শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

টিসিবির ৬ পণ্য একসঙ্গে কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে

আপডেট : ২৭ মার্চ ২০২২, ০৮:২৬

কোনো ক্রেতার প্রয়োজন তেল, ডাল, চিনি ও পেঁয়াজ। আবার কারো প্রয়োজন তেল, ডাল, চিনি, ছোলা ও খেজুর। কিন্তু প্রয়োজন হলে হবে না, এক জন ক্রেতাকে টিসিবির বিক্রিত ছয়টি পণ্যই একসঙ্গে কিনতে হবে। ফলে সাশ্রয়ী মূল্যে এসব পণ্য কিনতে গিয়ে অনেকটা বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা। বিশেষ করে অতিদরিদ্র মানুষরা। যাদের কাছে প্রয়োজন ছাড়া কোনো পণ্য কেনা অনেকটা অপচয়ের মতো।

এমনটাই জানালেন, রাজধানীর তেজকুনিপাড়ার বাসিন্দা নুরুন নাহার। তিনি এ এলাকার ফ্ল্যাট বাড়িতে কাজ করেন। চার সদস্যের পরিবারে তিনিই একমাত্র উপার্জনকারী। তার স্বামী আগে রিকশা চালালেও এক সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে এখন শঘ্যাশায়ী। গতকাল খামারবাড়িতে টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কিনতে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে এই প্রতিবেদককে তিনি বলেন, আমার দরকার তেল, ডাল আর পেঁয়াজ। কিন্তু তারা শুধু এই তিনটি পণ্য দেবে না। তাই বাধ্য হয়ে ছয়টি পণ্যই কিনতে হচ্ছে। অনেকটা আক্ষেপ নিয়ে তিনি বলেন, আমাদের তো কষ্টের পয়সা। ছোলা, খেজুর না কিনলেও হয়। এই টাকা দিয়ে ডাল আর তেল কিনলে সংসারের জন্য ভালো।

জানা গেছে, এক জন ক্রেতার কাছে একসঙ্গে দুই কেজি চিনি, দুই কেজি মসুর ডাল, পাঁচ কেজি পেঁয়াজ, দুই লিটার সয়াবিন তেল, দুই কেজি ছোলা ও এক কেজি খেজুর বিক্রি করা হচ্ছে। 

এক জনের কাছে চার কেজি ছোলা বিক্রি করা হলেও এখন তা কমিয়ে দুই কেজি করা হয়েছে। তবে অভিযোগ রয়েছে, কোনো কোনো ডিলার সুযোগ বুঝে চার কেজি ছোলাও বিক্রি করছেন। প্রতি কেজি চিনি ৫৫ টাকা, বড়দানা মসুর ডাল ৬৫ টাকা, ছোলা ৫০ টাকা, খেজুর ৮০ টাকা, প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১১০ টাকা ও পেঁয়াজ ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হচ্ছে। সবমিলিয়ে টিসিবির ছয়টি পণ্যের এই প্যাকেজ কিনতে এক জন ক্রেতাকে একসঙ্গে ৮৭০ টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। যা স্বল্পআয়ের এক জন ক্রেতার কাছে অনেক সময় কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

তবে টিসিবি সূত্র জানিয়েছে, তারা পবিত্র রমজান উপলক্ষ্যে ছোলা ও খেজুর বিক্রি করছে। স্বল্পআয়ের মানুষের সুবিধার কথা বিবেচনা করেই অন্যান্য পণ্যের সঙ্গে এ দুটি পণ্য যুক্ত করা হয়েছে। তবে কোনো ডিলার যদি নির্দিষ্ট পরিমাণের চেয়ে বেশি ছোলা ও খেজুর এক জন ক্রেতার কাছে বিক্রি করেন, তাহলে সেই ডিলারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে আগে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে টিসিবির ডিলাররা তাদের পণ্য বিক্রি করলেও এখন ডিলাররা প্রতিদিন ট্রাক নিয়ে কাউন্সিলর অফিসে যান। তারপর সেখানে আসা ক্রেতারা টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য ক্রয় করেন। অভিযোগ রয়েছে, কোনো কোনো কাউন্সিলর তার ওয়ার্ডে টোকেন দিয়েছেন। যারা এই টোকেন পেয়েছেন, তারাই এসে টিসিবির ট্রাক থেকে সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য কিনেন। এতে অনেক ক্রেতা বঞ্চিত হন।

এ প্রসঙ্গে টিসিবির ডিলার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জুয়েল আহমেদ ইত্তেফাককে বলেন, এখন রাজধানীতে প্রতিদিন ১৩৮ থেকে ১৪০টি ট্রাকে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। যদি এরমধ্যে ১০০টি ট্রাক কাউন্সিলরের অফিসের সামনে পণ্য বিক্রি করে। আর বাকি ট্রাকগুলো রাজধানীর প্রধান প্রধান সড়কে পণ্য বিক্রি করে তাহলে অনেক বেশি পরিমাণে মানুষ সাশ্রয়ী মূল্যে টিসিবির পণ্য কেনার সুযোগ পাবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজধানীর মতিঝিলে বিভিন্ন অফিসে প্রচুর মানুষ চাকরি করেন। যারা প্রতিদিন অফিসে আসা-যাওয়ার পথে টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কেনে। এসব মানুষ হয়তো এলাকায় টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কেনার সময় বা সুযোগ পান না। তাই অফিস এলাকাগুলোতে টিসিবি পণ্য বিক্রি করলে অনেক মানুষ উপকৃত হবে।

আজ থেকে ২০ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে

টিসিবির বিক্রিত পেঁয়াজের দাম কমছে। আজ রবিবার থেকে সরকারের এ বিপণন সংস্থাটি প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২০ টাকায় বিক্রি করবে। আগে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দর ছিল ৩০ টাকা।

ইত্তেফাক/এসজেড