বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

আঙুরে স্বপ্ন দেখছেন আব্দুর রশিদ 

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:১৫

আঙুর চাষের সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে ঝিনাইদহের মহেশপুরে। এই উপজেলার মাটিতে উৎপাদিত আঙুর অস্ট্রেলিয়াসহ অন্য যেকোনো দেশ থেকে আমদানিকৃত আঙুরের চেয়ে মিষ্টি ও সুস্বাদু। ফল ও সবজি চাষের পাশাপাশি শখের বসে আঙুর চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন আব্দুর রশিদ। তিনি ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার যোগিহুদা গ্রামের বাসিন্দা। 

আব্দুর রশিদ শখে আঙুর ফলের চাষ করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে বাগানের সব গাছে রয়েছে আঙুর। তার দেখাদেশি এখন অনেকেই আগ্রহী হচ্ছেন এ ফল চাষে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, কৃষক আব্দুর রশিদ দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ধরনের ফল ও সবজির চাষ করে আসছেন। পরে শখের বসে বিদেশি কয়েকটি জাতের আঙুরের চারা সংগ্রহ করে তা রোপণ করেন। 

কৃষক আব্দুর রশিদ বলেন, প্রথম দিকে ভারত ও ইতালি থেকে কয়েকটি জাতের আঙুরের চারা সংগ্রহ করে নিজের ১০ কাঠা জমিতে চাষ শুরু করি। সাত মাস পরিচর্যার পর তার বেশিরভাগ গাছেই আঙুর ধরেছে। প্রতিটি গাছে ৫ থেকে ৭ কেজি করে আঙুর ধরেছে। এ ফল চাষের জন্য আমি সিমেন্টের খুঁটি ব্যহার করেছি। বাগানের ৬০টি গাছ থেকে আড়াইশ থেকে ৩০০ কেজির মতো আঙুর সংগ্রহ করতে পারবো। 

কৃষক আরও বলেন, ভারত থেকে চারাগুলো সংগ্রহ করলেও আমাদের দেশের আবহাওয়া, মাটি ও আদ্রতা ইত্যাদির বিবেচনায় গাছগুলো অনেক হৃষ্টপুষ্ট ও ভালো হচ্ছে। 

স্থানীয়রা বলেন, আব্দুর রশিদের আঙ্গুর ফলের বাগান দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে প্রতিদিন মানুষ আসছেন এবং ছবি তুলে নিয়ে যাচ্ছেন। 

উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী বলেন, মহেশপুরের মাটি আঙুরের জন্য উপযোগী। এখানে এই ফলটা হবে বলে আমরা আশা করছি। একজন চাষি সফল হয়েছেন। শুরু থেকেই তিনি আমাদের পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করেছেন এবং চলতি বছর তার বাগান আরও বিস্তৃত হয়েছে।

ইত্তেফাক/এইচএম