বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

‘ক্যারিয়ারে সফলতা-ব্যর্থতা থাকবেই’

আপডেট : ০৮ আগস্ট ২০২২, ১০:৩২

বর্তমানে বলিউডে ব্যস্ত তারকাদের তালিকায় প্রথমদিকে রয়েছে অভিনেত্রী কৃতি শ্যাননের নাম। চলতি বছর মুক্তির কথা রয়েছে তার হাফ ডজন সিনেমা। সেই তালিকায় রয়েছে ‘শেহজাদা’, ‘গণপথ’, ‘ভেদিয়া’, ‘কাভি খুশি কাভি ঈদ’, ‘সেকেন্ড ইনিংস’, ‘কিলবিল’, ‘ফার্জি’ শিরোনামের বহুল আলোচিত ও বিগ বাজেটের সিনেমাগুলো।

এছাড়া আসছে জানুয়ারিতে দক্ষিণী সুপারস্টার প্রভাসের সঙ্গে জুটি বেঁধে ‘আদিপুরুষ’ নিয়ে প্রেক্ষাগৃহে আসবেন কৃতি। প্রতিটি সিনেমা ঘিরেই দর্শকদের উন্মাদনা এবং প্রত্যাশার পাল্লাও বেশ ভারী রয়েছে।

তবে এতকিছুর পরও নিজের শেষ মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমার ব্যর্থতা ভাবাচ্ছে তাকে। বিষয়টি নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমে কৃতি বলেন, ‘তারকা জীবনে যেমন খ্যাতি রয়েছে তেমনি ব্যর্থতার ভয়ও আছে। যা একজন তারকাকে মানসিক কষ্টের ভেতর দিয়ে নিয়ে যায়। কারণ আমিও মানুষ এবং সাধারণ মানুষের মতো সবই করি। কষ্ট পেলে আমিও কাঁদি। যদিও পর্দার বাইরে বা সাক্ষাত্কারে একজন শক্তিশালী কৃতিকে সবাই দেখেন। আবেগগুলো হয়তো বুঝতে দিই না। কারণ আমি মনে করি ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে পরবর্তী কাজের দিকে মনোযোগী হওয়াই ক্যারিয়ার বা নিজের মানসিক যন্ত্রণাকে ভুলে থাকার একমাত্র উপায়।’

এদিকে কৃতির শেষ মুক্তি পাওয়া সিনেমাটির ব্যর্থ পরবর্তী সিনেমাগুলোর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে কি-না?—এমন প্রশ্নের জবাবে কিছুটা বিরক্তি প্রকাশ করে কৃতি বলেন, ‘আমার শেষ মুক্তি পাওয়া সিনেমাটি প্রত্যাশিত সাফল্য অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে এটা যেমন সত্য, তেমনি পরবর্তী সিনেমাগুলো সফল হবে না এটাও বলা যাবে না। ক্যারিয়ারে সফলতা-ব্যর্থতা থাকবেই। কিন্তু সবাই কেন ব্যর্থতার বিষয়টি মাথায় রাখে বুঝি না! নেতিবাচক নয়, ইতিবাচক চিন্তা করুন। একটি সিনেমা হয়তো ব্যর্থ হয়েছে। কিন্তু যা হয়েছে সেটা মেনে নিতে হবে, কারণ সেটা হয়তো আমার নিয়তি ছিল

ইত্তেফাক/এমআর