বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ২ ভাদ্র ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

আমরা পুড়ছি তীব্র দাবদাহে 

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২২, ০৩:০৩

ঋতুর গণনায় এখন চলছে বর্ষাকাল। গ্রীষ্মকালে প্রকৃতি রুক্ষ থাকার পর এবং প্রচণ্ড রোদের তাপ সহ্য করার পর প্রাকৃতিক নিয়মেই জনজীবনে স্বস্তি আনে বর্ষাকাল। বর্ষাকালে আকাশে থাকে মেঘ, ঝরঝর করে বেশির ভাগ সময়ই নামে বৃষ্টি; রাস্তাঘাটে জমে থাকে পানি, খালবিলগুলো থাকে পানিতে পরিপূর্ণ। কিন্তু প্রকৃতির এ চিরায়ত রূপ আজ যেন হারিয়ে গেছে। বর্ষাকাল হওয়া সত্ত্বেও আকাশে মেঘের দেখা নেই, দীর্ঘ দিন ধরে বৃষ্টির কোনো লক্ষণ নেই। কাঠফাটা রোদ আর প্রচণ্ড দাবদাহে পুড়ছে প্রকৃতি, জনজীবন হয়ে উঠেছে দুঃসহ। ঘর থেকে বাইরে বের হওয়াটাই যেন কঠিন হয়ে পড়েছে। শুধু আমাদের দেশই নয়, বিশ্বের অনেক দেশই আজ এমন দাবদাহের শিকার হচ্ছে। সকালের মিষ্টি রোদ এখন আর উপভোগ করা যায় না। সকালেই দেখা যায় ভরদুপুরের কঠিন কাঠফাটা রোদ, যেন পুড়ে সব ছাড়খার করে দিচ্ছে। বদলে গেছে চিরায়ত ঋতুর চিত্র, বদলে গেছে প্রকৃতি। কোনো ঋতুর সঙ্গেই যেন আজ প্রকৃতির মিল খুঁজে পাচ্ছি না।

পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমন পরিস্থিতির জন্য দায়ী বর্তমান জলবায়ু সংকট। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেই আজ প্রকৃতির এ কঠিন রূপ আমাদের দেখতে হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবেই আজ খরা, অতি বৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, অসময়ে বন্যা, উজানে পানির ঢল এসব প্রতিনিয়ত ঘটে চলেছে। পরিবেশ বিজ্ঞানীরা আগেই সতর্ক করে দিয়েছিলেন, গ্রিন হাউজ গ্যাস নিঃসারণের প্রভাবে ২০২০ সাল নাগাদ বিশ্বে তাপমাত্রা অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে এবং উষ্ণতাপ্রবণ এলাকা বেড়ে যাবে। জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়াবহতা সম্পর্কে আন্তর্জাতিক মহলে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ লক্ষ করা যাচ্ছে। তারা বারবার বলছেন, গ্রিন হাউজ গ্যাস নির্গমন হ্রাস বা বন্ধ না করা হলে পৃথিবীর তাপমাত্রা আরো বাড়বে এবং এর ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতাও বেড়ে যাবে।

বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইড বেড়ে গেলে গ্রিন হাউজ প্রতিক্রিয়া ঘটে। পরিবেশ বিজ্ঞানীদের মতে, বননিধন, ব্যাপক শিল্পায়নসহ অন্যান্য দূষণ, প্রাকৃতিক সম্পদ বিনষ্টকরণ, জনসংখ্যা বৃদ্ধি ইত্যাদির ফলে বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইড, নাইট্রোজেন, মিথেন ও ক্লোরোফ্লুরোকার্বন (সিএফসি) গ্যাসের পরিমাণ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ১৯৯৮ সালে প্রকাশিত গ্রিনপিসের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, গত ৩ লাখ ৫০ হাজার বছরে বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইড যে পরিমাণ বেড়েছে, তার চেয়ে কয়েক গুণ বেড়েছে গত ৩২৫ বছরে। জ্বালানি পোড়ানোর ফলে এবং গাড়ি ও কলকারখানার কালো ধোঁয়ার ফলে উৎপাদিত হয় কার্বন ডাই-অক্সাইড এবং জলীয় বাষ্প। তাছাড়া বিভিন্ন ধরনের স্প্রে, রেফ্রিজারেটর, এয়ার কন্ডিশনার প্রভৃতি যন্ত্র থেকে সিএফসি গ্যাস নির্গত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসব গ্যাসের প্রভাবে অতিমাত্রায় সূর্যতাপ পৃথিবীর আবহাওয়ামণ্ডলে আটকা পড়ে মারাত্মক গ্রিন হাউজ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করছে। গ্রিন হাউজের এ প্রতিক্রিয়ায় পরিবেশ এবং জনজীবন তথা সমগ্র পৃথিবী আজ হুমকির সম্মুখীন।

