বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ফরিদপুরের পদ্ম বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে পর্যটকের ভিড় 

আপডেট : ১৪ আগস্ট ২০২২, ১৯:৪৬

ফরিদপুরের পদ্ম বিল। প্রকৃতির মোহনীয় এই সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতিদিন ভিড় করছে হাজারো পর্যটক। দিন দিন বাড়ছে পর্যটকদের উপস্থিতি। আগত পর্যটকদের দাবী অবকাঠামোগত কিছু উন্নয়নের।

ফরিদপুর জেলা শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরত্বের কানাইপুর ইউনিয়নের রনকাইল বিল। যা এখন সবাই পদ্ম বিল নামেই চিনে। সড়ক পথে রনকাইল এসে নৌকা নিয়ে বিলে যেতে হবে। প্রায় ৩’শ একর জায়গা জুরে রয়েছে এই বিল। যার বেশির ভাগটা নিয়ে এই পদ্ম বিল।  

ফরিদপুর জেলা শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরত্বের কানাইপুর ইউনিয়নের রনকাইল বিল

পদ্ম বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে দূর দূরান্ত থেকে নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর এমনকি বয়োবৃদ্ধরাও ছুটে আসছেন। পদ্ম ফুলের সৌন্দর্যে মুগ্ধ সবাই। তবে তারা দাবী জানিয়েছেন, ভাঙ্গা রাস্তার আধুনিকায়ন, সুন্দর ঘাটলা, পর্যটকদের জন্য একটি বিশ্রামাগার নির্মাণের।

স্থানীয় যুবক এনামুল হাসান মাসুম বলেন, আমরা প্রথমে বিলের ও ফুলের ছবি তুলে, ভিডিও করে ফেসবুকে দিয়েছিলাম। পরে সেটা ভাইরাল হয়ে যায়। আর দূর দূরান্ত থেতে তরুণ-তরুণীরা, পরিবার নিয়ে অনেকে আসেন পদ্ম বিল দেখতে। এখানে এসে সবাই ছবি তুলে, নৌকায় ঘুরে। যারাই পরিদর্শন করে গেছে কেউই খারাপ লাগছে বলে নি। 

পদ্ম বিলে দিন দিন বাড়ছে পর্যটকদের উপস্থিতি

ঘুরতে আসা তরুণী মিথিলা জানান, যতটা ভেবেছিলেন তার চেয়েও সুন্দর জায়গাটা। আসলে এর সৌন্দর্য বলে বোঝানো সম্ভব না। এখানে এসে এটা উপভোগ করতে হবে। অপর তরুণী রেনটেনা মাহিন বলেন, এখানে আসলে অন্য রকম এক ভালো লাগা কাজ করে। মন ভালো হতে বাধ্য আপনার। 

মেহেদী হাসান হৃদয় জানান, আগে বিলে আসার কোন রাস্তা ছিল না, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে একটা রাস্তা করে দেয়া হয়েছে। কিন্ত মেইন সড়ক থেকে নামার পরে রাস্তা অনেক জায়গায় ভাঙ্গা, সেটি মেরামত করা দরকার। এছাড়াও এখানে পর্যটকদের জন্য একটা বিশ্রামাগার ও শৌচাগার নির্মাণ করা জরুরি। প্রতিদিন প্রচুর দর্শনার্থী ভীর করছে, যাদের বড় একটি অংশ নারী ও শিশু। তাদের জন্য একটা আধুনিক শৌচাগার প্রয়োজন। 

পদ্ম বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে দূর দূরান্ত থেকে নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর এমনকি বয়োবৃদ্ধরাও ছুটে আসছেন

এই বিষয়ে কানাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির মো. বেলায়েত হোসেন ইত্তেফাককে বলেন, পর্যটকদের সুবিধার কথা ভেবে একটি রাস্তা, টিউবয়েলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। থানার সঙ্গে আলোচনা করে চৌকিদার দিয়ে পর্যটকদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আরও কিছু কাজ করা প্রয়োজন, যা আমার ইউনিয়নের পক্ষে সম্ভব না, যদি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও পর্যটক কর্পোরেশন এগিয়ে আসে তাহলে এখানে পরিকল্পিত পর্যটন এলাকা হতে পারে, কেননা এই বিলে বছরের ৬ মাসই পানি থাকে, সুযোগ সুবিধা থাকলে এই ৬ মাসই পর্যটক আসতে পারে।

ইত্তেফাক/এআই