীন ভেনিজুয়েলায় লুটপাট-খুনোখুনি, নিহত ১৭
ভুতুতে অন্ধকারে নিজের লুট হওয়া দোকানের অবস্থা দেখছেন কারাকাসের এক ব্যবসায়ী। ছবি: বিবিসি।

যেন জাহান্নাম নেমে এসেছে ভেনিজুয়েলায়। এক টানা পাঁচ দিন বিদ্যুৎ নেই। এই সুবাদে গণহারে লুটপাট চালাচ্ছে সরকার দলীয় কিছু গুন্ডা। রাস্তাঘাটে চলছে খুনোখুনি। বন্ধ সকল সেবা সংস্থার কার্যক্রমও। বিদ্যুৎ না থাকার কারণে এ পর্যন্ত ১৭ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির বিরোধী দলীয় নেতা হুয়ান গুয়াইদো। বিবিসি।

জানা গেছে, প্রেসিডেন্ট মাদুরোকে ক্ষমতা থেকে সরানোর দাবিতে চলমান বিক্ষোভের মধ্যে বৃহস্পতিবার অচল হয়ে পড়ে ভেনিজুয়েলার জাতীয় গ্রিড। তবে এ ঘটনার জন্য বিরোধীদলকে দায়ী করেছেন প্রেসিডেন্ট মাদুরো। আর সরকারের ব্যর্থতাকে দায়ী করছেন বিরোধী দলীয় নেতা গুয়াইদো।

বিবিসি জানায়, অস্ত্রের মুখে রাজধানী কারাকাসের শপিং সেন্টারগুলোতে লুটপাট চালাচ্ছে সরকার দলীয় কিছু লোক। বাধা দিলেই খুন করছে তারা। খুন হওয়া কয়েকটি লাশ কারাকাসের রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে। সেবা সংস্থার কার্যক্রম না থাকায় সেগুলো সরাচ্ছে না কেউ।

কারাকাসের মারিয়া ইজারু’র ছেলে দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত হয়েছে। কিন্তু মর্গ থেকে লাশ ছাড় করানোর জন্য কোন কর্মকর্তা নেই। অত্যধিক মুদ্রাস্ফিতির কারণে তার জমানো টাকারও কোন মুল্য নেই। ফলে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার সামগ্রী কিভাবে কিনবেন তাও জানেন না তিনি।

আরও পড়ুনঃ পর্ন তারকার ভূমিকায় রাম্যা, এক দৃশ্যের জন্য ৩৭ টেক!

চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারি রাজধানী কারাকাসে এক বিক্ষোভে নিজেকে ভেনিজুয়েলার অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা করেন মাদুরো। এরপর যুক্তরাষ্ট্রসহ ৫০টি দেশ গুয়াইদোকে স্বীকৃতি দেয়। অন্যদিকে প্রেসিডেন্ট মাদুরোর প্রতি সমর্থন বজায় রেখেছে তুরস্ক, চীন ও রাশিয়া।

এরপর থেকে অর্থনৈতিক অচলাবস্থার সঙ্গে চরম রাজনৈতিক অস্থিরতা যোগ হয় দেশটিতে। ভেঙে পড়ে গোটা শাসনব্যবস্থা। বিদেশি শক্তিগুলো পরস্পরবিরোধী অবস্থান নেয়ায় পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে উঠেছে।

ইত্তেফাক/টিএস

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৪ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন