শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

হয়রানি বন্ধে রাজধানীর ১০০টি পাবলিক বাসে সিসি ক্যামেরা

আপডেট : ২৭ জুন ২০২২, ০৭:৩০

দেশে এই মুহূর্তে মোট জনগোষ্ঠীর ৩৬ শতাংশ নারী কর্মক্ষেত্রে যাতায়াত করছে। তাদের মধ্যে ৮০ ভাগই গণপরিবহন ব্যবহার করে। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক জরিপ প্রতিবেদন বলছে, শতকরা ৯৪ ভাগ নারী যাত্রী কোনো না কোনোভাবে গণপরিবহনে হয়রানির শিকার হন। সিসি ক্যামেরা বসলে এই হয়রানি কিছুটা কমে আসবে। তাই গণপরিবহনে নারী যাত্রীদের হয়রানি বন্ধে রাজধানীর ১০০টি পাবলিক বাসে সিসি (ক্লোজ সার্কিট) ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ৩০ জুনের মধ্যে এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন শুরু হবে। সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে।

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর আগামী এক বছরের জন্য এই পাইলট প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দিপ্ত ফাউন্ডেশন এতে সহায়তা করবে। সম্প্রতি ইস্কাটনের মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তর মিলনায়তনে আয়োজিত এক সেমিনারে এমন তথ্য জানানো হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব ও কর্মসূচি পরিচালক পাপিয়া ঘোষ, অতিরিক্ত সচিব এনডিসি মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, যুগ্ম সচিব ফেরদৌস বেগম এবং দিপ্ত ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক জাকিয়া কে হাসান প্রমুখ।

সেমিনারে মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন বলেন, নারী নির্যাতন প্রতিরোধে মাল্টি সেক্টরাল প্রোগ্রাম চালু আছে। গণপরিবহনে নারীদের নিরাপদ যাতায়াত ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে সরকার বেশ তৎপর। প্রধানমন্ত্রীর স্লোগান অফিস ঘরে যাত্রা পথে, নারী থাকবে নিরাপদে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর নারীদের নিরাপত্তায় নানাভাবে কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে দুই সিটি করপোরেশনের ১০০টি বাসে সিসি ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। আগামী দিনে এই পরিধি আরো বাড়ানো হবে। দিপ্ত ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক জাকিয়া কে হাসান বলেন, নারী যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে এই প্রকল্প দুই বছর ধরে চলছে। যা চলতি বছরের ৩০ জুন শেষ হচ্ছে। সিসি ক্যামেরা বসানোর জন্য দুই সিটির একাধিক বাসচালক ও হেলপারদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। কেউ সমস্যায় পড়লে বিশেষ অ্যাপসের মাধ্যমে তাত্ক্ষণিকভাবে সেন্ট্রাল মনটিরিং ও কনট্রোল রুমে জানাতে পারবে। প্রতি তিন মাস অন্তর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে কর্মকাণ্ডের প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। সেমিনারে অংশ নিয়ে ঢাকার ট্রাফিক পুলিশের ডিআইজি সৈয়দ নূরুল ইসলাম বলেন, শিগ্গিরই ঢাকা সিটিতে রেশনালাইজ বাস চালু হচ্ছে। এসব বাসে সিসি ক্যামেরা প্রতিস্থাপন করা হলে নারী যাত্রীদের হয়রানি কমবে

ইত্তেফাক/ইআ