বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মোটরসাইকেলের জ্বালানি সাশ্রয়ের ১০টি কৌশল 

আপডেট : ০৬ আগস্ট ২০২২, ২৩:০৫

আপনি যে রাস্তায় বাইক চালান এবং আপনার বাইকের অবস্থা এ দুটি বিষয়ের আপনার জ্বালানি ব্যবহারের পরিমাণের উপর প্রভাব রয়েছে। এখানে জ্বালানি সাশ্রয় এর ১০ টি উপায় রয়েছে যেগুলো আপনাকে জ্বালানি এবং অর্থ দুটোই বাঁচাতে সাহায্য করবে। 

  • দিনের শুরুতে যে কাজটি করবেন

প্রতিদিন সকালে বাইক নিয়ে বের হওয়ার আগে বাইক স্টার্ট দিয়ে ২-১ মিনিট রাখুন। তারপর বাইক নিয়ে আপনার গন্তব্যের দিকে যাত্রা শুরু করুন। বাইক নিয়ে বের হওয়ার পর প্রথম কিছু সময় বাইকটা আস্তে চালান , বাইকে প্রেশার কম দিন। আপনি যদি এইভাবে বাইক চালান প্রতিদিন তাহলে আপনি আপনার বাইক থেকে বেশ ভালো মাইলেজ পাবেন।

  • সঠিক গিয়ারে বাইক চালান

বাইক চালানোর একটা সঠিক নিয়ম আছে , আপনি আপনার বাইক সঠিক গিয়ারে চালানোর চেষ্টা করুন। অনেকে আছেন যারা প্রথম গিয়ারে বাইকের উপরে অকারণে প্রেশার দেন। কিন্তু এই কাজটি না করা ভালো। রাস্তা বুঝে যখন যে গিয়ারে বাইক চালানো প্রয়োজন সেই গিয়ারে বাইক চালান।

  • শান্তভাবে বাইক চালান

রাস্তায় নামলে ইদানীং এমন অনেক রাইডার দেখা যায় যারা হুট করে বাইক টান দেয় আবার হুট করেই ব্রেক করে রাস্তা ফাঁকা থাকলে। কিন্তু এভাবে বাইক না চালিয়ে চেষ্টা করুন একভাবে বাইক চালাতে। আপনি যদি আইডল ভাবে বাইক চালান আপনি বাইক থেকে ভালো মাইলেজ পাবেন।

  • ধীরে ধীরে গতি বাড়ান

ইঞ্জিনের বেশী ঘূর্ণন মানেই বেশী পেট্রলের ব্যবহার । আপনার সামনের গাড়ির চেয়ে নিরাপদ দূরত্বে চালান এতে আপনি যানজটের সাথে তালমিলিয়ে চলতে পারবেন। এটা অপ্রয়োজনীয়  গতি বৃদ্ধি এবং যত্রতত্র ব্রেক করা কমাবে যেটা জ্বালানির অপচয় কমাবে । এটা আপনাকে নিরাপদও রাখবে ।

মোটর সাইকেল চালানো।

  • বুদ্ধিমত্তার সাথে জ্বালানির অপচয় রোধ করুন

যদি আপনার ইঞ্জিন বন্ধ করা সম্ভব হয় তাহলে এক বা দুই মিনিটের কাজের সময় ইঞ্জিন বন্ধ রাখুন । আধুনিক বাইকসমূহ কার্যত কোন জ্বালানির অপচয় করে না তাই ফিরে এসে ইঞ্জিন চালু করলে আপনার জ্বালানির বেশী অপচয় হবে না ।

  • নিয়ন্ত্রিত গতিতে বাইক ব্যবহার করুন

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা ওভার স্পীডে বাইক চালিয়ে থাকে। কিন্তু এই অভ্যাসটা পরিহার করুন , সব সময় চেষ্টা করুন বাইক ৬০-৭০ স্পীডে চালাতে। আপনি যদি এই গতিতে বাইক ব্যবহার করে থাকেন তাহলে আপনি মাইলেজ যেমন ভালো পাবেন ঠিক তেমনি বাইক কন্ট্রোল করতেও আপনার সুবিধা হবে।

  • নিয়মিত টায়ারের প্রেশার পরীক্ষা করুন

প্রতি মাসে অন্তত একবার এবং দীর্ঘ ভ্রমণের পূর্বে টায়ারের প্রেশার পরীক্ষা করুন । কম প্রেশারে টায়ার শুধুমাত্র বিপদজনক নয় এটা আপনার জ্বালানির ব্যবহারও  বাড়াবে ।

চাকার প্রেশার চেক করা।

  • কম ওজন নিয়ে ভ্রমণ করুন

বাইক যত বেশী ওজন বহন করবে তত বেশী জ্বালানি ব্যবহার করবে । আপনার বাইককে গাড়ির মতো ব্যবহার করবেন না এবং দুই জনের বেশী যাত্রী বহন করবেন না। আপনি যখন কম ওজন নিয়ে হাইওয়ে রাইড করবেন তখন শুধু জ্বালানি সাশ্রয় না , পাশাপাশি আপনি বাইকটা রাইড করেও মজা পাবেন।

  • আপনার বাইককে ভালভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করুন

আপনার বাইককে ভালোভাবে ও নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ করুন । উৎপাদকের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত সার্ভিসিং করান । আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা নতুন বাইক কিনে আর বাইক সার্ভিসিং করান না, কিন্তু এই কাজটা ঠিক না। আপনি যদি বাইক দীর্ঘদিন সার্ভিসিং না করান একটা সময় গিয়ে বাইকের মাইলেজ অনেক কমে যাবে। তাই এই দিকটিতে খেয়াল রাখুন।

  • বিকল্প উপায় ব্যবহার করুন

মনে করুন আপনি বাসার কাছে কোথাও যাচ্ছেন , বর্তমান সময়ে আমাদের অনেকের অভ্যাস আছে চা বাসার পাশে চা পান করতে গেলেও বাইক নিয়ে যাওয়ার, এই অভ্যাসটি পরিহার করুন। যদি আপনার খুব বেশি প্রয়োজন না হয় সেক্ষেত্রে বাইক কম ব্যবহার করুন। বর্তমান সময়ে এমন একটা অবস্থা শুরু হয়েছে যে বাইক শুধুমাত্র প্রয়োজনের বাহন হিসেবে ব্যবহার করা ছাড়া আর উপায় নেই।

আপনি যদি এই জিনিসগুলো মেনে বাইক ব্যবহার করেন তাহলে আপনার বাইকের জ্বালানি সাশ্রয় হবেই।- বাইক বিডি

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট