বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ২ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পাকিস্তানে মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে ৩৮ শতাংশ

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২২, ১৮:৩৭

পাকিস্তানের গ্রামাঞ্চলে খাদ্যপণ্য, সবজী ও ফলমূলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম শহরের চাইতে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। পাকিস্তানের নতুন সরকার শাহবাজ শরীফ আসার পর দেশটির মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে ৩৮ ভাগ।  এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এএনআই।

২০১৩ সালের পর বর্তমানে গ্রামাঞ্চলে এলপিজি সিলিন্ডার সর্বোচ্চ দামে বিক্রি হচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজার থেকে আমদানিকৃত পণ্যের দাম বৃদ্ধি, উৎপাদন হ্রাস ও ধারাবাহিক মুদ্রাস্ফীতি দেশটির জনগণকে সংকটে ফেলে দিয়েছে। সেই সাথে রয়েছে পাকিস্তানের মুদ্রার অবমূল্যায়ন।

এই সপ্তাহে রুপির রেকর্ড সর্বনিম্ন হারে এবং মুদ্রাস্ফীতি উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় শেহবাজ শরিফের নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোটকে "অযোগ্য" বলে অভিহিত করেছেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রধান ইমরান খান।

এদিকে আইএমএফ বলেছে, ২০২২ অর্থবছরে পাকিস্তানের জিডিপি প্রবৃদ্ধি অপরিবর্তিত অর্থাৎ শতকরা ৪ ভাগই থাকতে পারে। বাড়বে মুদ্রাস্ফীতি। বাইরের দেশগুলোর অর্থনৈতিক পরিস্থিতির কারণে সেখানে স্বল্পমেয়াদী ঝুঁকি বৃদ্ধি পাবে। চলতি হিসাবে দেখা দেবে বড় ঘাটতি। আগের বছরে চলতি হিসাবে ঘাটতি সম্পর্কে আইএমএফ পূর্বাভাস দিয়েছিল শতকরা ৪.১ ভাগ।

আবার ওয়াশিংটনে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুকের তথ্যমতে, ঋণদাতাদের প্রক্ষেপণ বলছে এই অর্থবছরে পাকিস্তানে চলতি হিসাবে ঘাটতি গিয়ে দাঁড়াবে ১৮৫০ কোটি ডলার। এর আগে তারা এই সংখ্যাকে ১২৯০ কোটি ডলার হবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছিল। বলা হয়েছে এর আগে পাকিস্তানে গড় মুদ্রাস্ফীতি ৯.৪ ভাগ ধরা হয়েছিল। তা বর্তমান অর্থবছরে দাঁড়াতে পারে ১২.৭ ভাগ।

ইত্তেফাক/এএইচপি