শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শ্রীলঙ্কায় জ্বালানির দাম ৮৩৫ ভাগ বাড়ানোর প্রস্তাব

আপডেট : ২৮ জুন ২০২২, ১৮:৫৬

যৎসামান্য জ্বালানির মজুদ সাবধানে খরচ করতে দুই সপ্তাহের জন্য কঠোর নিয়ম চালু করেছে শ্রীলঙ্কা। এই সময়ে শুধু জরুরি পরিষেবার জন্য সীমিত পরিমানে জ্বালানি কেনা যাবে। জ্বালানির খরচ এড়াতে সব স্কুল বন্ধ থাকবে এই দুই সপ্তাহ। 

সোমবার এক বিবৃতিতে শ্রীলঙ্কা সরকারের মুখপাত্র বান্দুলা গুণাবর্দনা বলেন, ‘‘আজ মাঝরাত থেকে স্বাস্থ্য বিভাগের মতো জরুরি খাত ছাড়া অন্য কোনো খাতে জ্বালানি বিক্রি করা হবে না।'' বিবৃতিতে তিনি জানান, ভয়ঙ্কর অর্থনৈতিক সংকটে পড়া দেশটিতে সামান্য যেটুকু জ্বালানি রয়েছে তা সংরক্ষণ করার স্বার্থেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

জ্বালানি সংকটের কারণে দুই কোটি ২০ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে সম্ভব হলে সবাইকে আপাতত ঘর থেকে কাজ করতে বলেছে সরকার। পাশাপাশি দেশের সব স্কুল দু সপ্তাহের জন্য বন্ধ রাখারও ঘোষণা দেয়া হয়েছে। 

জ্বালানির দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব

নিত্য প্রয়োজনীয় সব দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির কারণে শ্রীলঙ্কার অধিকাংশ নাগরিকই এখন বিপর্যস্ত। তার ওপর চলতি বছরের প্রথম চার মাসে জ্বালানি খাতে মোট ৬৫ বিলিয়ন রুপি (১৮৫ মিলিয়ন ডলার/১৭১ মিলিয়ন ইউরো)-র ক্ষতির কথা উল্লেখ করে বড় রকমের ভর্তুকি দিয়ে আসা জ্বালানির দাম শতকরা ৮৩৫ ভাগ বৃদ্ধির প্রস্তাব দিয়েছে সিলোন ইলেক্ট্রিসিটি বোর্ড (সিইবি)। 

তবে রাষ্ট্রীয় বিদ্যুৎ সংস্থার এ প্রস্তাবের বিরোধিতা করে পাবলিক ইউটিলিটিজ কমিশন অব শ্রীলঙ্কার চেয়ারম্যান জনক রত্নায়েকে বলেছেন, ‘‘এই হারে দাম বাড়ালে অধিকাংশ ভোক্তাই তা কিনতে পারবে না।'' তাই ভর্তুকি বাড়িয়ে জ্বালানির মূল্য সিইবি-র প্রস্তাবের অর্ধেকেরও কম বৃদ্ধি করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

জ্বালানি সংকট নিরসনের চেষ্টা

এদিকে নিয়ন্ত্রিত বিক্রয় এবং মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি রাশিয়া থেকে জ্বালানি কিনেও সংকট নিরসনের চেষ্টা করছে শ্রীলঙ্কা সরকার। ইতিমধ্যে দুজন মন্ত্রীকে রাশিয়ায় পাঠানো হয়েছে। শ্রীলঙ্কার জ্বালানি মন্ত্রী কাঞ্চনা বিজেসেকারা মনে করেন, ‘‘রাশিয়া সরকার বা রাশিয়ার কোনো খামার থেকে তেল কেনা আমাদের (শ্রীলঙ্কা) জন্য বেশ সুবিধাজনক।''

 

 

 

ইত্তেফাক/এসআর

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন