বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বাজারে ডিম আছে, তবে নেই ক্রেতা 

আপডেট : ২১ আগস্ট ২০২২, ১৬:২৮

সম্প্রতি দেশে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বেড়ে যায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। সব পণ্যের পাশাপাশি বেড়ে যায় নিম্ন ও মধ্যবিত্তের খাবার হিসেবে পরিচিত ডিমের দাম। চলতি সপ্তাহের শুরুতে যে ডিমের ডজন এলাকাভেদে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকায় উঠেছিল। শুক্রবার (১৯ আগস্ট) সেই ডিম ডজন প্রতি ১৪০-১৪৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে পর্যাপ্ত ডিম থাকলেও দাম বাড়ার ফলে ক্রেতা ও ভোক্তা পর্যায়ে চাহিদা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমনই চিত্র দেখা গেছে। 

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পাইকারি বাজার থেকে শুরু করে খুচরা বাজারে পর্যাপ্ত ডিম রয়েছে। খুচরা বাজারে প্রতি হালি লাল ডিম ৪৫-৫০ টাকা, ডজন ১৪৫-১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশি মুরগির ডিম ডজন প্রতি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৩০ টাকায়। অন্যদিকে হাঁসের ডিমের ডজন প্রতি ২১০ থেকে ২২০ টাকা।

ছবি: সংগৃহীত

মুদি দোকানিরা বলছেন, নিম্ন ও মধ্যে আয়ের মানুষরা সাধারণত আমাদের থেকে বেশি ডিম কিনতেন। এখন তারা ডিম কেনা একেবারে কমিয়ে দিয়েছেন। আগে যেখানে গড়ে প্রতিদিন ৪০০ থেকে ৫০০টি ডিম বিক্রি করতেন আর এখন ২০০টি ডিম বিক্রি হচ্ছে না। 

পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজার চাহিদার তুলনায় ডিমের পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে। যখন দাম বাড়ছিল তখন অনেকেই বেশি করে ডিম কিনে রেখেছেন। দাম বেশি দেখে অনেকেই ডিম খাওয়া কমিয়ে দিয়েছেন। তারা বলছেন, অনেক হোটেলই দাম বেশি দেখে ডিম বিক্রি বাদ দিয়েছেন। যার ফলে একেবারে ডিমের ক্রেতা নেই। এতে ব্যবসায়িকভাবে তারা লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছেন।

ছবি: সংগৃহীত

ডিমের দাম হালিতে পাঁচ টাকা কমলেও ক্রেতারা বলছেন তা পর্যাপ্ত নয়। ডিমের দাম এখনো আকাশচুম্বী। ডিমের হালি এখনো তাদের সাধ্যের বাহিরে। 

ডিমের চাহিদা কমে যাওয়া বিষয়ে মো. কাওসার নাম ক্রেতা বলেন, ‘ছোট-বড় পরিবারের সব সদস্যরা নিয়মিত ডিম খেলেও এখন খায় না। পরিবারের বড়রা ডিম খাওয়া বাদ দিয়ে শুধু ছোটদের ডিম খাওয়াচ্ছি।’

ডিমের বাড়তি দাম বিষয়ে দিনমজুর করিম শেখ জানান, বাজারে সব জিনিসপত্রের দাম বেশি। সারা দিনে যে সামান্য পরিমাণ টাকা আয় করি তা দিয়ে সংসার চলানো যাচ্ছে না। ঘরে বাজার না থাকলে ডিম দিয়ে কোনমতে চালিয়ে নিতে পারতাম। কিন্তু ডিমের দাম বাড়ার ফলে এখন তা আর পারছি না।’

ডিমের অস্বাভাবিক দাম নিয়ন্ত্রণে সরকার তৎপর উল্লেখ করে বুধবার বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, প্রয়োজনে ডিম আমদানি করা হবে। 

অন্যদিকে চলমান দামের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে বৃহস্পতিবার তেজগাঁওয়ে ডিমের আড়তে অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। অভিযানে ডিমের দামের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের কারসাজির প্রমাণ পাওয়ায় তাদের জরিমানা করা হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে ডিম বয়কটের ঘোষণা করেছেন। বিষয়টি নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

ইত্তেফাক/এনএ/এএএম