রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

উপকরণের দাম বাড়ায় লাভ নিয়ে শঙ্কায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রতিমা শিল্পীরা  

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:১৫

কেউ করছেন মাটির কাজ, কেউ আবার বন-খর ও দড়ি দিয়ে কাঠামো তৈরি করছেন। এভাবেই তিন ধাপে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় শতাধিক প্রতিমা শিল্পী এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। রং তুলির আঁচড়ে সাজিয়ে তুলছেন প্রতিমা। বৈরী আবহাওয়ার কারণে কাজে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটলেও কারিগররা জানিয়েছেন নির্দিষ্ট সময়ে আগেই তারা প্রতিমা হস্তান্তর  করতে পারবেন।  

এ বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৯টি উপজেলায় প্রায় ৬শ পূজা মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে নাসিরনগর উপজেলায় মণ্ডপের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

কারিগর রবীন্দ্র পাল বলেন, করোনার কারণে গত দু’বছর তেমন অর্ডার মেলেনি। তবে এবার প্রতিমা তৈরির কাজ বাড়লেও উপকরণের দাম বেড়ে গেছে। শ্রমিকের মজুরি বেড়ে যাওয়ায় কাঙ্ক্ষিত লাভ হবে কি না তা নিয়ে আমরা শঙ্কিত।  

প্রতিমা কারিগর দ্বিজেন্দ্র পাল বলেন, খর-বাঁশসহ সবকিছুর দাম বেড়েছে কয়েকগুণ। যে বাঁশ আগে ২ থেকে আড়াইশ টাকায় বিক্রি হতো তা সাড়ে ৩শ থেকে ৪শ টাকায় এবং প্রতিমণ খর ৩শ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ৮শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ফলে প্রতিমা তৈরিতে খরচ অনেকটাই বেড়ে গেছে।

প্রবীণ কারিগর সুরঙ্গ পাল বলেন, ৫০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরি করছি। বৈরী আবহাওয়ার কারণে প্রতিমা তৈরির কাজ কিছুটা ব্যাহত হলেও ষষ্ঠী পূজার আগেই প্রতিমা হস্তান্তর করা হবে।  

জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সহ-সভাপতির প্রণব কুমার দাস বলেন, সারাবিশ্বের অর্থনৈতিক সংকটের বিষয়টি মাথায় রেখেই সরকারি নির্দেশনা মেনে মণ্ডপগুলোতে এবার পূজা অনুষ্ঠিত হবে।  

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন বলেন, মণ্ডপগুলোর নিরাপত্তায় প্রতিটি মণ্ডপে স্বেচ্ছাসেবীদের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তৎপর থাকবেন।

 

ইত্তেফাক/এআই