বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিশ্বে শেখ হাসিনা এখন সফলতার প্রতীক, আর বাংলাদেশের মর্যাদার প্রতীক 

আপডেট : ২৫ জুন ২০২২, ১০:৫৭

বাঙালির জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আজ সারা পৃথিবীতে সফলতার মূর্ত প্রতীক, তিনি এখন বাংলাদেশের মর্যাদার প্রতীক। এটা আজ প্রতিষ্ঠিত, গত এক যুগে বাংলাদেশ পৃথিবীতে মর্যাদার এক আকাশচুম্বী জায়গা করে নিয়েছে। বাংলাদেশের এই মর্যাদার প্রতীক শেখ হাসিনা, কারণ যে সফলতার কারণে বাংলাদেশের এই মর্যাদা, সেই সফলতার মূল নায়ক তিনি। শেখ হাসিনার সফলতার গল্প আজ শুধু জাতীয় কিংবা আঞ্চলিক পর্যায়ে নয়, গোটা পৃথিবীতে তাঁর সাফল্যের কাহিনী ছড়িয়ে পড়েছে। 

বর্তমান গণতান্ত্রিক বিশ্বে তিনি সবচেয়ে দীর্ঘতম সময় ধরে নেতৃত্ব দেয়া জাতীয় নেতা। অর্থনৈতিক, সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে তার মতো সফলতা পাওয়া নেতা পৃথিবীতে বিরল। গত দুই দশকে পৃথিবীর কোন জাতীয় নেতা শেখ হাসিনার মতো এরকম সফলতা দেখতে পারেনি। তাঁর সফলতার গল্প আজ বিশ্ব নেতাদের মুখে মুখে। তাঁর উন্নয়ন কৌশল আজ পৃথিবীর নানা দেশ অনুসরণ করছে। মোটা দাগে বলতে গেলে, শেখ হাসিনা সারা বিশ্বে আজ সফলতার এক প্রতীক। 

রাত পোহালে বাংলাদেশের সর্বশেষ মর্যাদার প্রতীক, বাঙালির স্বপ্নের সেতু, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা। এই অসম্ভবকে সম্ভব করার জন্য পুরো দুনিয়া এখন শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানাচ্ছে। এটা সত্যি, অনেকের মতে পদ্মায় সেতু নির্মাণ বাংলাদেশের জন্য এক অসাধ্য কাজ ছিল। তার ওপর রয়েছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র। তাই এই কাজটি বাংলাদেশের কোন নেতা করতে পারবেন —এটি এদেশের অনেকেই বিশ্বাস করতে পারেননি। 

অন্যদিকে, ষড়যন্ত্রকারীরা শেখ হাসিনার শক্তি-সামর্থ্য সম্পর্কে ধারণা করতে পারেনি। তারা ভুলে গিয়েছিলো, শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির পিতা শেখ মুজিবের মেয়ে, যে শেখ মুজিব তদানীন্তন বিশ্ব ব্যবস্থার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে এবং বিশ্বের পরাশক্তিদের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে বাংলাদেশ সৃষ্টি করেছিলেন। ষড়যন্ত্রকারীরা  নানাভাবে বলে আসছিলো, বাংলাদেশ পদ্মা সেতু নির্মাণের মতো কঠিন কাজটি করতে পারবে না। পুরো পৃথিবীকে অবাক করে দিয়ে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা এই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন। পিতার মতো শেখ হাসিনাও বিশ্ব মোড়লদের কর্তৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ ভৌত কাঠামো পদ্মা সেতু নির্মাণ করলেন। শেখ হাসিনা উন্নয়নশীল বিশ্বের একমাত্র নেতা যিনি বিশ্ব ব্যবস্থার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে এই বিশাল কাজটি করতে পারলেন। তাঁর এই কাজের সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়বে বর্তমান বিশ্ব ব্যবস্থায়। 

বিশ্বে বাংলাদেশের মর্যাদা বৃদ্ধির একমাত্র কারণ পদ্মা সেতু নয়।  শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আরও বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে আকাশচুম্বী সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ। 

কৃষি বিপ্লব, পোশাক রপ্তানি, স্বাস্থ্য সেবা, নারীর ক্ষমতায়ন, বিদ্যুৎ উৎপাদন, দ্রুত সময়ে ব্যাপকভিত্তিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, এসডিজি অর্জনে বিশ্বে শ্রেষ্ঠত্ব, সামাজিক নিরাপত্তা চিশ্চিতকরণ, সমুদ্রে অধিকার প্রতিষ্ঠা, তথ্য প্রযুক্তিতে বৈপ্লবিক উন্নয়ন —এসকল ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক সাফল্য দেখিয়ে বিশ্বে বাংলাদেশ মর্যাদার স্থান করে নিয়েছে। গত একযুগেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশ এই সাফল্য দেখিয়ে আসছে। তাই শেখ হাসিনার পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘটনাটি তাঁর নিরবিচ্ছিন্ন সাফল্যের ধারাবাহিকতা। এটি বিচ্ছিন্ন কোন সাফল্য নয়। 

যে আকাশচুম্বী স্বপ্ন নিয়ে জাতির পিতা স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করে সেই স্বপ্নকে নস্যাৎ করতে চেয়েছিলো বাংলাদেশবিরোধী চিহ্নিত অশুভ শক্তি। তারা ভেবেছিলো, জাতির পিতার মৃত্যুর পর বাংলাদেশ পথভ্রষ্ট হবে, বাংলাদেশ আর দাঁড়াতে পারবে না। তাদের এই ষড়যন্ত্রকে নস্যাৎ করে জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে নানা কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করলেন। সেই কমিটমেন্টের সর্বশেষ নমুনা স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণ। তাই আজ জাতীয় উদযাপনের এই দিনে জাতির পিতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। 

শেখ হাসিনার নেতৃত্বের এই সাফল্য দেখে আজ ভারতের সাবেক একজন সেনানায়ক জেনারেল সুজান সিং উবানের প্রায় চল্লিশ বছর পূর্বের একটি লেখার কথা মনে পড়ছে।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে জেনারেল উবানের এক গৌরবজনক ভূমিকা রয়েছে। ১৯৮৫ সালে প্রকাশিত  তাঁর লেখা বই Phantoms of Chittagong: The "Fifth Army" in বাংলাদেশ-এ উল্লেখ করেছেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে বাংলাদেশে কোন যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে ওঠেনি। তাঁর লেখায় বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ যোগ্য নেতৃত্বের ইঙ্গিত রয়েছে।  তিনি লিখেছিলেন, বাংলাদেশ মেধাবী ও যোগ্য নেতৃত্বের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নেতৃত্ব দিবে। তখন অনেকেই বাংলাদেশকে অনুসরণ করবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও মেধাদীপ্ত নেতৃত্বে বিশ্বে বাংলাদেশের বীরত্বপূর্ণ উত্থান- জেনারেল উবানের প্রায় ৪০ বছর পূর্বের লেখার সত্যতা প্রমাণ করে। 

একজন বাঙালি হিসেবে আজ আমি গর্বিত, আমরা শেখ হাসিনার মতো একজন নেতা পেয়েছি যিনি বাংলাদেশকে আজ বিশ্বে নেতৃত্বের পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন, যিনি বাঙালিকে বিশ্বজয়ের স্বাদ পাইয়ে দিয়েছেন। 

শেখ হাসিনা পিতার মতো জাতিকে মমতা দিয়ে আগলিয়ে রেখেছেন, মহামারী- বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা ও বিপর্যয় সহ সকল বিপদ-আপদ থেকে জাতিকে রক্ষা করে চলেছেন,  দেশকে রক্ষার জন্য পিতার মতো মৃত্যুঝুঁকি কাঁধে নিয়ে দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। এই বাংলাদেশ যতদিন বেঁচে থাকবে, কালজয়ী রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে তাঁর নানা যুগান্তকারী অবদানের জন্য ততদিন তিনি বাঙালির হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন।

ইত্তেফাক/এএইচপি