সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

এক লাখ মঙ্গল প্রদীপ জ্বেলে ভাষা শহীদদের স্মরণ

আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ২১:১৪

‘অন্ধকার থেকে মুক্ত করুক একুশের আলো’এই স্লোগান নিয়ে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও লাখো মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহীদদের স্মরণ করলো নড়াইলবাসী।

সোমবার সন্ধ্যায় নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের কুড়িরডোব মাঠে এক লাখ মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বালন করা হয়। একইসঙ্গে ৭১টি ফানুস ওড়ানো হলো।

করোনার কারণে এবার দর্শক শূন্যভাবে আয়োজনটি সম্পন্ন হয়। একুশ আলো উদযাপন পর্ষদের আয়োজনে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। একুশের আলো উদযাপন পর্ষদের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন নড়াইলের পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. রবিউল ইসলাম, নড়াইল পৌর মেয়র আনজুমান আরা, গোলাম মুর্তজা স্বপন, উদযাপন পর্ষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মলয় কুণ্ডু, আব্দুর রশিদ মন্নু  প্রমুখ।

মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হচ্ছে।

৬টা ২০ মিনিটে লাখো মোমবাতি জ্বেলে ওঠে। কুড়িরডোব মাঠে এ সময় ‘আমার ভায়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’গানের মধ্যদিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ঘণ্টাব্যাপী গণসংগীত শুরু হয়। এবার মাঠে শহীদ মিনার, বাংলা বর্ণমালা ও বিভিন্ন আলপনা তুলে ধরা হয়। সন্ধ্যার আগে মোমবাতি প্রজ্বালনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক হাজার হাজার শিশু-কিশোর অংশগ্রহণ করে।

১৯৯৮ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ ও ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুলের ৬ একরের বিশাল কুড়িরডোব মাঠে ভাষা শহীদদের স্মরণে লাখো মোমবাতি জ্বালিয়ে ব্যতিক্রমী এ আয়োজনটি শুরু হয়। এ আয়োজন সফল করতে একমাস আগে থেকে সাংস্কৃতিক কর্মী, স্বেচ্ছাসেবক ও শ্রমিক কাজ শুরু করেন।

মোমবাতি জ্বেলে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হচ্ছে।

একুশের আলো উদযাপন পর্ষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মলয় কুণ্ডু বলেন, এবার সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাঠে কোনো দর্শক শ্রোতা না রেখে মোমবাতি প্রজ্বালন করা হয়। অনুষ্ঠানটি সফল করতে জেলা প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসন সহযোগিতা করে। 

 

ইত্তেফাক/ইউবি