রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বৃষ্টির পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে খুলনার রাস্তাঘাট-ঘরবাড়ি

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:০৪

রাতের প্রবল বৃষ্টিতে ডুবে গেছে খুলনা মহানগরীর রাস্তাঘাটসহ অধিকাংশ বাড়ির নিচতলা। ঘরের ভেতরে প্রবেশ করেছে নোংরা পানি। ফলে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাত থেকে বৃহস্পতিবার ভোর পর্যন্ত লাগাতার বৃষ্টিতে এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

নগরবাসী বলছেন, বৃষ্টির পানি নদীতে নামার খালগুলো দখল করে ভরাট করাসহ ধীর গতিতে ড্রেন নির্মাণে এ জলাবদ্ধতার অন্যতম কারণ। অবিলম্বে এসব ভূমিদস্যুদর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তাদের।

এদিকে, আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় (বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা) খুলনায় রেকর্ড ১৪৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এর মধ্যে রাত ১টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে ১৩০ মিলিমিটার।

রাস্তায় হাটু পানি

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খুলনা মহানগরীর নিরালা, মুজগুন্নী, বয়রা ও প্রান্তিকাসহ অধিকাংশ আবাসিকের বাসা-বাড়িতে বৃষ্টির পানি প্রবেশ করেছে। নীচতলা নিমজ্জিত। সব রাস্তায় পানি জমে আছে। পানি ঢুকেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও। দীর্ঘ দিন ধরে ড্রেন নির্মাণকাজ চলছে অনেক স্থানে। কাজ করার জন্য মাটি ও বালুর বস্তা দিয়ে বেশির ভাগ ড্রেন আটকিয়ে দেওয়ার কারণে অবস্থা আরও বিপজ্জনক হয়েছে।

এছাড়া নগরীর পানি নদীতে নেমে যাওয়ার অধিকাংশ খাল দখল করে বালি ভরাট করাও নগরী তলিয়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ বলে জানা গেছে। অজ্ঞাত কারণে এসব চিহ্নিত ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ায় তাদের দখল প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছে। ফলে লাখ লাখ নগরবাসী দুর্ভোগের মুখে।

কোনটি রাস্তা আর কোনটি জলাশয় চেনার উপায় নেই। অধিকাংশ রাস্তা পানির নিচে। ফলে চলতে পারছে না রিকশা-ইজিবাইকও। চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এসএসসি ও সমমানের পরিক্ষার্থীরা। যথাসময়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে যেতে তাদের যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছে।

টানা বৃষ্টির পানিতে অফিস সয়লাব

নগরীর বাস্তুহারার বাসিন্দা রিকশাচালক মো. শাহাবুদ্দীন বলেন, ‘বৃষ্টির পানিতে তাদের বাসা তলিয়ে গেছে। এতে তাদের বাসার জিনিসপত্র ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে।’

খুলনা সিটি করপোরেশনের সুপারেনটেনডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুল আজিজ বলেন, ‘বৃষ্টির পানিতে খুলনা মহানগরীর অধিকাংশ রাস্তা পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। দ্রুত পানি নিষ্কাশনের সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে।’

ইত্তেফাক/এইচএম