শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

একরামুন্নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়

চাকরিচ্যুত শিক্ষকদের বিষয়ে বোর্ডের নির্দেশ মানছেন না প্রধান শিক্ষক!

আপডেট : ১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৫০

করোনাকালে রামপুরা একরামুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ সহকারী শিক্ষককে প্রধান শিক্ষক চাকরিচ্যুত করেছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে| বিষয়টি গড়িয়েছে উচ্চ আদালত পর্যন্ত| আদালত এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডকে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলেছে|

চাকরিচ্যুত শিক্ষকেরা জানিয়েছেন, ‘আমরা ৯ বছর যাবৎ এই প্রতিষ্ঠানে সুনাম ও সম্মানের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি| মহামারি করোনাকালে বিনা নোটিশে আমাদের চাকরি থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন প্রধান শিক্ষক|’ 

শিক্ষকেরা জানান, সরকারের স্পষ্ট নির্দেশ রয়েছে চলমান করোনাকালে কোনো শিক্ষককে অব্যাহতি দেওয়া যাবে না| বিদ্যালয়ের বর্তমান পরিচালনা কমিটি কোনো ক্ষমতা রাখে না চাকরিচ্যুত বা বড় কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার| অথচ তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে| 
তাদের দাবি, ‘প্রধান শিক্ষক ও বর্তমান কমিটির নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে আমরা যারা সোচ্চার ছিলাম, বেছে বেছে তাদেরই চাকরিচ্যুত করা হয়েছে|’

চাকরিচ্যুত শিক্ষকেরা হলেন—রহিমা খাতুন, আজাদ হোসেন, রাবেয়া সুলতানা, মোবাশ্বিরা বিনতে নাহার, রাখি লতা রায়, ওয়াহিদা সুলতানা, ফরিদা আক্তার, পাপিয়া, রিপন চন্দ্র দাস ও আরিফা খান|

এ বিষয়ে মাউশি সংশ্লিষ্ট শাখার সহকারী পরিচালক দুর্গা রানী সিকদারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা কাজ শুরু করেছিলাম| কিন্তু চাকরিচ্যুত শিক্ষকেরা উচ্চ আদালতে রিট মামলা করেছেন| আদালত এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডকে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে|’

এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক অধ্যাপক মোহাম্মদ আবুল মনছুর ভূঁঞা বলেন, আদালতের নির্দেশনার আলোকে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে| কিন্তু স্কুল থেকে এ বিষয়ে এখনো সর্বশেষ তথ্য জানায়নি বলে তিনি জানান| এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক হোসনেয়ারার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলতে রাজি হননি| আর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ফোন রিসিভ করেননি|

 

ইত্তেফাক/এমএএম