বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

রামনাথের বসতভিটা দখলমুক্ত করতে দিনব্যাপী কর্মসূচি পালিত

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২২:১৭

বাইসাইকেলে পৃথিবী ভ্রমণ করা দুঃসাহসিক বাঙালি ভূ-পর্যটক ও বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে বেশি ভ্রমণকাহিনীর লেখক রামনাথ বিশ্বাসের হবিগঞ্জের বসতভিটা দখলমুক্ত করে পাঠাগার ও বাইসাইকেল মিউজিয়াম গড়ে তোলার দাবিতে হবিগঞ্জে সাইকেল শোভাযাত্রা, অনশন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭সেপ্টেম্বর) সকাল সোয়া ১১টায় ভূ-পর্যটক রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণ কমিটির আয়োজনে হবিগঞ্জ টাউন হল থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়। সূচনা পর্বে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মিন্টু চৌধুরীসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা র‍্যালির সূচনা পর্বে একাত্মতা প্রকাশ করে বক্তব্য দেন।

হবিগঞ্জের বানিয়াচং এর বিদ্যাভূষণ পাড়ায় খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটার যে স্থানে হামলার শিকার হয়েছিলেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের স্পেশাল এসাইনমেন্ট এডিটর রাজিব নূর। এবার সেই স্থানেই শতাধিক সাইক্লিস্ট, সংস্কৃতিকর্মী, সাংবাদিক ও শিক্ষকসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ হাজির হয়ে রামনাথের বসতভিটা উদ্ধারের দাবি জানান। 

র‍্যালিতে অংশগ্রহণকারীরা। ছবি: ইত্তেফাক

দখলদার ওয়াহেদ মিয়া ও তার পরিবারের সদস্যদের সামনে দাঁড়িয়েই দাবি জানানো হয় রামনাথের নামে পাঠাগার ও সাইকেল মিউজিয়াম প্রতিষ্ঠা করার। এছাড়া বানিয়াচং শহীদ মিনারে হয় প্রতীকী অনশন এবং প্রতিবাদী সমাবেশ।

জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান বলেন, ‘রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটার দলিলপত্র প্রশাসনের দিক থেকে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আমরা বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি। এই সাইকেল র‍্যালির ব্যাপারেও জেলা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ সহযোগিতা করছে।’

র‍্যালিতে শুভেচ্ছা জানান হবিগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অনিরুদ্ধ কুমার ধর শান্তুনু, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের ইয়াছিন খানসহ অনেকে। 

র‍্যালিতে অংশ নেন হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, নবীগঞ্জ, ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, দিনাজপুরসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা সাইক্লিস্টরা। নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা সাইক্লিস্ট ঈশিতা বলেন, ‘রামনাথ বিশ্বাস শতবর্ষ আগে বাইসাইকেলে বিশ্বঘুরে যে ইতিহাস গড়েছেন, আমরা রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা দখলমুক্ত করার এই আন্দোলনের মাধ্যমে রামানাথকে নতুনরূপে আবিষ্কার করছি।’

সাইকেল র‍্যালি। ছবি: ইত্তেফাক

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে এসে শোভাযাত্রায় অংশ নেওয়া ফাহিম মুনতাসীর বলেন, ‘আমরা মনে করি রামনাথ বাঙালির গর্ব। তার বসতভিটা দখল হয়ে থাকার ঘটনা লজ্জার। তার বসতভিটা দখলমুক্ত করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাই।’

নবীগঞ্জ থেকে আসা লালসবুজ সাইক্লিস্ট ক্লাবের সভাপতি মাজহারুল ইসলাম তারেক বলেন, ‘সাংবাদিক রাজিব নূর রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা নিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন। এটি দুঃখজনক। আমরা দাবি জানাই রামনাথের বসতভিটা দখলমুক্ত করতে হবে।’

রামনাথের বসতভিটায় দাঁড়িয়ে পাঠাগার ও মিউজিয়াম করার দাবি

দুপুরে সাইক্লিস্টদের শোভাযাত্রাটি বানিয়াচংয়ে রামনাথের বসতভিটায় যায়। সাইক্লিস্টরা বসতভিটায় দাঁড়িয়ে ছবি তুলে এবং দাবি জানায়, বসতভিটা পুনরুদ্ধারের।

এ সময় রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণ কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক নাট্যকার রুমা মোদক সাংবাদিকদের বলেন, ‘রামনাথ বিশ্বাস আমাদের হবিগঞ্জের গর্ব। পৃথিবীর সেরা ১০ জন ভূ-পর্যটকদের একজন তিনি। তার বসতভিটা সংরক্ষণ করা সরকারের দায়িত্ব। এই বসতভিটা উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।’

