বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

২১ থেকে ২৫ মার্চ অনলাইনে ট্রেনের টিকিট বিক্রি বন্ধ

আপডেট : ১৪ মার্চ ২০২২, ১৩:১৬

আগামী ২১ মার্চ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত পাঁচ দিন অনলাইনে এবং কাউন্টারে কম্পিউটারের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট বিক্রি বন্ধ থাকবে। তবে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে স্টেশনের কাউন্টার থেকে শতভাগ টিকিট ইস্যু করা যাবে বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। 

সোমবার (১৪ মার্চ) সকালে রেলভবনে বাংলাদেশ রেলওয়ে কম্পিউটারের মাধ্যমে টিকিট বিক্রয় ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত এক সংবাদ সম্মেলনে এমনটি জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী। 

রেলমন্ত্রী বলেন, ‘দীর্ঘদিন রেলের টিকিটিং কার্যক্রম পরিচালনা করেছে সিএনএস লিমিটেড। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সহজের সঙ্গে রেলওয়ে টিকেটিং সিস্টেম পরিচালনার জন্য পাঁচ বছরের চুক্তি হয়েছে। তারা আগামী ২৬ মার্চ থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ের কম্পিউটারাইজড টিকেটিংয়ের কাজ শুরু করবে। ফলে ২০ মার্চ পর্যন্ত সিএনএস লিমিটেড কর্তৃক রেলওয়ের আন্তনগর ট্রেনের কম্পিউটারাইজড টিকিটিং পরিচালনা করা হবে। তারপর ২১ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত সিএনএসের কাছে থেকে সকল কিছু বাংলাদেশ রেলওয়ে বুঝে নেবে ফলে এই সময়টাতে অনলাইন টিকিটিং কার্যকর বন্ধ থাকবে। তারপর ২৬ মার্চ থেকে পুনরায় সহজে অনলাইন ও কম্পিউটারের টিকিট কার্যক্রম চালাবে।’ 

পাঁচ দিন টিকিট টিকেটিং কার্যক্রম বন্ধ থাকার জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে যাত্রীদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, ‘স্টেশনের কাউন্টার থেকে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে পাঁচ দিনের পরিবর্তে দুই দিনের অগ্রিম টিকিট ইস্যু করা হবে এবং এ ক্ষেত্রে সকল টিকিট উন্মুক্ত থাকবে কোন কোটা বা আসন সংরক্ষিত থাকবে না।’

এদিকে সংবাদ সম্মেলনে সহজের এমডি মালিহা এম কাদির বলেন, ‘২০১৪ সাল থেকে বাসের অনলাইন টিকেটিং নিয়ে আমরা কাজ করে আসছি। অনলাইনে টিকিট বিক্রি আমাদের মজ্জাগত বিষয়। মানুষকে আমরা যাতে ভালো সেবা দিতে পারি এই লক্ষ্যে কাজটি নিয়েছি।’ 

বাংলাদেশ রেলওয়ে জানায়, বাংলাদেশ রেলওয়েতে ১৯৯৪ সালে কম্পিউটারভিত্তিক টিকেটিং সিস্টেম চালু করা হয়। প্রথম পর্যায়ে ২৭টি স্টেশনে কম্পিউটারের মাধ্যমে টিকিট ইস্যু করা শুরু হয়। বর্তমানে ১০৪টি আন্তনগর ট্রেনের টিকিট ৭৭টি স্টেশনে কম্পিউটারের মাধ্যমে ইস্যু করা হচ্ছে। দৈনিক প্রায় ৯০ হাজার ও মাসিক প্রায় ২৭ লাখ যাত্রীর টিকিট কম্পিউটারের মাধ্যমে ইস্যু করা হয়। এ সকল টিকিটের ৫০ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ১৩ লাখ টিকিট অনলাইন/মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ইস্যু করা হচ্ছে। 

বর্তমানে সেন্ট্রাল সার্ভারের সঙ্গে ৭৭টি স্টেশন যুক্ত আছে যার কারণে যে কোনো গন্তব্যের টিকিট যেকোনো স্টেশন থেকে ক্রয় করা যায়। সিস্টেমটি সেন্ট্রালি কম্পিউটারাইজড সিট রিজার্ভেশন ও টিকেটিং সিস্টেম বা সিসিএসআরটিএস নামে পরিচিত। বর্তমান সিস্টেমটি পরিচালনার জন্য ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে পাঁচ বছরের জন্য সিএনএস লিমিটেডের সঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ের চুক্তি সম্পাদিত হয়। করোনা সংক্রমণ এবং দরপত্র বিষয়ে মামলাজনিত কারণে চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণের পরও কার্যক্রমটি সিএনএস লিমিটেড কর্তৃক অব্যাহত রাখা হয়। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সহজ-সিনেসিস-ডিনসেন জেডির সঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকেটিং সিস্টেম পরিচালনার জন্য পাঁচ বছর মেয়াদি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদারসহ রেলওয়ে ও সহজের কর্মকর্তারা। 

 

ইত্তেফাক/এসজেড

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

তৃতীয় দিনেও কমলাপুরে ট্রেনের টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় 

অনলাইন টিকিটে অভিযোগ নেই, পেলে ব্যবস্থা: রেলমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদ

তিন ঘণ্টাতেই শেষ ট্রেনের আগাম টিকিট

৬ থেকে ১৪ জুলাই বাংলাদেশ-ভারত ট্রেন চলাচল বন্ধ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়: রেলপথমন্ত্রী 

‘বিশেষ আম ট্রেন’ চালু হচ্ছে আজ

৮ যাত্রী নিয়ে ভারত গেলো মিতালী এক্সপ্রেস

৫৭ বছর পরে যাত্রী নিয়ে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি পথে ট্রেন