বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

সিরিয়া সংকট

রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা কি সিরিয়ায় সংকট বাড়াবে

আপডেট : ১১ মে ২০২২, ২০:০৫

ইউক্রেনে হামলার কারণে রাশিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে ইইউ। নিষেধাজ্ঞার কবলে থাকা রাশিয়া তাই চরম অর্থনৈতিক সংকটের আশঙ্কায়। এর প্রভাবে সিরিয়ায় কি তীব্র মানবিক সংকট দেখা দিতে পারে? 

ইইউর আয়োজনে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার দাতাদের ষষ্ঠ সম্মেলন হয়ে গেল। সেখানে ইইউর বিদেশ নীতি বিভাগের প্রধান ইয়োসেপ বোরেল সিরিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন। যুদ্ধের কারণে সিরিয়ার নব্বই ভাগ মানুষই এখন দারিদ্র্যক্লিষ্ট জীবন যাপনে বাধ্য হচ্ছে। বোরেলের আশঙ্কা, ইউক্রেনের দিকে সবার মনযোগ চলে যাওয়ায় সিরিয়ার সংকটের বিষয়টি আড়ালে চলে যেতে পারে এবং সেরকম হলে তার ফলাফল সিরিয়ার জন্য খুব ভয়াবহ হবে।

তিনি বলেন, ‘‘রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাবে খাদ্য এবং জ্বালানির দাম আরো বাড়বে। ফলে সিরিয়ার পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে।''

রাশিয়াকে দূরে রেখে সিরিয়া-সংকট মোকাবেলা সম্ভব? 

রাজনৈতিক মানচিত্র।

সিরিয়ার দাতাদের ষষ্ঠ সম্মেলনে ৫৫টি দেশ এবং জাতিসংঘ, ইইউসহ মোট ২২টি আন্তর্জাতিক সংস্থা অংশ নেয়। কিন্তু রাশিয়াকে এবার আমন্ত্রণই জানানো হয়নি। সিরিয়ার ‘মিত্র দেশ' রাশিয়ার অনুপস্থিতিতেই সিরিয়া এবং প্রতিবেশী দেশগুলোর জন্য অর্থ সহায়তা গত বছরের ৬.৪ বিলিয়ন ডলার থেকে বাড়িয়ে ৬.৭ বিলিয়ন ডলার করা হয়।

মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বোরেল আরো বলেন, এবারের সম্মেলন থেকে রাশিয়া এবং সিরিয়াকে একটি বার্তাই দেয়া হলো আর তা হলো- সিরিয়ায় যথেষ্ট গ্রহণযোগ্য রাজনৈতিক সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত দেশ দুটোর বিরুদ্ধের নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হবে না, পারস্পরিক সম্পর্কেরও উন্নতি হবে না।

কিন্তু রাশিয়ার সঙ্গে দূরত্ব বজায় রেখে সিরিয়া, বিশেষ করে সিরিয়ার পূর্ব-পশ্চিমাঞ্চলে মানবিক সহায়তা পাঠানো কার্যত অসম্ভব। ২০১৪ সালে চারটি চ্যানেল দিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে সিরিয়ায় মানবিক সহায়তা পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছিল জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। কিন্তু রাশিয়া এবং চীন ভেটো দেয়ায় চারটির মধ্যে তিনটি চ্যানেলই পরে আর কাজে লাগানো যায়নি।

ইডলিব সংলগ্ন বাব-আল-হাওয়া ছিল সহায়তা পৌঁছানোর একমাত্র পথ। রাশিয়া ‘নরম' হওয়ায় গত বছর এই চ্যানেল উন্মুক্ত করা গেলেও জুলাইয়ে পুটিনের দেশ বেঁকে বসলে সেই পথও বন্ধ হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ভয়াবহ সংকটে পড়তে পারে প্রায় চল্লিশ লাখ মানুষের জীবন।

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে নিষেধাজ্ঞার ভয়াবহ চাপে থাকা রাশিয়া কি সিরিয়ার মানুষদের কাছে ত্রাণ পৌঁছানোয় বাধা হয়ে দাঁড়াবে। ইইউর পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান বোরেল তা মনে করেন না, তিনি বলেন, ‘‘আমার মনে হয় রাশিয়া তা করবে না। তাদের তা করা উচিত নয়।'' 

 

 

 

ইত্তেফাক/এসআর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

দক্ষিণ ইউক্রেনে রাশিয়ার পাসপোর্ট বিলির নির্দেশ

ইউক্রেনে রাশিয়ার বিধ্বস্ত ট্যাংক নিয়ে প্রদর্শনী

চলতি বছরের শেষ নাগাদ ক্রিমিয়া পুনর্দখল করবে কিয়েভ

তেল বিক্রিতে সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়লো রাশিয়া 

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠানো নিয়ে জার্মানি-পোল্যান্ড দ্বন্দ্ব

ইউরোর বিপরীতে রুবলের মান ৭ বছরে সর্বোচ্চ, ডলারে রেকর্ড

মারিউপোলে ২০০ দেহ উদ্ধার

বন্ধু পুতিনের সমালোচনায় দুতের্তে