শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

‘ইত্যাদি’ এবার ঝালকাঠিতে

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৪৬

দেশকে জানতে এবং জানাতে প্রতিনিয়ত ইত্যাদি যাচ্ছে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। কখনও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের খোঁজে, কখনও ইতিহাস-ঐতিহ্য, কখনও বা শেকড়ের সন্ধানে।—এসব গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে গিয়ে ইত্যাদি ধারণের ধারাবাহিকতায় এবারের পর্ব ধারণ করা হয়েছে ঝালকাঠিতে। মঞ্চ নির্মাণ করা হয় ঝালকাঠির ধানসিড়ি, সুগন্ধা, বিষখালী, বাসন্ডা, গাবখান।—এই ৫ নদীর মোহনায়। গত ১৮ সেপ্টেম্বর ‘ইত্যাদি’র ধারণ উপলক্ষে ঝালকাঠিতে ছিল উত্সবের আমেজ। দর্শকদের বাঁধভাঙা জোয়ারে পুরো মাঠই ছিলো দর্শকপূর্ণ। ইত্যাদির ধারণ উপলক্ষে সেদিন বর্ণিল আলো এবং ঝালকাঠির বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী পণ্য ও ঐতিহাসিক স্থাপনার প্রতিকৃতি দিয়ে সাজানো দৃষ্টিনন্দন মঞ্চে ইত্যাদির ধারণ অনুষ্ঠান চলে বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত। 

জন্ম এবং মৃত্যু এক সূত্রে গাঁথা এক অভিন্ন চেতনার নাম। এবারের অনুষ্ঠানে এই বিষয়ের ওপর একটি দ্বৈত সংগীত গেয়েছেন এ সময়ের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী রবি চৌধুরী ও শফি মণ্ডল। গানটির কথা লিখেছেন কবির বকুল, সুর করেছেন হানিফ সংকেত এবং সংগীতায়োজন করেছেন মেহেদি। রয়েছে ঝালকাঠির নদী ও গৌরবগাঁথা নিয়ে একটি পরিচিতিমূলক গানের সঙ্গে স্থানীয় প্রায় শতাধিক নৃত্যশিল্পীর নাচ। গানটির কথা লিখেছেন গীতিকবি মনিরুজ্জামান পলাশ, সুর করেছেন হানিফ সংকেত, সংগীতায়োজন করেছেন মেহেদি, নৃত্য পরিচালনা করেছেন দেবাশীষ সেন গুপ্ত। 

এবারের পর্বেও রয়েছে কয়েকটি হৃদয় ছোঁয়া প্রতিবেদন। রয়েছে ঝালকাঠির ইতিহাস, ঐতিহ্য, কৃষ্টি-সংস্কৃতি, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত দর্শনীয় স্থান, নদী-খাল-চ্যানেল, বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী পণ্য এবং কীর্তিমান ব্যক্তিদের ওপর কয়েকটি তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন। আঘাতজনিত কিংবা বিকলাঙ্গ রোগীদের ব্যতিক্রমধর্মী ইলিজারভ চিকিৎসা পদ্ধতির ওপর রয়েছে একটি তথ্যসমৃদ্ধ প্রতিবেদন। অজানা-অচেনা-দূর-দূরান্তের পথিকদের জন্য নীলফামারীর একজন মহান ব্যক্তির নির্মিত একটি মুসাফিরখানার ওপর রয়েছে একটি দৃষ্টান্তমূলক প্রতিবেদন। রয়েছে নোয়াখালী জেলার সুবর্ণচরের এক সময়ের রিকশাচালক জনাব সৈয়দ আহমেদের ওপর একটি অনুকরণীয় প্রতিবেদন। 

এছাড়াও এবারের পর্বে রয়েছে আমেরিকার মিনেসোটা রাজ্যের ওপর একটি তথ্যসমৃদ্ধ প্রতিবেদন। এছাড়াও এবারের পর্বে রয়েছে দর্শকপর্বসহ বিভিন্ন সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে বেশকিছু নাট্যাংশ। সংস্কৃতির সুস্থ ধারাকে অসুস্থ করার প্রতিযোগিতা, ভার্চুয়াল প্রভাবে অ্যাকচিউয়্যাল অবস্থা, চিত্ত প্রশান্তির প্রত্যাশা, শাড়ি নিয়ে সাংসারিক দ্বন্দ্ব, হৃদয় ছোঁয়া শিল্পী বনাম তালি ভিক্ষা চাওয়া শিল্পী, জন্মদিনে শোক পালন, প্রচারলোভী ডিজিটাল নেতা, উপেক্ষিত জনতার পক্ষে ক্ষোভসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর রয়েছে বেশ কয়েকটি নাট্যাংশ। 

বরাবরের মতো এবারও ইত্যাদির শিল্প নির্দেশনা ও মঞ্চ পরিকল্পনায় রয়েছেন ইত্যাদির নিয়মিত শিল্প নির্দেশক মুকিমুল আনোয়ার মুকিম। পরিচালকের সহকারী হিসেবে রয়েছেন যথারীতি রানা সরকার ও মোহাম্মদ মামুন। ইত্যাদির এই পর্বটি একযোগে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে প্রচারিত হবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর। ইত্যাদি রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত।

ইত্তেফাক/ইআ

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন