বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ৩ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

রাস্তা বন্ধ, দুর্ভোগে ৩ হাজার মানুষ 

আপডেট : ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:৪০

ফরিদপুরের নগরকান্দায় গ্রামীণ সড়ক বন্ধ করে দেওয়ায় প্রায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে একটি গ্রামের ৩০ হাজার মানুষ। উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়নের ছোট কুমারদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। ঐ গ্রামের চলাচলের জন্য একটি মাত্র কাঁচা রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন এলাকার এক প্রভাবশালী ব্যক্তি। এতে ভয়াবহ দুর্ভোগে পড়েছেন গ্রামবাসী।

জানা যায়, প্রায় তিন যুগ ধরে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে আসছে ছোট কুমারদিয়া গ্রামের মানুষ। কিন্তু উপজেলার বাগাট গ্রামের মোশারফ হোসেন নামের এক প্রভাবশালী ব্যক্তি বাঁশ আড়াআড়িভাবে বেঁধে ঐ রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছেন। এছাড়া রাস্তাটি খুঁড়ে বড় বড় গর্ত করে রেখেছেন। এ ব্যাপারে গ্রামবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ঐ গ্রামে প্রবেশ ও বাইরে যাওয়ার একমাত্র রাস্তাটি বন্ধ। ছেলেমেয়েরা পাশের বাগাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না। মোশারফ হোসেন এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। ভুক্তভোগীরা অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, গ্রাম থেকে বের হওয়ার একমাত্র পথটি বন্ধ করে ফেলায় আমরা গৃহবন্দি হয়ে পড়েছি। বিলের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ পথ পানি-কাদা পার হয়ে হাটবাজারে যেতে হচ্ছে। ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া বন্ধ রয়েছে।

ইউপি সদস্য বকুল মোল্যা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমরা অনেক সুপারিশ করেছি বন্ধ সড়কটি খুলে দিতে। কিন্তু আমাদের কোনো পাত্তাই দেন না মোশারফ। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোশারফ হোসেন বলেন, আমার জায়গার ভেতর দিয়ে পথটি গেছে। তাই আমি পথটি বন্ধ করে দিয়েছি। তিনি আরো বলেন, ভুলক্রমে এই জায়গাটি সরকারের নামে রেকর্ড হয়েছে। আমি রেকর্ড সংশোধনের মামলা করেছি। এক ভুক্তভোগী বলেন, যে জায়গাটি মোশারফ নিজের দাবি করে বন্ধ করে রেখেছে, সেটি সরকারি খাস খতিয়নভুক্ত। তাছাড়া দীর্ঘ ১৫ দিন হলো সড়কটি বন্ধ থাকায় আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বাবু ফকির বলেন, আমরা বসে এটা সমাধান করার চেষ্টা করছি।

জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, যেহেতু জায়গাটা ব্যক্তিমালিকানাধীন। তাই আলোচনা করে দ্রুত এর সমাধান করা হবে।

ইত্তেফাক/ইআ