বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

জলবায়ু সম্মেলনে ইতিবাচক ফল চায় দক্ষিণ এশিয়া

আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০২২, ১৫:২২

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো যে কতোটা ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখে পড়ছে বিশ্ব ব্যাংকের এক পরিসংখ্যানে তা বোঝা যায়। টাকার অংক উল্লেখ করে সংস্থাটি জানায়, চলতি দশকের শেষে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো বছর প্রতি ১৬ হাজার কোটি ডলার ক্ষতির মুখে পড়বে। আর আগামী তিন দশকের মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এই অঞ্চলের চার কোটি মানুষ বাস্তুচ্যুত হবে। খবর ডয়চে ভেলের।

জার্মানির পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন 'জার্মান ওয়াচ' এর এক গবেষণায় দেখা গেছে, চলতি শতকের প্রথম দুই দশকে বিশ্বের যে কয়টি দেশ দীর্ঘ মেয়াদে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ঝুঁকিতে রযেছে তার প্রথম দশটি দেশের তিনটিই হলো দক্ষিণ এশিয়ার। দেশগুলো হলো বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও নেপাল। পরের দশ দেশের তালিকায় আছে দক্ষিণ এশিয়ার আরো দুই দেশ ভারত ও আফগানিস্তান।    

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে জনসংখ্যায় বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ ভারতে পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপের দিকে যাচ্ছে  

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে জনসংখ্যায় বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ ভারতে পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপের দিকে যাচ্ছে।  শুধু ২০২১ সালেই দেশটি ১৯টি প্রাকৃতিক দুর্যোগের মুখে পড়েছে। একই সময়ে এশিয়ার দেশগুলোতে মোট ১৭৪টি প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘটনা ঘটেছে।

জলবায়ুর এই পরিবর্তন বিবেচনা করে দেখা যায়, দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ পাকিস্তানের পরিস্থিতিও অনেক ভয়াবহ। দেশটির ৩ কোটি ৩০ লাখ লোক চলতি বছর নানা ধরনের প্রকৃতির দুর্যোগের কারণে মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

ভয়াবহ বন্যার কারণে বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন

এছাড়াও ভয়াবহ বন্যার কারণে বাংলাদেশ ও ভারতের উত্তরাঞ্চলের লাখ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। অনেক মানুষের জীবন ও জীবিকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

বিশ্ব ব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক জলবায়ু বিশেষজ্ঞ টমাস মাইকেল কের বরাত দিয়ে ডয়চে ভেলে জানায়, পাকিস্তানের ভয়াবহ বন্যার পর পুনর্গঠনের জন্য এক হাজার ছয়শ কোটি ডলার  প্রয়োজন। 

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় সম্প্রতি আঘাত করা হারিকেন ইয়ান

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় সম্প্রতি আঘাত করা হারিকেন ইয়ানের সঙ্গে তিনি পাকিস্তানের বন্যার তুলনা করেন। উভয় দুর্যোগ অনেক ভয়াবহ ছিল। কিন্তু ফ্লোরিডার চেয়ে পাকিস্তানের মানুষ বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানান তিনি।   

ইত্তেফাক/ডিএস