সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ঘূর্ণিঝড় আসানি: কক্সবাজারে প্রস্তুত ৫৭৬ আশ্রয় কেন্দ্র

আপডেট : ১০ মে ২০২২, ২৩:৫২

ঘূর্ণিঝড় আসানির প্রভাবে সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবিলায় জেলার ৫৭৬টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে প্রস্তুত রাখা হয়েছে সিপিপি স্বেচ্ছাসেবক টিম, রেডক্রিসেন্ট, স্কাউট, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে।  

কক্সবাজার জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভা শেষে এসব তথ্য জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ। 

মঙ্গলবার (১০ মে) সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসনের শহিদ এটিএম জাফর আলম সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসন আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ।

জেলা প্রশাসক বলেন, সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবিলায় জেলার ৫৭৬টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত আছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে শুকনো খাবার, সুপেয় পানি মজুদ রাখা, উপকূলীয় এলাকার মানুষদের নিরাপদ স্থানে আনার পূর্ব প্রস্তুতিসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে সিপিপি স্বেচ্ছাসেবক টিম, রেডক্রিসেন্ট, স্কাউট, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে। চোখকান খোলা রাখতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. জাহিদ ইকবাল, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা, পৌর কাউন্সিলর সালাহউদ্দিন সেতু ও অন্যান্য জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। 

অপরদিকে,  বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় আসানির প্রভাবে উত্তাল রয়েছে কক্সবাজারের সমুদ্র উপকূল। গত দু’দিন ধরে কক্সবাজারে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। কক্সবাজারের সকল মাছ ধরার ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি নিরাপদে অবস্থান করতে বলেছে আবহাওয়া অফিস।

 

ইত্তেফাক/ ইউবি

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে কক্সবাজারে গণস্বাক্ষর 

স্বপ্নের পদ্মা সেতু'র ইতিহাসের অংশীদার হলো কক্সবাজারবাসী

কক্সবাজারে পুকুরে গোসল করতে নেমে প্রাণ গেলো কলেজ ছাত্রের

বিশেষ সংবাদ

কক্সবাজারে ভারী বৃষ্টিতে পাহাড়ধসের আশঙ্কা 

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

টেকনাফে সোয়া কেজি ক্রিস্টাল মেথসহ যুবক গ্রেফতার

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গুলি করে হত্যার অভিযোগ 

বিশেষ সংবাদ

কক্সবাজারে পাহাড়ধস আতঙ্কেও সরছে না বাসিন্দারা

চট্টগ্রামে আবারও ভারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা, বাড়ছে পাহাড়ধসের ঝুঁকি