শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

রাশিয়ার ভেটো শক্তি কেড়ে নেবার ডাক 

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৩১

ইউক্রেনের ওপর চলমান হামলার কারণে আন্তর্জাতিক মঞ্চে আরও কোণঠাসা হচ্ছে রাশিয়া। জাতিসংঘে রাশিয়ার শাস্তি ও দেশটি থেকে ক্ষতিপূরণ আদায়ের ডাক দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।  

স্বীকৃত পরমাণু শক্তিধর দেশের একটি হিসেবে রাশিয়া জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য হলেও সাধারণ পরিষদের চলমান অধিবেশনে দেশটি বেশ কোণঠাসা হয়ে পড়ছে। এমনকি এতকাল যে সব দেশ নীরব অথবা ভোটদানে বিরত থেকে ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার হামলার সরাসরি সমালোচনা এড়িয়ে গেছে, সেসব দেশও মস্কোর প্রতি কিছুটা শীতল আচরণ করতে শুরু করছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির রেকর্ড করা ভাষণের পর রাশিয়ার প্রতি এমন বৈরি মনোভাব আরও বাড়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। 

শুধু রাশিয়ার হামলার নিন্দা নয়, এমন পদক্ষেপের জন্য রাশিয়াকে চরম শাস্তি দেবার আহ্বান জানিয়েছেন জেলেনস্কি। এমন আগ্রাসন চালালে তার মূল্য কী হতে পারে, সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ আগ্রাসীদের জন্য সেই বার্তা দেওয়া জরুরি বলে তিনি মনে করেন।

জেলেনস্কি জমি বেদখল, হাজার হাজার নিরীহ মানুষের হত্যা, পুরুষ ও নারীর ওপর নিপীড়ন ও তাদের অপমানের মতো অপরাধের দায়ে আন্তর্জাতিক আঙিনায় রাশিয়ার চরম শাস্তির দাবি করেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট।

তিনি রাশিয়ার অপরাধ নথিভুক্ত করার জন্য বিশেষ আন্তর্জাতিক ট্রাইবুনাল গঠন ও দেশটির বিষয়সম্পত্তি কাজে লাগিয়ে এক ক্ষতিপূরণ তহবিল গঠনেরও ডাক দেন। জেলেনস্কি নিরাপত্তা পরিষদে রাশিয়ার ভেটো শক্তি কেড়ে নেবারও দাবি জানিয়েছেন। 

ভেটো শক্তি থাকা সত্ত্বেও জাতিসংঘে সুবিধা করে উঠতে পারছে না রাশিয়া। আন্তর্জাতিক আঙিনায় সে দেশের ওপর চাপ আরও বাড়ছে। ফ্রান্সের উদ্যোগে নিরাপত্তা পরিষদ এক বিশেষ অধিবেশনে পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকের আয়োজন করছে। সেখানে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ ও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেনও উপস্থিত থাকবেন।
 
উল্লেখ্য, ফেব্রুয়ারি মাসে ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার হামলা শুরু হবার পর থেকে ব্লিংকেন আলাদা করে লাভরভের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে অস্বীকার করে এসেছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরাও বুধবার নিউ ইয়র্কে মিলিত হয়ে রাশিয়ার উপর নতুন নিষেধাজ্ঞা চাপানোর বিষয়ে আলোচনা করেছেন। 

এতকাল উন্নয়নশীল বিশ্বের যে সব দেশ সরাসরি রাশিয়ার আচরণের নিন্দা করতে দ্বিধা বোধ করেছে, সেসব দেশের প্রতিও সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে মার্কিন প্রশাসন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আরও ২৯০ কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা করেন। 

ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার হামলা ও মস্কোর উপর নিষেধাজ্ঞার জের ধরে খাদ্যপণ্য সরবরাহে যে বিঘ্ন ঘটছে, সেই ধাক্কা সামলাতে এই পদক্ষেপ কিছুটা সহায়ক হবে বলে তিনি মনে করছেন। 

জেলেনস্কির মতো বাইডেনও নিরাপত্তা পরিষদে আফ্রিকা ও ল্যাটিন অ্যামেরিকা থেকে স্থায়ী সদস্যপদের পক্ষে সওয়াল করেন। বাইডেন বর্তমান পরিস্থিতিতে চীনের সঙ্গে সংঘাত এড়িয়ে আরও সহযোগিতার পথে যাবার অঙ্গীকার করেন। চীন সম্প্রতি রাশিয়ার বিরুদ্ধে কিছুটা কড়া অবস্থান নেওয়ায় ওয়াশিংটন উৎসাহিত হচ্ছে। এমনকি উত্তর কোরিয়াও রাশিয়াকে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ অস্বীকার করেছে এবং ভবিষ্যতেও করবে না বলে জানিয়েছে। 

ইত্তেফাক/এসআর