সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিভিন্ন দেশে মহান বিজয় দিবস উদযাপন 

আপডেট : ১৬ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:৫৮

যথাযথ মর্যাদায় বর্ণিল আয়োজনে বিভিন্ন দেশে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ দূতাবাস ও কূটনৈতিক মিশনে দিবসটি উদযাপন করা হয়। অনুষ্ঠানে সব শ্রেণি-পেশার প্রবাসী বাংলাদেশিরা উপস্থিত ছিলেন। 

নয়া দিল্লী : নয়া দিল্লির বাংলাদেশ হাই কমিশনে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বিজয় দিবস উদযাপন করেছে। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে সকালে দূতাবাস চত্বরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন ভারপ্রাপ্ত হাই কমিশনার মো. নুরল ইসলাম। পতাকা উত্তোলনের পর দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু কর্নারে নির্মিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পাঞ্জলি দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু হল মিলনায়তনে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে এক আলোচনার সভার আয়োজন করা হয়।দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের প্রদত্ত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। রাষ্ট্রপতির বাণী মিনিস্টার (প্রেস) শাবান মাহমুদ,  প্রধানমন্ত্রীর বাণী মিনিস্টার (বাণিজ্য) ড. এ. কে. এম আতিকুল হক, পররাষ্ট্র মন্ত্রীর বাণী কাউন্সেলর (ইকনমিক) মোহাম্মদ  রাশেদুল আমীন এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী আব্দুল ওয়াদুদ আকন্দ পাঠ করে শোনান। এ সময় বিজয় দিবসের আলোচনায় অংশ নেন মিনিস্টার (কনস্যুলার) সেলিম মো জাহাঙ্গীর। সমাপনী বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত হাই কমিশনার নুরল ইসলাম।

ফিলিপাইনের ম্যানিলায় বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে।

ফিলিপাইন:  ফিলিপাইনের ম্যানিলাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন ফিলিপাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এফ এম বোরহান উদ্দিন। এরপর রাষ্ট্রদূতের নেতৃত্বে দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। এরপর রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বিজয় দিবসের বাণী পাঠ করা হয়। বাণী পাঠ শেষে বিজয় দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রদূত। 

শরিসাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হচ্ছে

মরিশাস: বিজয় শুরুতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন হাইকমিশনার রেজিনা আহমেদ। দিবসটি উপলক্ষে হাইকমিশন প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা, বিশেষ মোনাজাত, মুজিববর্ষের লোগো সম্বলিত কোর্ট পিন বিতরণ  সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভার শুরুতে হাইকমিশনার বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণীসমূহ পাঠ করেন মিশনের কাউন্সেলর ও দূতালয় প্রধান মো: অহিদুল ইসলাম, কাউন্সেলর রাজীব ত্রিপুরা এবং প্রথম সচিব মৌসুমী ওয়াইজ।

রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান

সৌদি আরব : রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে নানা আয়োজনে আনন্দঘন পরিবেশে মহান বিজয় দিবস উদযাপিত হয়েছে। সকালে দূতাবাস প্রাঙ্গণে পতাকা উত্তোলন করেন সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। এরপর রাষ্ট্রদূত দূতাবাসে স্থাপিত অস্থায়ী স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। দিবসটি উপলক্ষে দূতাবাস চত্বরে শিশু কিশোরদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়। এছাড়া প্রবাসীদের নিয়ে দূতাবাস প্রাঙ্গণে বিজয় মেলা, মেডিক্যাল ক্যাম্প ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

 সিঙ্গাপুরস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হচ্ছে।

সিঙ্গাপুর: সিঙ্গাপুরস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে দিনব্যাপী বিজয় দিবসের কর্মসূচির সূচনা হয়। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পড়ে শোনানো হয়।    মহান বিজয় দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনায় অংশ নেন প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির বিভিন্ন স্তরের প্রতিনিধি । সন্ধ্যায় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিচালিত স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিববর্ষের বিজয় দিবসে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগদানের মধ্য দিয়ে দিবসের আয়োজন সমাপ্ত হয়। 

দক্ষিণ আফ্রিকাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার করা হচ্ছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা: দক্ষিণ আফ্রিকাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন হাই কমিশনার নুরে হেলাল সাইফুর রহমান। মিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়া স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা এবং প্রবাসী বাংলাদেশিরা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং  পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন হাইকমিশনের কর্মকর্তারা। 

চীনের কুনমিংয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে।


চীন: চীনের কুনমিংয়ে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে হয়। অনুষ্ঠান সূচির মধ্যে ছিল- জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের উপর তথ্যচিত্র প্রদর্শন। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী   ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন এবং  পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের বাণী পাঠ করা হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কনসাল জেনারেল এ এফ এম আমিনুল ইসলাম।

ইরাকের রাজধানী বাগদাদে বিজয় দিবস উপলক্ষে কেক কাটা হচ্ছে।

ইরাক: ইরাকের রাজধানী বাগদাদে যথাযোগ্য মর্যাদায় বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস। দূতাবাস প্রাঙ্গণে পতাকা উত্তোলন করেন রাষ্ট্রদূত ফজলুল বারী। এর পরই জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। আলোচনা অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইরাকে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত প্রশান্ত পিসে। আলোচনার শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করা হয়। পরে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণীসমূহ পাঠ করা হয়। 

ভিয়েতনামে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে অতিথিরা।

ভিয়েতনাম: দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ, দোয়া ও মোনাজাত, দূতাবাসে ‘বঙ্গবন্ধু ও মহান মুক্তিযুদ্ধ’-এর উপর আলোকচিত্র প্রদর্শনী, আলোচনা অনুষ্ঠান এবং ডকুমেন্টারি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। রাষ্ট্রদূত মিজ সামিনা নাজ জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কর্মসূচির সূচনা করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ভিয়েতনামের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পদস্থ প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত তাও থান হুং, ডিপ্লোম্যাটিক কোরের ডিন ও প্যালেস্টাইনের রাষ্ট্রদূত ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি এবং অন্যান্য আমন্ত্রিত অতিথিদেরকে নিয়ে দূতাবাসে ‘বঙ্গবন্ধু ও মহান মুক্তিযুদ্ধ’-এর উপর আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রদূত মিজ সামিনা নাজ।

টোকিওতে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে অতিথিরা।

টোকিও : টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদ। পরে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।   দূতাবাসের তৃতীয় তলায় স্থাপিত বঙ্গবন্ধু কর্নারে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্য উন্মোচন করেন রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদ। দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে অনুষ্ঠানের পরবর্তী অংশে মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহিদদের আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এছাড়া মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়।   আলোচনা পর্বে অংশ গ্রহণ করেন জাপানের সংসদ সদস্য ও ফরেন অ্যাফেয়ারস কমিটির চেয়ারম্যান মিনোরু কিউচি, বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্যের শিল্পী ড. ওতসুবো ওসামু, সাবেক রাষ্ট্রদূত মাতসুহিরু হরিগুচি, জাপান বাংলাদেশ সোসাইটির প্রেসিডেন্ট সাবেক রাষ্ট্রদূত মাসাতো ওয়াতানাবে, টোকিও সেক্রেড হার্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মাসাকি ওহাসি, টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রফেসর কিওকো নিওয়া। 

 

 

ইত্তেফাক/ইউবি