বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

এক ক্লিকেই মিলবে পোশাক ও বস্ত্র খাতের সবকিছু

আপডেট : ২০ আগস্ট ২০২২, ১৮:১১

এখন থেকে এক ক্লিকেই পোশাক ও বস্ত্র খাতের সব কিছুই মিলবে একমাত্র ডিজিটাল প্ল্যাটফরম ‘ফেব্রিক লাগবে’ মোবাইল অ্যাপে। অ্যাপটিতে কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই পোশাক ও টেক্সটাইল খাতের, সুতা, কাপড়, তুলা, ট্রিমস এবং আনুষঙ্গিক, সাইজিং মিল, ডাইং প্রসেসিং মিল, রাসায়নিক, মেশিন ও পার্টস, বেচাকেনা ও সরবরাহ প্রক্রিয়াকে সহজ করবে। উদ্যোক্তা এবং ক্রেতাদের জন্য সঠিক পণ্য খুঁজে পেতে এটি সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

অ্যাপটির মাধ্যমে পণ্য ক্রয়, বিক্রয় সহজ হবে। এই ডিজিটাল প্ল্যাটফরমটি টেক্সটাইল এবং তৈরি পোশাক খাতে দেশি বিদেশি ছোট শিল্প এবং বড় শিল্পগুলোর মধ্যে সেতুবন্ধ স্থাপনে কাজ করছে।

জানতে চাইলে ‘ফেব্রিক লাগবে’ লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ইঞ্জিনিয়ার মো. নাজমুল ইসলাম ইত্তেফাককে বলেন, ১০ বছর ধরে তিনি টেক্সটাইল ও রেডিমেড গার্মেন্ট সেক্টর নিয়ে কাজ করছেন। তাতে তিনি দেখেছেন, সুতা ক্রয়-বিক্রয় থেকে শুরু করে সাইজিং, মেশিনের সাহায্যে উইভি করে কাপড় বানিয়ে ডাইং ফিনিশিং শেষ করে পণ্য ডেলিভারি, পণ্যের উৎসের খোঁজ করা, যোগাযোগ, পণ্যের অর্ডার দেওয়া-নেওয়া, পণ্য উত্পাদন ও বিক্রি করতে গিয়ে বহু সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে। এসব সমস্যার সমাধান খুঁজতে গিয়ে এই অ্যাপের বিষয়টি মাথায় আসে তার। তিনি মনে করেন, এসব সমস্যার সমাধান দেবে এই অ্যাপ এবং এখন ব্যবহারকারীরা উপকৃত হচ্ছেন। ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে দর-কষাকাষির সুযোগ রাখা হয়েছে এই অ্যাপে। কোনো ক্রেতা পণ্য কিনতে কত টাকা দিতে চান সেটি বলার সুযোগ আছে এতে। এখানে বিক্রেতা তার পণ্য সরাসরি বায়ারের কাছে, কোনো হয়রানি ছাড়া, মধ্যসত্বভোগী ছাড়া, ঝুঁকি ছাড়া, নগদ মূল্যে বিক্রি করতে পারবেন। অপরদিকে ক্রেতা তার পছন্দ মতো পণ্য উৎপাদনকারীর কাছ থেকে মধ্যস্বত্বভোগী ছাড়া, সুলভ মূল্যে, সঠিক মাপে, সঠিক সময়ে, সঠিক পরিমাণে এবং সঠিক গুণগত মান নিশ্চিত করে সরাসরি কিনতে পারবেন। এ ধরনের অ্যাপে ক্রেতা-বিক্রেতা কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে তদারকির ব্যবস্থা আছে কি না জানতে চাইলে নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘এখানে পণ্যের লেনদেন সম্পূর্ণ হওয়ার পর রেটিংয়ের ব্যবস্থা আছে।

কোনো পক্ষ ক্ষতির সম্মুখীন হলে তিনি পণ্যের সেলার বা বায়রের ব্যাপারে রিভিউ বা মন্তব্য জানাবেন, যাতে পরবর্তীকালে অন্য ক্রেতারা সে সেলার বা বায়ারের পণ্য কিনতে সর্তক থাকবেন। এই প্ল্যাটফরমটি টেক্সটাইল ও তৈরি পোশাক ইন্ডাস্ট্রিজের দুই খাতের সমন্বয়ে বিটুবি (বিজনেস টু বিজনেস) ধরনের, এখানে বিক্রেতা তার পণ্য সরাসরি ক্রেতার কাছে বিক্রি করতে পারবেন। এ ছাড়া অ্যাপটিতে চাকরি বা ওয়ার্ক অর্ডার নামেও দুটি অপশন আছে। যেখানে জব অপশনে শিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত বা অশিক্ষিত যে কেউ নিজের বায়োডাটা ও আনুষঙ্গিক তথ্য দিয়ে নিবন্ধিত হতে পারবেন। এতে উদ্যোক্তরা সহজে তাদের প্রয়োজনীয় কর্মী বা শ্রমিক পছন্দ করে অল্প সময়ের মধ্যে ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে নিয়োগ দিতে পারবেন। অ্যাপের মাধ্যমে লেনদেনে উদ্যোক্তা বিক্রিত পণের দামের ওপর ০ দশমকি ৫০ শতাংশ থেকে ১ শতাংশ পর্যন্ত কমিশন দিতে হবে।

বস্ত্র ও পোশাক খাত সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, গত কয়েক বছরে সরবরাহকৃত পণ্যের মূল্য বাকি থাকায় এবং ভালো ক্রেতা না পাওয়ায়, মূলধন হারিয়ে কয়েক শ কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। এর কার্যকরী কোনো সমাধান পাচ্ছে না তারা। এই অ্যাপের মাধ্যমে তাদের সমস্যার অনেকটা সমাধান মিলবে।

দেশে টেক্সটাইল এবং রেডিমেড গার্মেন্টস খাতে ছোট শত শত কারখানা ক্রয়াদেশের অভাবে উত্পাদন ঠিকভাবে করতে পারছে না। এই অ্যাপের ‘ওয়ার্ক অর্ডার’ অপশনের মাধ্যমে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ছোট, মাঝারি পর্যায়ের বায়ারদের কাছ থেকে সরাসরি সুতা, কাপড়, সাইজিং, রেডিমেড গার্মেন্টস ও ডাইং প্রসেসের অর্ডার দিতে ও নিতে পারবে।

প্রতিষ্ঠানের এমডি ইঞ্জিনিয়ার মো. নাজমুল ইসলাম জানান, বর্তমানে দেশে এবং দেশের বাইরে তাদের ২০ হাজারেরও বেশি ইউজার রয়েছে। যা তাদের আত্মবিশ্বাসী করেছে। দেশি-বিদেশি বায়ার-সেলার এ প্ল্যাটফরম ব্যবহার করে তাদের বিজনেসকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি জানান, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএম) তাদের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে। পাশাপাশি লোকাল টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিজ, গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিজ যাতে সহজে এই অ্যাপ ব্যবহার করতে পারে সেজন্য অনুমতি দিয়েছে। এই প্ল্যাটফরমের সঙ্গে যাতে দেশীয় টেক্সটাইল মিলস মালিকরা দেশি-বিদেশি বায়ারের সঙ্গে কানেক্টেড হতে পারে, সেজন্য বিটিএমএ’র অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে অ্যাপের লিংক দেওয়া হয়েছে। অ্যাপটির ওয়েবসাইট ঠিকানা হচ্ছে-www.fabriclagbe.com

ইত্তেফাক/এএএম