আমাদের পৃথিবী ডুবে আছে এক বিরাট বায়ু সমুদ্রে। এই বায়ুমণ্ডলের গড় অবস্থা হচ্ছে জলবায়ু। অর্থাৎ বায়ুর গড় তাপ, আর্দ্রতা, প্রবাহ এসব মিলে হলো জলবায়ু। জলবায়ুর প্রধান চালিকাশক্তি হচ্ছে তাপ। আর পৃথিবীতে এ তাপশক্তির মূল উত্সই হচ্ছে সূর্য। কিন্তু বায়ুমণ্ডলে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে জলবায়ুর নজিরবিহীন পরিবর্তন ঘটে। আর এ তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণই হচ্ছে গ্রিন হাউজ গ্যাসের প্রতিক্রিয়া। সাধারণ অবস্থায় সূর্য থেকে যে তাপশক্তি আসে, তার কিছু অংশ ভূপৃষ্ঠকে উত্তপ্ত করে এবং বেশির ভাগই প্রতিফলিত হয়ে পুনরায় বায়ুমণ্ডলে চলে যায়। বর্তমানে বায়ুমণ্ডলে যে কার্বন ডাই-অক্সাইড, মিথেন ও অন্যান্য গ্যাস জমে আছে, তা ভূপৃষ্ঠে প্রতিফলিত তাপ শোষণ করে এবং ভূমণ্ডলের তাপ বিকিরণে বাধা দেয়। ফলে পৃথিবীর উপরিভাগ ক্রমান্বয়ে উত্তপ্ত হচ্ছে এবং আমরা পুড়ছি তীব্র দাবদাহে। মনে হচ্ছে, প্রকৃতির অভিশাপে আকাশটা অনেকখানি নিচে নেমে এসে আমাদের তাপে পুড়িয়ে প্রতিশোধ নিচ্ছে।

পরিবেশ বিজ্ঞানীরা অনেক আগে থেকেই বলে আসছেন, জলবায়ু পরিবর্তন ও সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পেলে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বাংলাদেশ। এখানে বন্যা, আকস্মিক বন্যা, ঝড়, সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি ও লবণাক্ততা ইত্যাদির মাত্রা বেড়ে যাবে। উত্তরাঞ্চলে খরা ও মরু প্রবণতা দেখা দেবে এবং দক্ষিণাঞ্চলে ঝড় ও সাইক্লোনের প্রকোপ বাড়বে। শত শত বর্গকিলোমিটার উপকূলীয় ও অন্যান্য নিম্নাঞ্চল অধিক মাত্রায় প্লাবিত হবে। বন্যার ব্যাপকতায় মানুষের জীবনধারণ, কৃষি, গবাদিপশু, দালানকোঠা ও ভৌত কাঠামোসহ ব্যাপক হুমকির সম্মুখীন হবে। যার প্রমাণ এবারের (২০২২) সিলেটের ভয়াবহ বন্যা। উজানে ভারতের আসাম ও মেঘালয়ে প্রবল বৃষ্টিপাতের ফলে সিলেট, সুনামগঞ্জ এবং উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলাসহ বিভিন্ন এলাকা এবার আকস্মিকভাবে বন্যাকবলিত হয়েছে। অন্য দিকে, উজানের পানি একতরফাভাবে ভারত আটকে রাখার ফলে প্রমত্ত পদ্মা, ব্রহ্মপুত্র এবং তিস্তার মতো নদীগুলো এখন মৃতপ্রায়। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পানি সংকটের কারণে যেমন বিভিন্ন এলাকা বা অঞ্চল মরুকরণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, তেমনি উজানের পানির ঢলে আকস্মিক বন্যাও দেখা যাচ্ছে।

দ্রুত শিল্পায়ন ও শক্তির ব্যবহার আজ অপরিহার্য। কিন্তু এর ফলে সৃষ্ট জলবায়ুর পরির্তন এবং সমুদ্রপৃষ্ঠ স্ফীতির কারণে সারা বিশ্ব আজ চরম বিপর্যয়ের সম্মুখীন। বিজ্ঞানীদের পূর্বাভাস অনুযায়ী, অদূর ভবিষ্যতে জলবায়ুর পরিবর্তন ও সমুদ্রপৃষ্ঠ স্ফীত হওয়ার প্রতিক্রিয়া আরো ভয়াবহ হতে পারে। তবু তারা আশাবাদী, যথাযথ ব্যবস্থা ও কর্মসূচি গ্রহণ করলে পরিস্থিতি আয়ত্তের মধ্যে রাখা সম্ভব হতে পারে। আর এই ভয়াবহ পরিণাম থেকে বাঁচতে হলে আমাদের বিদু্যত্ এবং সব ধরনের জীবাশ্ম জ্বালানি উৎপাদন, পরিবহন ও ব্যবহারে অপচয় রোধ করতে হবে এবং দক্ষতা বাড়াতে হবে। সৌর ও অন্যান্য শক্তি এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়াতে হবে। ধানখেতে সেচের ব্যবস্থা উন্নত করতে হবে, যাতে মিথেন গ্যাস কম নির্গত হয়। কলকারখানায় জ্বালানি সাশ্রয়ের লক্ষ্যে প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়াতে হবে। বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে গৃহস্থালি ও শিল্প-কারখানার আবর্জনা প্রক্রিয়াজাত করতে হবে। সর্বোপরি অধিক হারে বনায়ন বাড়াতে হবে এবং বন উজাড়ের প্রবণতা রোধ করতে হবে।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে আজ আমরা পরিবেশ এবং প্রকৃতির যে ভয়াবহ রূপ পর্যবেক্ষণ করছি, যেভাবে দিন দিন অসহনীয়ভাবে বেড়ে যাচ্ছে পৃথিবীর তাপমাত্রা— তাতে গভীর এক শঙ্কা সহজেই নাড়া দিচ্ছে বারবার। প্রশ্ন জাগছে—আধুনিকায়নের ফলে আমরা কেন এ সুন্দর পৃথিবীটাকে সহজেই ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছি? জলবায়ুর পরিবর্তন রোধে আমরা কেন সবাই মিলে সচেতন হতে পারছি না? এখনো সময় আছে—আসুন, এ সুন্দর পৃথিবীটাকে বাঁচাতে এবং টিকিয়ে রাখতে আমরা সবাই সচেতন হই। প্রকৃতির সবুজের পাশে আমরা প্রত্যেকেই তৈরি করি একটি সুন্দর দেশ, সুন্দর পৃথিবী।

লেখক : কলাম লেখক

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন