বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় কী খাবেন 

আপডেট : ০৯ মে ২০২২, ১৭:৪১

উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন শুধু প্রাপ্তবয়স্কদের হয়, এমনটা ভাবার কোনো অবকাশ নেই। আজকাল অল্প বয়সীরাও উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। সাধারণত উচ্চ রক্তচাপের কোনো লক্ষণ দেখা যায় না বলেই একে ‘নীরব ঘাতক’ বলা হয়। তবে মাথা ঘোরানো, মাথাব্যথা, বমি বমি ভাব এগুলোকে প্রাথমিক লক্ষণ বলা যেতে পারে। 

বিভিন্ন কারণে উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন হতে পারে। এর মধ্যে অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস, অতি লবণযুক্ত ফাস্ট ফুড, প্রক্রিয়াজাত খাবার, স্থূলতা, ব্যায়াম বা কায়িক শ্রম না করা, বংশগত কিডনি রোগ, কিডনির প্রদাহ, ত্রুটিপূর্ণ কিডনি, কিডনির রক্তনালির সমস্যা বা কিডনির টিউমার, হরমোনজনিত সমস্যা, মস্তিষ্কের টিউমার, লুপাস, রক্তনালির প্রদাহ বা জন্মগত রক্তনালির সংকোচন এবং দীর্ঘদিন স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ সেবন করলে কম বয়সেও উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। 

উচ্চ রক্তচাপকে বলা হয় ‘নীরব ঘাতক’

উচ্চ রক্তচাপ হলে কি কি খাবেন
প্রথমত, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখাটা খুব দরকার। সেজন্য তেল ও চর্বিজাতীয় খাবার, অতিরিক্ত লবণ ও চিনিজাতীয় খাবার কম খেতে হবে। এর বদলে খাবেন রঙিন শাকসবজি। এগুলোতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম ও ফোলেট থাকে, যা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। 

দ্বিতীয়ত, মৌসুমি ফল এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল খেতে হবে। লেবু, জাম্বুরা, পেয়ারা, আমলকী, আপেল, কমলা, মাল্টা, ডালিম খাদ্যতালিকায় রাখুন সাধ্য হলে। এসব ফলে থাকা ভিটামিন সি ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রক্তনালির সুস্থতা বজায় রাখে এবং রক্তচাপ কমাতেও সহায়তা করে। 

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে দেশি মৌসুমি ফল এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল খেতে হবে

তৃতীয়ত, কলা খান। কারণ কলাতে আছে পটাশিয়াম। যা রক্তচাপ কমায়। প্রতিদিন একটি কলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। সম্ভব হলে একাধিকও খেতে পারেন। পাশাপাশি খেতে পারেন নাশপতি ও পেঁপে। 

চতুর্থত, সামুদ্রিক মাছ খাবেন। সমুদ্রে থাকা মাছে আছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। যা হৃৎপিণ্ডের সুস্থতাই বজায় রাখে এমনটা নয়, রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। পাশাপাশি অলিভ অয়েল, সানফ্লাওয়ার অয়েল ব্যবহার করুন রান্নাবান্নায়। প্রতিদিন সরবিহীন এক কাপ দুধ এবং একটি ডিম খাবেন। 

পঞ্চমত, পালং শাকে পটাশিয়াম, গাজরে ফেনোলিক যৌগ, টমেটোতে পটাশিয়াম ও ক্যারোটিনয়েডসের আধিক্য, ব্রকলিতে থাকা ফ্ল্যাভোনয়েড ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, রসুনের সালফারজাতীয় যৌগ রক্তনালির স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায় এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। তাই এগুলো খেতে চেষ্টা করবেন। 

 

 

ইত্তেফাক/আরএম

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

অ্যাসিডিটি কেন হয়, প্রতিকার কী

রোদে বের হলে কী মাথাব্যথা হয় 

স্তন্যদানের প্রয়োজনীয়তা 

যোগাসন যেভাবে বয়স কমিয়ে রাখে 

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

গরমে সুস্থ থাকতে বদলান ৭ অভ্যাস

মাঝরাতে খিদে পাওয়া কী কোনো রোগের লক্ষণ 

ঋতু বদলে বাড়তে পারে হৃদরোগের ঝুঁকি 

গ্রীষ্মে রক্তশূন্যতা দুর করতে ৪ জুস