মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের অভিযান

গাড়ির গ্যাস সিলিন্ডারে ইয়াবা, আটক ১

আপডেট : ২৫ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭:৫২

নীলফামারী জেলা সদরের বড় বাজারের ট্রাফিক মোড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে গাড়ির গ্যাস সিলিন্ডারের ভেতর থেকে ৯১ হাজার পিস ইয়াবা সহ একজনকে আটক করেছে পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ)।

গতকাল শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ৯টায়  অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের একটি গোয়েন্দা দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গাড়িটি আটক করে।

এসময় টয়োটা রাশ জীপ মডেলের গাড়িটির পেছনের গ্যাস সিলিন্ডারের ভেতর থেকে ৯১ হাজার ৮৫ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয় ও গাড়িটির চালক ইমরান হোসেনকে (৪২) আটক করা হয়। ইমরান মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত এবং উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় তার বিস্তৃত নেটওয়ার্ক রয়েছে বলে জানায় এটিইউ। 

গাড়ির পেছনের গ্যাস সিলিন্ডারের ভেতরে অভিনব উপায়ে ইয়াবা রাখা হয়েছিল। সিলিন্ডার খুলে ৯১ হাজার ৮৫ পিস ইয়াবা পেয়েছে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট। এভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা পাচার করতো চক্রটি।

অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার (মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস) মোহাম্মদ আসলাম খান শনিবার বিকেলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, গ্রেফতার হওয়া ইমরান সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার দাড়িপাতন গ্রামের মৃত রফিক উদ্দিনের ছেলে। গত ২১ ডিসেম্বর কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সাবরাং এলাকার চিহ্নিত মাদক কারবারি জুবায়ের জুয়েলের (৩০)  কাছে ইয়াবা সংগ্রহ করতে যায় ইমরান। ২৪ তারিখ কক্সবাজার থেকে রওনা দিয়ে ফেরার পথে পুলিশ তাকে আটক করে।

ইয়াবার চালান সহ গ্রেফতার হওয়া ইমরান হোসেন (৪২)

পুলিশ সুপার আসলাম খান আরও জানান, নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা হয়ে নীলফামারী জেলাসহ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় এদের ইয়াবা পাচারের বিস্তৃত নেটওয়ার্ক রয়েছে। বগুড়া সদরের ফুলবাড়ি এলাকার মোঃ বিপুল (৩৬) ও নীলফামারীর সুজন (৩৫) এদের সহযোগী বলে জানা গেছে। এর আগেও এমন অভিনব উপায়ে তারা বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা পাচার করেছে বলে নিশ্চিত করেছে গ্রেফতার হওয়া ইমরান। টেকনাফ-চট্টগ্রাম-গাজীপুর-সিরাজগঞ্জ হয়ে বগুড়া ও নীলফামারীতে সুজন ও বিপুলের কাছে ইয়াবার চালান পৌঁছে দিতো সে। 

অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) ওয়াহিদা পারভীন ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে জব্দ করা ইয়াবার অন্যতম বড় চালান এটি। সরকারঘোষিত মাদক ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স পলিসি’র অংশ হিসেবে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট এই অভিযানটি পরিচালনা করেছে। নীলফামারী সদর থানা পুলিশ এই অভিযানে সহায়তা করেছে। গ্রেফতারকৃত ইমরান হোসেন ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে নীলফামারী সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ইত্তেফাক/এসটিএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

মিতু হত্যা মামলা: সাবেক এসপি বাবুলের ২ সন্তানকে পিবিআই-এর জিজ্ঞাসাবাদ 

খুলনা থেকে মিললো রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ২৮৭টি টিন সিট

নড়াইল সদর থানার ওসিকে প্রত্যাহার

মাদকসহ ৪ পুলিশ সদস্য গ্রেফতার

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বরগুনার পাথরঘাটায় মাছ শিকার, ট্রলারসহ ৬ জেলে আটক

যুবকের বিরুদ্ধে আড়াই বছরের শিশুকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ

মসজিদ কমিটির সভাপতি পরিবর্তন নিয়ে ঘুমন্ত ব্যসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

খুলনায় দুই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে মুন্না খুনের সম্পৃক্ততা আছে কি না, দেখছে পুলিশ