রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পরমাণু অস্ত্র নিয়ে কিমের নতুন আইন

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:৪৯

পারমানবিক অস্ত্র নিয়ে সম্প্রতি একটি আইন পাস করেছে উত্তর কোরিয়া। এই নতুন আইনের বিধান অনুযায়ী পারমাণবিক অস্ত্রের বিষয়ে কিমের 'সব নির্ধারক শক্তি' আছে। যদি কমান্ড-অ্যান্ড-কন্ট্রোল সিস্টেমকে হুমকির মুখে ফেলা হয়, তাহলে পারমাণবিক অস্ত্র 'স্বয়ংক্রিয়ভাবে' চালু করা যেতে পারে। দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ এর বরাত দিয়ে এমন তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ জানিয়েছে, ওই আইনটি নিজেদের রক্ষায় 'স্বয়ংক্রিয়ভাবে' পারমাণবিক হামলার অধিকার দেবে। 

কিম জং উন বলেছেন—এই নতুন আইন দেশটির পারমাণবিক অবস্থাকে 'অপরিবর্তনীয়' রাখবে। পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের যে কোনো আলোচনাকে নিষিদ্ধ করবে।

উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন

উত্তর কোরিয়ার পার্লামেন্ট সুপ্রিম পিপলস অ্যাসেম্বলি গত ৮ সেপ্টেম্বর আইনটি পাস করে। কেসিএনএর জানায়, ২০১৩ সালের আইনকে প্রতিস্থাপন করে এই আইন করা হয়েছে। আগের আইনটি উত্তর কোরিয়ার প্রথম পারমাণবিক অবস্থার রূপরেখা দিয়েছিল।

কেসিএনএ কিমকে উদ্ধৃত করে বলেছে, 'পারমাণবিক অস্ত্রনীতি প্রণয়নের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তাৎপর্য হলো একটি অপ্রতিরোধ্য সীমারেখা টানা। যেন আমাদের পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ে বিতর্ক না হয়।'

রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুসারে, কিম বলেছেন—উত্তর কোরিয়া ১০০ বছরের নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হলেও তিনি কখনোই পারমাণবিক অস্ত্র সমর্পণ করবেন না।

এদিকে উত্তর কোরিয়া গত কয়েক মাস ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও এর মিত্রদের ক্রমাগত সমালোচনা করে যাচ্ছে। এ ছাড়া, গত এক বছরে পিয়ংইয়ং ৩০টিরও বেশি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। এর মধ্যে ব্যালিস্টিক, ক্রুজ ও হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র আছে।

শুধু তাই না রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে—তারা কোরীয় উপদ্বীপে সামরিক কার্যক্রম 'নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ' করছে। আবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কোরীয় উপদ্বীপে তাদের অবস্থান 'পরিবর্তন হয়নি'।

ইত্তেফাক/এএইচপি