শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

শৈলকুপায় গ্রাহকের টাকা নিয়ে লাপাত্তা কথিত এনজিও

আপডেট : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৩২

ঝিনাইদহের শৈলকুপা থেকে মানব শক্তি ফাউন্ডেশন নামের একটি কথিত এনজিও দুই সপ্তাহের ব্যবধানে গ্রাহকের আনুমানিক অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শৈলকুপার ১৩ নম্বর উমেদপুর ইউনিয়নের গাড়াখোলা গ্রামে। এর আগে শৈলকুপার পৌর এলাকার কবিরপুরে সিরাক বাংলাদেশ নাম করে অফিস খুলে বসে প্রতারক চক্র। একই কায়দায় গত বছরের আগস্ট মাসে সঞ্চয়ের নামে গ্রাহকদের কোটিখানেক টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হয়ে যায়। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গাড়াখোলা এলাকায় একটি বাড়িতে মানব শক্তি ফাউন্ডেশন নামে কথিত এনজিও অফিসের সাইনবোর্ড ঝুলছে। তাতে একটি রেজিস্ট্রেশন নম্বরও লেখা আছে। ভবনের প্রধান ফটক তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। কিন্তু নেই অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারী। প্রতারক চক্ররা দুই সপ্তাহ আগে এই বাড়ির কয়েকটি কক্ষ ভাড়া নেয় বলে জানান এলাকাবাসী। এ ভবনের মালিক শাহিনুর বেগম ঐ গ্রামের বাসিন্দা।

ঐ এনজিও থেকে সহজ শর্তে ঋণ নিতে গিয়ে প্রতারিত হওয়া শৈলকুপা পৌর এলাকার উত্তরপাড়া গ্রামের গিয়াসউদ্দিন জানান, মানব শক্তি ফাউন্ডেশনের ম্যানেজার সায়েম আহমেদ ও ফিল্ড অফিসার রাজু আহমেদ গত মাসের ১৬ তারিখে তাদের এলাকায় আসেন। তারা সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার কথা বলেন। ঋণ নিতে লাখপ্রতি ১০ হাজার টাকা জামানত ছাড়া আর কোনো শর্ত লাগবে না। যে বাড়িতে অফিস সে বাড়ির মালিক শাহীনুর তাদের আশ্বস্ত করেন তার বোনজামাই এ প্রতিষ্ঠানের বড় কর্মকর্তা। এ বিশ্বাসে তিনিসহ ১৫ জন ১০ হাজার টাকা করে সঞ্চয় জমা দেন। সোমবার তাদের ঋণ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ঋণ আনতে গিয়ে দেখি এনজিওসহ বাড়ির মালিক পলাতক। ফুলহরী, ভাটই, কবিরপুর, ২ নম্বর মির্জাপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামসহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ঋণ দেওয়ার নামে তারা গ্রাহকের কাছ থেকে আনুমানিক অর্ধকোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে বলে জানান।

ফুলহরী গ্রামের আজাদ হোসেন বলেন, তার চাচাতো ভাই মিল্টনসহ ৩০/৩৫ জন গাড়াখোলা গ্রামে মানব শক্তি ফাউন্ডেশন নামের একটি এনজিও প্রতিষ্ঠানে ঋণ নেওয়ার জন্য প্রত্যেকে ২০ হাজার টাকা করে সঞ্চয় জমা করেন। সোমবার ৫৫  জনকে ১ থেকে ২ লাখ টাকা করে ঋণ দেওয়ার কথা ছিল। সোমবার সেখানে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির মালিকসহ এনজিওটি উধাও হয়ে  গেছে। গাড়াখোলা গ্রামের আব্দুল জলিল জানান, গত কয়েক দিন আগে তার প্রতিবেশী শাহীনুরের বাসায় মানব শক্তি নামের একটি এনজিওর সাইনবোর্ড দেখা যায়। সোমবারে প্রায় ১০০ ব্যক্তি এই এনজিও থেকে ঋণ নিতে এসে দেখে তারা পালিয়ে গেছে। তবে বাড়ির মালিক কোথায় আছে তা তিনি বলতে পারেন না।

শৈলকুপা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি শামীম হোসেন মোল্যা জানান, গাড়াগঞ্জ এলাকা থেকে মানব শক্তি ফাউন্ডেশন নামের একটি এনজিও ঋণ দেওয়ার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ১০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা করে নিয়ে উধাও হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা তাকে জানালে তিনি ঘটনাস্থলে যান। বাড়ির মালিককে ফোন দিলে বলেন, ঢাকায় আছি। গ্রামে ফিরে কথা বলব। শৈলকুপা থানার  ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, সাধারণ মানুষের সঞ্চয় নিয়ে এনজিও লাপাত্তার অভিযোগ নিয়ে কেউ আসেননি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান। ঝিনাইদহ জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আব্দুল লতিফ জানান. মানব শক্তি ফাউন্ডেশন নামে কোনো এনজিওর এ জেলায় কাজ করার অনুমোদন নেই।

 

ইত্তেফাক/ইআ