বানিয়াচং শহীদ মিনারে প্রতীকী অনশন

সকাল ১১টায় রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধারের দাবিতে বানিয়াচং শহীদ মিনারে প্রতীকী অনশনে বসেন স্থানীয় সাংবাদিক দেবব্রত চক্রবর্তী বিষ্ণুর নেতৃত্বে অনেকে। সাইক্লিস্টরা রামনাথের বসতভিটা থেকে শোভাযাত্রা নিয়ে বানিয়াচং শহীদ মিনারে গিয়ে অনুশন মঞ্চে যোগ দেন। সেখানে সাংবাদিক রাজিব নূর অনশনকারীদের পানি পান করিয়ে অনশন ভঙ্গ করান। 

শহীদ মিনারে র‍্যালিতে অংশকারীরা। ছবি: ইত্তেফাক

পরে অনশন মঞ্চে বক্তব্য দেন বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী পদ্মাসন সিংহ। আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘রাজিব নূর এখানে হামলার শিকার হওয়ার পর স্থানীয় প্রশাসন থেকে বিষয়টি নিয়ে আমরা অনুসন্ধান করে বেশ কিছু তথ্য বের করেছি। জায়গাটি পুনরুদ্ধারের যে দাবি উঠেছে, আমরা সে ব্যাপারে সর্বোচ্চ আইনি সহায়তা প্রদানে তৎপর রয়েছি। এই আন্দোলনের ফলে বিষয়টি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও আলোচিত হয়েছে। যারা রাজিব নূরের ওপর হামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তারাও এখন কোনঠাসা হয়ে পড়েছে।’

এই আন্দোলন প্রশাসনের কাজকে সহযোগিতা করছে উল্লেখ করে পদ্মাসন সিংহ বলেন, ‘ভূমিদস্যু যারা আছেন, তারা এই আন্দোলনের ফলে সতর্ক হয়ে যাবে।’

কবি শাহেদ কায়েস বলেন, ‘আমরা এই সাইকেল র‍্য্যালি মাধ্যমে দাবি জানাচ্ছি, বিশ্বের বরেণ্য ভূ-পর্যটক রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা সংরক্ষণ করে সেখানে যেন পাঠাগার এবং বাইসাইকেল মিউজিয়াম করা হয়।’

আরও বক্তব্য দেন দিনাজপুর থেকে শোভাযাত্রায় অংশ নেওয়া মোস্তাফিজুর রহমান রূপম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে আসা আইনজীবী সৈয়দ মোহাম্মদ জামালসহ অনেকে। 

গত ১১ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটায় খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে স্থানীয় দখলদার ওয়াহেদ মিয়া ও তার পরিবারের হামলায় আহত হন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের স্পেশাল এসাইনমেন্ট এডিটর রাজিব নূরসহ চার সাংবাদিক। এই ঘটনার পর প্রতিবাদের ঝড় উঠে সারা দেশে। প্রতিবাদী মানববন্ধন এবং সমাবেশে দাবি উঠে দখলদারের হাত থেকে রামনাথের বসতভিটা পুনরুদ্ধার করে সেখানে পাঠাগার এবং সাইকেল মিউজিয়াম করে রামনাথের স্মৃতি রক্ষার।

সাইকেল র‍্যালি। ছবি: ইত্তেফাক

আন্দোলনকে সচল রাখার লক্ষ্যে লেখক, সাংবাদিক ও সংস্কৃতিকর্মীরা মিলে গঠন করে ‘ভূ-পর্যটক রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণ কমিটি’। এই কমিটি রোববার হবিগঞ্জ প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে কর্মসূচি ঘোষণা করে। সোমবার বিকেল ৪ টায় বানিয়াচংয়ে ১ নম্বর ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে সাংবাদিক ও সুধীজনের সঙ্গে অনুষ্ঠিত হয় মতবিনিময় সভা। 

ভূ-পর্যটক রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা পুনরুদ্ধার ও সংরক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক লেখক ও ভূ-পর্যটক আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল বলেন, ‘রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা দখলমুক্ত করার এই আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। বিভিন্ন জেলায় সাইক্লিস্টরা নিজেরা বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবেন। আমরা রামনাথের নামে তারই বসতভিটায় পাঠাগার, সাইকেল মিউজিয়াম করার দাবি জানাই। এই দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলমান থাকবে।’

প্রসঙ্গত, আন্দোলনের সাথে সংহতি জানিয়ে দেশের খ্যাতিমান ১০০ জন নাগরিক গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছেন। তারা রামনাথের বাড়ি পুনরুদ্ধারের দাবি জানান।

ইত্তেফাক/এএএম