শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মোরেলগঞ্জে মাছ ধরা বন্ধ, বিকল্প কর্মসংস্থানের দাবি 

আপডেট : ০৩ জুন ২০২২, ১৩:০০

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে বিকল্প কর্মসংস্থানের অভাবে উপজেলা জেলেরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। সাগরে মাছ ধরা বন্ধ থাকায় তাদের এই অবস্থা। পরিবার নিয়ে দুর্বিষহ জীবন কাটছে তাদের। 

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই ৬৫ দিন সব প্রকার মাছ ধরা বন্ধ রয়েছে। এ কারণে চিংড়াখালী ইউনিয়নের পূর্ব চন্ডিপুর পশুরি পাড়া জেলে পল্লীর শত শত পরিবার অলস সময় কাটাচ্ছে। খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন তারা। সরকারি খাদ্য সহায়তা পেলেও প্রয়োজনের তুলনায় তা অপ্রতুল। 

এ পল্লীর সাড়ে ৩০০ পরিবার অবকাশকালীন সময়ে বিকল্প কর্মসংস্থানের দাবি জানিয়েছে। এই গ্রামের অধিকাংশটা জুড়ে জেলে পরিবারের বসবাস। সাগরে মাছ ধরে জীবন জীবিকা নির্বাহ হয় তাদের। সারাবছরই মহাজনদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা দাদন নিয়ে সাগরে মাছ ধরতে হয় তাদের । 

এই গ্রামের সাগর নির্ভরশীল জেলেদের ছোট-বড় ১৫-২০টি ট্রলার রয়েছে। প্রতিটি ট্রলারে ২০ থেকে ৪০ জন শ্রমিক কাজ করেন।কোনো কোনো সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগ বন্যা, জলোচ্ছ্বাস প্রতিকূলতায় মাছ না পেয়ে খালি হাতে ফিরতে হয় তাদের। বছরের বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই মহাজনদের সুদের টাকার বেড়াজালে আটকে যেতে হয় এসব জেলেদের। 

জেলে মোকছেদ বেপারী ও চান মিয়া জানান, সাগরে মাছ ধরা বন্ধ থাকাকালীন সময়ে দু’বছর আগে থেকে সরকারিভাবে মৎস অধিদপ্তরের মাধ্যমে ২ কিস্তিতে জনপ্রতি ৮৬ কেজি চাল সুবিধা পান। এ সামান্য চালে তাদের পরিবার নিয়ে চলতে কষ্ট হয়। একদিকে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, অন্যদিকে একমাত্র আয়ের উৎস বন্ধ কিভাবে চলবে তাদের সংসার। 

অবকাশকালীন সময়ে বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য সুদমুক্ত ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থার মাধ্যমে যা থেকে নিজ বাড়িতে হাঁস-মুরগি পালন, পুকুরে মাছ চাষ ও আধুনিক প্রযুক্তিতে সবজি উৎপাদন করে এ জেলে পেশার মানুষের সংসারের চাকা সচল করা সম্ভব। পাশাপাশি খাদ্য সহায়তা বৃদ্ধি করার দাবি জানিয়েছেন তারা।

 উপজেলার সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা বিনয় কুমার রায় বলেন, ‘সাগরে ৬৫ দিন মাছ ধরা থেকে বিরতকারী জেলেদের অবকাশকালীন সময়ে এ উপজেলার প্রায় ৩ হাজার জেলেদের জনপ্রতি ৮৬ কেজি করে চাল খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে মৎস অধিদপ্তরের মাধ্যমে।’ জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থান ও দাবি-দাওয়ার বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের  অবহিত করা হবে বলে জানিয়েছে তিনি।

ইত্তেফাক/মাহি