শুক্রবার, ২১ জানুয়ারি ২০২২, ৭ মাঘ ১৪২৮
দৈনিক ইত্তেফাক

চালকের অভাবে গাড়ির স্টিয়ারিং পরিচ্ছন্নতাকর্মীর হাতে

# দক্ষিণ সিটিতে ৩১৭ গাড়ির বিপরীতে চালক ৮৬ জন
# উত্তর সিটিতে ১৬৫টি গাড়ির বিপরীতে চালক ৮২ জন

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৪৩

দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে ময়লাবাহী গাড়ি বরাদ্দ দেওয়া হয় ইরান মিয়া নামে এক ব্যাক্তিকে। তিনি সেটি না চালিয়ে তা চালাতে দেন পরিছন্নতাকর্মী হারুন মিয়াকে। তিনি আবার সেই গাড়ি চালাতে অংশীজন হিসেবে নিয়েছেন আরেক পরিছন্নতাকর্মী আব্দুর রাজ্জাককে। শুধু তাই নয়, করপোরেশনের বাহিরে এক শ্রমিক রাসেল খান নামে এক ব্যাক্তিকে দিয়েও এই গাড়ি মাঝে মাঝে চালানো হতো। গত বুধবার নটরডেমের ছাত্র নাঈম হাসানকে চাপা দেওয়ার পরে সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির চালক নিয়ে এই অব্যবস্থাপনা সবার সামনে আসে। 

বদলি চালক হিসেবে এদের কারোই ভারী গাড়ি চালানোর লাইসেন্স ছিলোনা। পরে অবশ্য সিটি করপোরেশন থেকে এদের সবাইকে বরখাস্ত করা হয়েছে। শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পরে আরেক চালক সাইফুল ইসলামের নামে বরাদ্দকৃত গাড়ি টানা দশ বছরে একদিনও নিজে না চালিয়ে ইউসুফ নামে আরেকজনকে চালানোর অভিযোগে তাকেও বরাখাস্ত করা হয়েছে। 

দুই সিটি করপোরেশনের সূত্র বলছে, স্থায়ী নিয়োগ পাওয়া যেসব চালকের অনুকূলে ভারী যানবাহন বরাদ্দ রয়েছে, তাদের বেশির ভাগই নিজেরা গাড়ি চালান না। তাদের নামে বরাদ্দ থাকা গাড়ি চালান অন্যরা। দুই সিটিতে পর্যাপ্ত চালক না থাকায় ময়লাবাহী গাড়ির ড্রাইভার বেশিরভাগই পরিছন্নতা কর্মী, না হয় মশককর্মী অথবা দৈনিক মজুরিভিত্তিতে করপোরেশনে কাজ করছেন। তাদের বেশিরভাগেরেই লাইসেন্স নেই। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উত্তর সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ি রয়েছে ১৬৫টি। বিপরীতে স্থায়ী চালক আছেন মাত্র ৬২ জন। এর বাইরে দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে নিয়োগ পাওয়া চালক আছেন ২০ জন। 

অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে ময়লাবাহী গাড়ি ৩১৭টি। বিপরীতে চালক ৮৬ জন। চালকের চেয়ে গাড়ির সংখ্যা কয়েক গুণ বেশি হওয়ায় দক্ষিণ সিটির মশককর্মী, পরিচ্ছন্নতাকর্মীসহ দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে নিয়োগ পাওয়া শ্রমিকদের দিয়েও গাড়ি চালানো হয়।
এর বাইরে দুই সিটিতেই স্থায়ী বা অস্থায়ী কর্মী নন, এমন অসংখ্য বহিরাগত লোকদের দিয়ে ময়লাবাহী গাড়ি চালানো হচ্ছে।  যাদের ভারী যানবাহন চালানোর লাইসেন্স নেই। অদক্ষ ও সিটি করপোরেশনের বাইরের লোকদের দিয়ে ভারী গাড়ি চালানোয় সড়কে প্রায়ই বারবার ঘটছে দুর্ঘটনা।

গত বুধবার দুপুরে গুলিস্তান এলাকায় দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির চাপায় নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসান নিহত হন। পরদিন বৃহস্পতিবার বিকেলে বসুন্ধরা শপিং সেন্টারের বিপরীত পাশে উত্তর সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় নিহত হন প্রথম আলোর সাবেক কর্মী আহসান কবীর খান। দুটি ঘটনাতেই সিটি করপোরেশনের গাড়ির চালকের আসনে যে দুজন ছিলেন, তারা কেউ দুই সিটির নিয়োগপ্রাপ্ত স্থায়ী চালক নন। দক্ষিণ সিটির ময়লাবাহী গাড়িটির চালক ছিলেন পরিচ্ছন্নতাকর্মী। আর উত্তর সিটির গাড়িটি চালাচ্ছিলেন বহিরাগত একজন চালক। যাদের ভারী যানবাহন চালানোর লাইসেন্স নেই। এদিকে যাদের ভারী গাড়ির লাইসেন্স নেই তাদের দিয়ে উত্তর সিটি করপোরেশন গাড়ি না চালানোর সিদ্ধান্তের কারণে সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় ময়লা না নেওয়ায় ময়লার স্তূপ জমেছে। 

কাওরান বাজারের পাইকারি কাঁচা বাজারের পাশে সরেজমিনে দেখা যায়, অর্ধেক সড়কই ময়লা আবর্জনার স্তূপ জমেছে। এতে দুর্ভোগে পড়ছেন পথচারীরা।  ময়লা-আবর্জনা পঁচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। 

এ বিষয়ে ডিএনসিসিরি প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এস এম শরিফ-উল ইসলাম ইত্তেফাককে বলেন, আমাদের কোন গাড়ি বন্ধ নেই। ময়লা আবর্জনা নেওয়ার কাজ চলমান আছে। রাতের বেলা আমাদের ময়লাবাহী গাড়ি এখন ময়লা নেয়। নিজেদের ড্রাইভারের পাশাপাশি আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমেও গাড়ি চলছে।

ময়লাবাহী গাড়ি ও তার ড্রাইভারের এমন অব্যবস্থাপনা নিয়ে তিনি বলেন, এখন থেকে যাদের ভারী যানের লাইসেন্স থাকবে না তিনি ভারী গাড়ি চালাতে পারবেন না। লাইসেন্স ছাড়াও কেউ গাড়ি চালাতে পারবে না। এছাড়া অপর্যাপ্ত ড্রাইভারের বিষয়ে তিনি বলেন, খুব জলদিই মাষ্টাররোলে নিয়োগের পাশাপাশি প্রায় ৯৪ জন ড্রাইভার নিয়োগ দেওয়া হবে। 

এ বিষয়ে জানার জন্য দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা সিতওয়াত নাঈমকে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ধরেননি। 

 

 

ইত্তেফাক/এমএএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

দোকান হারিয়ে ক্রেতা ঘুরছেন দ্বারে দ্বারে

নিয়ম বহির্ভূত নামজারি বাতিলের অভিযোগ ডিএসসিসির বিরুদ্ধে 

ব্যাটারিচালিত রিকশার বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে: তাপস

দক্ষিণ সিটির সেই ময়লার গাড়ির চালক গ্রেফতার

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সুস্থতার জন্য ধূমপানে নিরুৎসাহিত করতে হবে: মেয়র আতিক

ঢাকা দক্ষিণ সিটির ৯ গাড়ি চালক বরখাস্ত

১০ বছর অন্যকে দিয়ে গাড়ি চালিয়ে বরখাস্ত সাইফুল

‘ঘাটারচর-কাঁচপুর বাস চলাচলে অসহযোগিতা করছে মালিকরা’