রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পুতিনকে প্রভাবিত করার ক্ষমতা নিয়ে যা বললেন মার্কেল

আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২২, ১৫:৪০

জার্মানির সাবেক চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল জানিয়েছেন, রাশিয়া ইউক্রেনে হামলার আগে কিছু নিয়ে আলোচনা করতে চেয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট পুতিন। কিন্তু নিজের ক্ষমতার শেষ দিকে এসে প্রভাব কমে যাওয়ায় পরিকল্পনাগুলো ভেস্তে যায়। পুতিনকে প্রভাবিত করার ক্ষমতাও তার ছিল না। জার্মান সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন স্পিগেলকে এভাবেই মার্কেল তার কথা ব্যক্ত করেন। খবর বিবিসির।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তিনি ক্ষমতায় থাকাকালীন ২০২১ সালের আগস্টে সর্বশেষ মস্কো সফর করেছিলেন। অ্যাঞ্জেলা ২০২১ সালের গ্রীষ্মে ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো ও রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে একটি ইউরোপীয় সংলাপের আয়োজন করতে চেয়েছিলেন। তবে তার ব্যর্থতা তুলে ধরে তিনি জানান, রাশিয়া তার নীতিতে অবিচল ছিল।

জার্মান সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন স্পিগেলকে এভাবেই মার্কেল তার কথা ব্যক্ত করেন।

ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, 'সেই সময় আমার অনুভূতি খুবই স্পষ্ট ছিল যে ক্ষমতার রাজনীতিতে আমার প্রভাব শেষ হয়ে গেছে। আলোচনা সামনে টেনে নেওয়ার মতো আমার ক্ষমতা ছিল না। সত্যিই ছিল না, সবাই জানতো শরৎকালে আমি চলে যাবো। পুতিন শুধু ক্ষমতাকেই বিবেচনা করেন।'

টানা চার মেয়াদে জার্মানির চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করা মার্কেল গত ডিসেম্বরে পদ ছেড়েছেন। ইউক্রেনের সীমান্তে কয়েক সপ্তাহের ব্যাপক সামরিক গঠনের আগে অনেকেই যুক্তি দাঁড় করিয়েছিলেন যে অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল ও অন্যান্য ইউক্রেনীয় নেতাদের ক্রেমলিনের বিরুদ্ধে আরও কঠোর পন্থা অবলম্বন করা উচিত ছিল। 

টানা চার মেয়াদে জার্মানির চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করা মার্কেল গত ডিসেম্বরে পদ ছেড়েছেন

এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে তুমুল আলোচনা হয়। ইউক্রেনে পুতিনের সামরিক অভিযানে বন্ধে জার্মানি শক্ত ভূমিকা রাখেনি বলে শোনা যায়। 

এদিকে পুতিনের বিশাল বাহিনী চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সীমান্তে ব্যাপক সেনা জড়ো করে কিয়েভে হামলা চালায়। ইউক্রেনে এখনও তাদের ধ্বংসযজ্ঞ হামলা চলছে। হামলার পরপরই মস্কোর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো কিয়েভকে মানবিক ও সামরিক সহায়তা দিচ্ছে।  

 

ইত্তেফাক/ডিএস