মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে হবে গুচ্ছ কৃষি ভর্তি পরীক্ষা

আপডেট : ১০ আগস্ট ২০২২, ১৬:০৩

কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে ডিগ্রি প্রদানকারী ৮টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা ২০২১ সালের এইচএসসি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস অনুযায়ী হবে। ভর্তি পরীক্ষা পূর্নাঙ্গ সিলেবাসে হওয়ার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে ভর্তি কমিটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গুচ্ছ কৃষি ভর্তি পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, 'ভর্তি পরীক্ষা পূর্নাঙ্গ সিলেবাসের আলোকে হবে সেটি আগে নির্ধারণ করেছিল কৃষি গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত কমিটি। তখন সমালোচনার জন্য সিলেবাসের কথা বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়নি। তবে নতুন মিটিং অনুসারে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসেই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।  পরীক্ষার্থীরা এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে, শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থেই কমিটি সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে ।'

ভর্তি কমিটি সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ জুলাই থেকে ভর্তি আবেদন শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার (৯আগস্ট) পর্যন্ত ৪৭ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি আবেদন করেছেন। এবার আবেদন সংখ্যা প্রায় এক লাখ হতে পারে বলে অনুমান করছেন সংশ্লিষ্টরা।

তথ্যমতে, এ বছর ২০১৭/২০১৮/২০১৯ সালে এসএসসি/ সমমান এবং ২০২০/ ২০২১ সালে এইচএসসি/ সমমানের পরীক্ষায় যারা বিজ্ঞান বিভাগ হতে জীববিজ্ঞান, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান ও গণিত বিষয়সহ উত্তীর্ণ হয়েছেন, কেবলমাত্র তারাই এই ভর্তি আবেদন করতে পারবেন। আবেদনকারীর এসএসসি/ সমমান এবং এইচএসসি/ সমমানের পরীক্ষায় উভয় ক্ষেত্রে প্রতিটিতে চতুর্থ বিষয় ছাড়া ন্যূনতম জিপিএ ৪.০০ সহ সর্বমোট ন্যূনতম জিপিএ ৮.৫০ থাকতে হবে।

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ১০০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ১০ সেপ্টেম্বর (শনিবার) বেলা ১১:৩০ থেকে ১২:৩০ পর্যন্ত ৭টি কেন্দ্র ও প্রযোজ্য ক্ষেত্রে এক বা একাধিক উপকেন্দ্রের অধীনে একযোগে অনুষ্ঠিত হবে। এইচএসসি/ সমমান পর্যায়ে ইংরেজিতে ১০, প্রাণীবিজ্ঞানে ১৫, উদ্ভিদবিজ্ঞানে ১৫, পদার্থবিজ্ঞানে ২০, রসায়নে ২০ এবং গণিতে ২০ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি সঠিক উত্তরের জন্য ১.০০ (এক) নম্বর প্রদান করা হবে এবং প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা যাবে।

মোট ১৫০ নম্বরের ভিত্তিতে ফল প্রস্তুত করা হবে। ভর্তি পরীক্ষার ১০০ নম্বরের সাথে এসএসসি/সমমানের জন্য ২৫ এবং এইচএসসি/সমমানের জন্য ২৫ নম্বর যোগ করে ফল প্রস্তুত করে মেধা ও অপেক্ষমাণ তালিকা তৈরি করা হবে।

 

 

ইত্তেফাক/এআই