শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ঈদের ছুটিতে সড়কে ঝরল ৪০ প্রাণ

আপডেট : ১৩ জুলাই ২০২২, ০১:০৪

ঈদুল আজহার ছুটিতে সারা দেশে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৪০ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে চট্টগ্রামের পটিয়ায় অটোরিকশাকে বাস ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই ছয় জন, টাঙ্গাইলে বাস-ভ্যান ও অটোরিকশার সংঘর্ষে দুই ভাই, খালা-ভাগনিসহ ছয় জন, গাজীপুরে বাসচাপায় বাবা-মেয়েসহ তিন জন নিহত হয়েছেন। খবর ইত্তেফাক প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের।

চট্টগ্রাম : ঈদের পরদিন সোমবার চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় সিএনজি অটোরিকশার ছয় যাত্রী নিহত হয়েছেন। বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উলটে গেলে আরো অন্তত আট জন আহত হন বলে হাইওয়ে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে। পটিয়া পুলিশ সূত্র আরো জানায়, ৮টার দিকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে পটিয়ার কমলমুন্সীর হাটের কাছাকাছি জলুয়ার দীঘির পাড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। নিহতদের মধ্যে পাঁচ জন পুরুষ ও এক জন নারী।

পটিয়া কলেজ রোড থেকে হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুজাফফর হোসেন গতকাল মঙ্গলবার ইত্তেফাককে বলেন, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ মর্গ থেকে নিহতদের লাশ নিয়ে আসা হয়েছে। পটিয়া থানায় এ ব্যাপারে একটি মামলা হয়েছে। এই দুর্ঘটনায় নিহতরা সবাই ছিলেন সিএনজিচালিত অটোরিকশার যাত্রী। এরা হলেন : মো. সাব্বির হোসেন (১৮), রেজাউল করিম ওরফে রফিক (৪৫), মো. ইসমাইল (৫০), শুভ ধর (২৭), বিশ্বজিৎ সেন (৪৫) এবং তার স্ত্রী রূপনা সেন (৩৯)। পটিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাশেদুল ইসলাম জানান, উলটে যাওয়া বাসের সাত থেকে আট জন যাত্রী আহত হয়েছেন। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। পটিয়া ফায়ার স্টেশনের টিম লিডার প্রদীপ ত্রিপুরা জানান, বাসের ধাক্কায় অটোরিকশাটি সম্পূর্ণ দুমড়ে-মুচড়ে যায়। অটোচালকসহ যাত্রীদের সবাই নিহত হন।

এদিকে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আনোয়ারা-বাঁশখালী পিএবি সড়কের পাইরাং দেলা মিয়ার দোকান এলাকায় যাত্রীবাহী বাস ও সিএনজি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে এক জনের মৃত্যু হয়। নিহত মাওলানা মোরশেদুল হক (৫৫) বাঁশখালীর বাণীগ্রাম মীরবাড়ী এলাকার মৃত আব্দুর রউফের ছেলে। তিনি শেখেরখীল দারুচ্ছালাম আদর্শ সিনিয়র আলিম মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ। এছাড়া পটিয়া উপজেলার পূর্ব পেরলা এলাকার কলেজপড়ুয়া ভাতিজা তানভির ও ব্যাংক কর্মকর্তা চাচা শেখ সাইদি ঈদের দিন শনিবার রাত ১১টায় বাইকযোগে কক্সবাজার বেড়াতে যাওয়ার পথে রামুর গোল চত্বরের আইল্যান্ডের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

কুমিল্লা : ঈদের ছুটিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পৃথক চার দুর্ঘটনায় সাংবাদিকসহ সাত জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ঈদের আগের দিন জেলার দাউদকান্দিতে বাসের চাপায় এক সাংবাদিকসহ মোটরসাইকেল আরোহী তিন জন নিহত হন। ঈদের দিন রবিবার পৃথক তিনটি স্থানে দুর্ঘটনায় চাচা-ভাতিজাসহ মারা গেছেন চার জন। হাইওয়ে পুলিশ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে। নিহতরা হলেন :দাউদকান্দি উপজেলার বেকিনগর গ্রামের আবদুল হকের ছেলে সংবাদকর্মী রাসেল আহমেদ, তার চাচাতো ভাই মো. শরিফ সরকার, তাফসীর সরকার, বরুড়া উপজেলার নবীপুর গ্রামের মাকছুদুর রহমান ওরফে মাসুদ রানা ও তার সাত বছর বয়সি ভাতিজা ফাহাদ হোসেন এবং কাজী সাকিব হোসেন।

টাঙ্গাইল : জেলার ধনবাড়ীতে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই ভাইসহ চার জন নিহত হয়েছে। শুক্রবার রাত পৌনে ১২টায় উপজেলার নল্লা বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, জামালপুর সদরের রামনগর গ্রামের শহীদ মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম (২২) ও তার ছোট ভাই মৃদুল (১৫), একই গ্রামের বজলু মিয়ার ছেলে হাসান (১৯), একই উপজেলার প্রাণকৃষ্ণ কর্মকারের ছেলে বাবুল কর্মকার (৫০)।

ধনবাড়ী থানার ডিউটি অফিসার এএসআই আশিকুজ্জামান জানান, রাতে জামালপুর থেকে একটি বাস ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। অন্যদিকে ধনবাড়ী থেকে তিন জন ভ্যানযোগে জামালপুর যাচ্ছিলেন। ঘটনাস্থলে পৌঁছলে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ভ্যানের চালক বাবুল কর্মকার ও সাইফুল ইসলাম নিহত হন। স্থানীয়রা মৃদুল ও হাসানকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করে, পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরেক জনের মৃত্যু হয়।

এদিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের টাঙ্গাইল সদর উপজেলার রাবনা বাইপাস এলাকায় বাস ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে খালা মৌসুমী বেগম ও তার ভাগনি রিয়া মনি নিহত হয়েছেন। এতে আহত হন আরো তিন জন। তাদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত মৌসুমী বেগম নাটোর জেলার নলডাঙ্গা থানার কাঠুয়াজারী গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে এবং রিয়া মনি জামালপুর জেলার টেংকিমারী গ্রামের রেজাউলের মেয়ে।

কাপাসিয়া (গাজীপুর) : ঢাকা-কাপাসিয়া-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের কাপাসিয়ার টোক ইউনিয়নের চেওরাইট এলাকায় শনিবার সকালে বাসচাপায় বাবা-মেয়েসহ তিন সিএনজি যাত্রী নিহত হয়েছেন। গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. মো. রফিকুল ইসলাম তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, উপজেলার টোকবাজার থেকে ছেড়ে আসা গাজীপুরগামী রাজদূত পরিবহনের বেপরোয়া গতির একটি যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্রো-জ-১১-২৫০১) চেওরাইট এলাকায় পৌঁছলে গাজীপুর থেকে ছেড়ে আসা কিশোরগঞ্জগামী একটি সিএনজি অটোরিকশাকে (গাজীপুর-১১-৯৭১৭) চাপা দেয়। এ সময় সিএনজি অটোরিকশাটি রাস্তা থেকে ছিটকে পড়ে দুমড়ে মুচড়ে যায় এবং যাত্রীরা গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাদেরকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তিন জনকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতরা হলেন : কিশোরগঞ্জ সদরের মতি মিয়ার ছেলে সেলিম মিয়া (৫০) ও তার মেয়ে সাদিয়া আক্তার (৮) এবং একই জেলার কটিয়াদি উপজেলার বাট্টা এলাকার রুবেল মিয়ার স্ত্রী পোশাককর্মী নুরজাহান (২৮)।

মুন্সীগঞ্জ : সোমবার সকালে উপজেলার ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের শ্রীনগর পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় অজ্ঞাত গাড়ির চাপায় আলমগীর আলম (৩৮) নামে এক বাইসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। তিনি পাটাভোগ ইউনিয়নের মাশুরগাঁও গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। এছাড়া দুপুর ১টার দিকে একই মহাসড়কের উপজেলার বেজগাঁও যাত্রীছাউনির সামনে মাওয়াগামী গাংচিল পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের পেছনে একই দিক থেকে আসা স্বাধীন পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস বেপরোয়া গতিতে ধাক্কা দেয়। এতে গাংচিল পরিবহনের যাত্রী মো. সুমন (১৫) ঘটনাস্থলে নিহত ও ১০ জন্য যাত্রী আহত হয়। নিহত সুমন ঢাকার আমিনবাজার এলাকার বাসিন্দা মো. আলাউদ্দিনের পুত্র।

খুলনা : সোমবার বিকাল ৬টার দিকে নগরীর আরাফাত নগরের ময়ূর ব্রিজের মাঝামাঝি স্থানে বাসের ধাক্কায় আরাফাত হাওলাদার (২১) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়। নিহত যুবক নগরীর ৫ নম্বর মাছ ঘাট এলাকার নূরুল হক হাওলাদারের ছেলে। এর আগে রবিবার রাতে নগরীর খানজাহান আলী থানার ডাক্তারবাড়ী এলাকায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় খাদিজা বেগম (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়। নিহত খাদিজা বেগম খানজাহান আলী থানার গিলাতলা ২ নম্বর বিহারি কলোনির মো. জামিল আহমেদের স্ত্রী। এছাড়া শনিবার সন্ধ্যায় নগরীর হরিণটানা থানার হোগলাডাঙ্গা মেইন রোডে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটরসাইকেল থেকে পড়ে মোহাম্মদ রাজু (২৬) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। নিহত রাজু রূপসা উপজেলার আলিমপুর গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে।

শিবালয় (মানিকগঞ্জ) : ঢাকা-আরিচা মহাড়কের মানিকগঞ্জের বানিয়াজুরি ও আড়পাড়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ২ মোটরসাইকেলআরোহী নিহত হন ও অপর ২ জন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন : ধামরাই উপজেলার টুপের বাড়ি এলাকার বাসিন্দা মোটরসাইকেলচালক জুবায়ের (১৪) ও মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা চর ঘোস্তা গ্রামের জসিম উদ্দিনের ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুন মামুন (৪৫)। সোমবার দুপুরে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার বানিয়াজুরি বাসস্ট্যান্ডের নিকট ও সকালে শিবালয় উপজেলার আড়পাড়া মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বরিশাল : গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের টরকী নামক স্থানে বাস ও তেলের ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে তেল বহনকারী ট্রাকের চালক মোক্তার মোল্লা (৫০) নিহত হন। তার বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার মোকসেদপুর এলাকায়। দুর্ঘটনায় বাসের ছয় যাত্রী গুরুতর আহত হন। দুর্ঘটনার পর ঐ মহাসড়কে ছোট যানবাহন চলাচল করলেও এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে বাস-ট্রাকসহ বড় যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। এর আগে সোমবার বিকেলে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের উজিরপুরের নতুন শিকারপুর নামক স্থানে বাসচাপায় ভ্যানচালক বাবুগঞ্জ উপজেলায় রাকুদিয়া গ্রামের মৃত জব্বার হাওলাদারের ছেলে আলমগীর হাওলাদারের মৃত্যু হয়েছে।

রংপুর : ঈদের নামাজ পড়ে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে মাইক্রোবাসের সঙ্গে সংঘর্ষে মাহমুদুল ইসলাম (২২) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় নগরীর পাকার মাথা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত মাহমুদুল জেলার গঙ্গাচড়া সরকারি কলেজে অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী এবং নগরীর কেরানীপাড়ার আব্দুল মান্নানের ছেলে।

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) : কেন্দুয়া উপজেলায় মোটরসাইকেলে করে ঘোরাফেরার সময় প্রাণ কোম্পানির পণ্য পরিবহনকারী একটি ট্রাকের ধাক্কায় আব্দুর রাহিম (১৯) নামে এক যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। রবিবার দুপুরে উপজেলার কেন্দুয়া-আঠারবাড়ী সড়কের সাহিতপুর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রাহিম ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার সরিষা ইউনিয়নের কুর্শিপাড়া গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে। তিনি পেশায় মিষ্টির কারিগর ছিলেন।

চাটমোহর (পাবনা) : পাবনার চাটমোহরে বিয়ের কনেবাহী বাস উলটে নারী ও শিশুসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। ঈদের দিন রবিবার বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার ডিবিগ্রাম ইউনিয়নে বামনগ্রাম রেলগেট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী আহত যাত্রীদের উদ্ধার করে চাটমোহরসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। জানা গেছে, চাটমোহর পৌরসভার বালুচর মহল্লার জিতেন সরকারের মেয়ের বিয়ে হয় বামনগ্রামের অর্জুন সরকারের ছেলে রাজীব সরকারের সঙ্গে। বিয়ের পর বরিবার বিকেলে জিতেন সরকার তার পরিবার ও স্বজনসহ ৪০ জন সদস্য নিয়ে একটি বাসযোগে মেয়ের শ্বশুরবাড়ি উপজেলার ডিবগ্রাম ইউনিয়নে বামনগ্রামে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে বামনগ্রাম রেলগেট এলাকায় পৌঁছালে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশের একটি খাদে পড়ে যায়। এতে বাসের ভেতরে থাকা প্রায় সব যাত্রীই কমবেশি আহত হন।

কক্সবাজার : কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ঈদগাঁওতে চলন্ত নোহা মাইক্রোবাস উলটে খাদে পড়ে আহত হয়েছেন ইসলামি বক্তা মৌলভি মাহবুবুল হক ওরফে নুরে বাংলা। মঙ্গলবার ইসলামপুর নাপিতখালী চাকার দোকান নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ইত্তেফাক/ইআ