সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ঘিওরে উচ্ছে চাষে স্বাবলম্বী কৃষক

আপডেট : ১৪ এপ্রিল ২০২২, ২০:২১

ঘিওরে উচ্ছে চাষ করে অনেক চাষি স্বাবলম্বী হয়েছেন। উৎপাদন খরচের চেয়ে বেশি লাভ হওয়ায় চাষিরা বেশ খুশি। বর্তমানে অন্য সবজি কম আবাদ হওয়ায় এই সবজি হাট-বাজারে ক্রেতার ব্যাপক চাহিদা থাকায় ভালো দাম পাচ্ছে পাইকারদের কাছ থেকে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বালিয়াখোড়া ইউনিয়নের বাষ্টিয়া, পুখরিয়া, ভালকুটিয়া, চৌবাড়িয়া, আংগার পাড়া, চঙ্গ শিমুলিয়া, ঘিওর সদর, সিংজুরি, বড়টিয়া এলাকার ব্যাপক উচ্ছে চাষ হয়েছে। ফলনও হয়েছে বেশ ভালো। এই এলাকার উচ্ছে স্থানীয় হাট-বাজারের চাহিদা মিটিয়ে জেলার বাসস্ট্যান্ড কাঁচামাল আড়ত, বাইপাইল, কাওরান বাজারে বিক্রি হচ্ছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, রপ্তানিযোগ্য সবজি উৎপাদন বিশেষ কর্মসূচির আওতায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ২১০ হেক্টর জমিতে চলতি মৌসুমে সবজি চাষাবাদ করা হয়েছে।

বাষ্টিয়া গ্রামের কৃষক সামছুল হক জানান, এবার তিনি ৫ বিঘা জমিতে উচ্ছে চাষ করেছেন। চাষ করতে খরচ হয়েছে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এখন পর্যন্ত ১০-১২ ধাপ উচ্ছে উঠানো হয়েছে। পাইকারি আড়তে ৩০-৪০ টাকা করে বিক্রি করেছেন ২ লাখ টাকারও বেশি। আরো লক্ষাধিক টাকা বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন। একই এলাকার ফরমান আলী উচ্ছে চাষ করেছেন।

তিনি বলেন, ফলন ভালো হয়েছে। এই সময়ে অন্য ফসলের চেয়ে দ্বিগুণ মুনাফা আসে উচ্ছে থেকে। আংগারপাড়া গ্রামের আলতাফ হোসেন জানান, তিনি ৪ বিঘা জমিতে উচ্ছে চাষ করেছেন। পাইকাররা মাঠ থেকেই ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে কিনে নিচ্ছেন। তার খরচ হয়েছে ৪ বিঘায় ১ লাখ টাকা। তিনি ইতিমধ্যে প্রায় ২ লাখ টাকার উচ্ছে বিক্রি করেছেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার শেখ বিপুল হোসেন জানান, তাদের মাঠকর্মীরা উচ্ছে চাষে কৃষকদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে আসছেন। ঘিওর উপজেলার মধ্যে বালিয়াখোড়া ইউনিয়নে বেশি উচ্ছে চাষে করেছেন কৃষকরা। এ সবজি উৎপাদনে কৃষকেরা বেশ সাড়া জাগিয়েছেন।

ইত্তেফাক/এমআর