সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

নারায়ণগঞ্জে ফুটপাতে চাঁদাবাজি ‘ওপেন সিক্রেট’

রমজানে সেলামি আর চাঁদা মিলে ৩ কোটি টাকা আদায়

আপডেট : ০৭ মে ২০২২, ০৫:০৭

নারায়ণগঞ্জ মহানগরীর ফুটপাতে চাঁদাবাজি ‘ওপেন সিক্রেট’। ফুটপাত দখলমুক্ত করার নামে পুলিশের সঙ্গে হকারদের ‘ইঁদুর-বিড়াল’ খেলা চলে সারা বছরই। অভিযোগ রয়েছে, তাদের মদতেই নগরীর ফুটপাত দখল করে আছে প্রায় ৫ হাজার হকার।

জানা গেছে, সদ্য সমাপ্ত রমজান মাসেই নারায়ণগঞ্জ নগরীর ফুটপাত ও সড়ক দখল করে থাকা নিয়মিত ও মৌসুমি মিলিয়ে প্রায় ৮ হাজার হকারের কাছ থেকে চাঁদা তোলা হয়েছে প্রায় ৩ কোটি টাকা। এদের মধ্যে শুধু কয়েক হাজার মৌসুমি হকারের কাছ থেকেই রোজার এক মাসের জন্য ‘সেলামি’ বাবদ উঠেছে প্রায় ৩৫ লাখ টাকা। 

ফুটপাতের এই চাঁদা ও সেলামির ভাগ গিয়েছে এক শ্রেণির পুলিশ, রাজনৈতিক নেতা, হকার নেতা, ছিঁচকে সন্ত্রাসীদের পকেটে। গেল রোজায় নগরী জুড়ে কয়েক হাজার হকারের কারণে লাখ লাখ মানুষের জীবন যেমন ছিল দুর্বিষহ তেমনি তীব্র যানজটের কারণে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সবার। 

গেল রমজানের সময় খোদ নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার আশপাশে কমপক্ষে ১ হাজার হকার বসলেও সদর থানার ওসি শাহজামান উলটো বলেছেন, ‘আমরা প্রতিদিনই হকার উচ্ছেদ করছি’। তবে অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ নগরীর চাষাঢ়া এলাকা থেকে গ্রীনলেজ মোড় অবধি হকার উচ্ছেদে মাঝেমধ্যে তত্পরতা দেখালেও রহস্যজনক কারণে বাকি সড়কগুলোতে কখনই হকার উচ্ছেদে আগ্রহী হয়নি।

জানা গেছে, রমজানের শুরু থেকেই প্রায় ৫ হাজার নিয়মিত হকারের পাশাপাশি পুরো নগরী দখল করে কমপক্ষে আরো ৩ হাজার মৌসুমি হকার। এবার প্রাণ খুলে ঈদ উদ্যাপনের জন্য বিশেষ করে যানজট নিরসনের জন্য শুরু থেকেই নগরবাসীর আহ্বান ছিল জেলা পুলিশের প্রতি। 

সেই কথা মাথায় রেখে রমজান মাসে নগরবাসীকে যানজটের দুর্ভোগ থেকে মুক্তি দিতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে বাড়তি ব্যবস্হা নেওয়ার জন্য গত ৩০ মার্চ জেলা পুলিশকে ১০ লাখ টাকা দিয়ে সহযোগিতা করেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। ঐ চেক প্রদান অনুষ্ঠানে এমপি সেলিম ওসমান পুলিশের প্রতি অনুরোধ রেখে বলেন, রমজান মাসে যাতে নগরবাসীকে যানজটের দুর্ভোগ না পোহাতে হয়, ফুটপাতে যেন কোনো দোকানপাট বসতে না পারে সে ব্যাপারে পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা নিতে হবে। 

এ ঘটনার দুই দিনের মাথায় রীতিমতো ঢাকঢোল পিটিয়ে মাঠে নামে জেলা পুলিশের কর্মকর্তারা। মাত্র ২৪ ঘণ্টায় তারা ফুটপাত হকারমুক্ত করে নগরীর চিত্র বদলে ফেলেন। জাতীয় গণমাধ্যমে পর্যন্ত উঠে আসে পুলিশের প্রচেষ্টায় যানজটমুক্ত নারায়ণগঞ্জ নগরীর চিত্র। কিন্তু মাত্র সাত দিনের মাথায় নারায়ণগঞ্জ ফিরে আসে সেই যানজটের চেনা রূপে। ফুটপাত হাজার হাজার হকার দখল করে নেয়। মাত্র ১০ মিনিটের হাঁটা রাস্তা পাড়ি দিতে নগরবাসীর সময় লাগে প্রায় ৪০ মিনিট।

সরেজমিন দেখা গেছে, গেল ঈদকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রধান সড়ক বঙ্গবন্ধু রোডের চাষাঢ়া এলাকা থেকে ২ নম্বর রেলগেট হয়ে ডিআইটি পর্যন্ত সড়কের উভয় পাশে অবস্হান নিয়েছিল কমপক্ষে ৪ হাজার হকার। এর মধ্যে জামা কাপড়, জুতা, ক্রোকারিজ, মসলা আর শুঁটকির দোকান থেকে শুরু করে যৌনবর্ধক নিষিদ্ধ ওষুধের দোকান পর্যন্ত বসানো হয়েছিল ফুটপাতে। নগরীর সলিমুল্লাহ সড়কে হকারের এতটাই আধিক্য ছিল যে এই সড়কে গত ২২ রমজান থেকে যানবাহন চলাচল অনেকটাই ছিল বন্ধ। এছাড়া শহরের কালীর বাজার, ১ নম্বর রেলগেট, ফলপট্টি, টানবাজার, ২ নম্বর রেলগেট এলাকায় বসেছিল আরো প্রায় ৪ হাজার হকার।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি শাহজামান পুলিশের চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করে বলেন, যে পুলিশ সদস্য চাঁদা নিয়েছে তার নাম লিখে নিউজ করে দিন। কিন্তু রোজায় থানা এলাকার আশপাশে শত শত হকার কীভাবে ব্যবসা করেছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা প্রতিদিনই হকার উচ্ছেদ করেছি। এ ব্যাপারে হকার নেতা আসাদ, রহিম মুন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা সরাসরি এ ব্যাপারে কোন কথা বলতে রাজি হননি। 

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সিলেটে বন্যা: শুধু মৎস্য খাতে ক্ষতি ২৬ কোটি টাকা

সিলেট

বন্যায় বিশুদ্ধ পানির সংকট

বিশেষ সংবাদ

ফুটপাত হকারদের দখলে, বাধ্য হয়ে মূল সড়কে পথচারীরা!

দুই বছর পর মনোহরগঞ্জে আবারও পত্রিকা সরবরাহ শুরু

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

বরিশালে ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

নারায়ণগঞ্জে বাড়ছে ‘কিশোর গ্যাং’ আতঙ্কে স্থানীয়রা 

মাঠেই নষ্ট হচ্ছে ধান, হাজার টাকায়ও মিলছে না শ্রমিক 

সিলেটে বন্যায় কৃষিজমি পানির নিচে, খাদ্য সংকটের আশঙ্কা