বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

জিডিপিতে ২ শতাংশ অবদান রাখবে পায়রা বন্দর: নৌ প্রতিমন্ত্রী

আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২২, ১৭:৫৪

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, পায়রা বন্দর দেশের অর্থনীতির জন্য নতুন বার্তা নিয়ে আসবে। এই বন্দর মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) ২ শতাংশ অবদান রাখবে। তিনি বলেন, পায়রা বন্দর দেশের গভীরতম তৃতীয় সমুদ্র বন্দর। এটা নিয়ে সরকারের বড় বড় স্বপ্ন আছে। বন্দর কেন্দ্রীক অনেক উন্নয়ন প্রকল্প নেওয়া হয়েছে।  

বুধবার (২৬ অক্টোবর) বিকেলে পটুয়াখালী পায়রা বন্দর পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।  

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ সরকার দেশের সব স্থানে সমন্বিত উন্নয়ন করছে। সব উন্নয়ন প্রকল্প দেশ ও জাতির কল্যাণ বয়ে আনছে। অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে ছোট-বড় সব প্রকল্প।  

এদিকে, স্থানীয় ভাবে পায়রা বন্দর আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। শিল্প কল-কারখানার পাশাপাশি ছোট-ছোট ক্ষুদ্র ব্যবসা ও উদ্যোক্তা গড়ে উঠছে বলে জানান পটুয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান।  

তিনি বলেন, পায়রা বন্দর কুয়াকাটা পর্যটন শিল্পকে আরও তরান্বিত করাসহ পর্যটকদের বাড়তি বিনোদনের ব্যবস্থা করবে। চলমান সব প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে আরও দৃষ্টি নন্দন হবে বন্দরটি।

বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) সকালে গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে পায়রা বন্দরের মূল টার্মিনাল এক -এর উন্নয়নমূলক কাজের শুভ উদ্বোধন এবং কয়েকটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

সকালে বন্দরের প্রথম টার্মিনালে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পায়রা বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল, (ট্যাজ), এনইউপি, পিপিএম, পিএসসি, বিএন।  

এদিকে, উদ্বোধন অনুষ্ঠানকে ঘিরে পায়রা সমুদ্র বন্দরের টার্মিনাল এক -এ চলছে প্রস্তুতি। সাজসজ্জা ও ব্যানার-ফেস্টুন এবং রঙিন পতাকায় সেজেছে পুরো বন্দর এলাকা।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্যরা, নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পুলিশ সুপারসহ (এসপি) রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনকৃত প্রকল্পগুলো হলো- রাবনাবাদ চ্যানেলের ক্যাপিটাল ও মেইনটেনেন্স ড্রেজিং ও বন্দরের আটটি সহায়ক জলযান।

এছাড়াও পায়রা বন্দরের ৬৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের প্রথম টার্মিনাল, ছয় লেন বিশিষ্ট সংযোগ সড়ক ও আন্দারমানিক নদীর উপর ১ দশমিক ১৮ কিলোমিটার চার লেন সেতু নির্মাণ।  

এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে পায়রা বন্দর আগামীতে পরিপূর্ণ সক্ষমতার সঙ্গে যাত্রা শুরু করবে এবং বৈদেশিক বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হবে।

ইত্তেফাক/এমএএম