রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মাঠ প্রশাসন প্রশাসনিক কর্মকর্তা কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন

আপডেট : ২৭ নভেম্বর ২০২২, ২২:২৯

দেশের বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কার্যালয়ে কর্মরত প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ মাঠ প্রশাসন প্রশাসনিক কর্মকর্তা কল্যাণ সমিতির নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে ঢাকা ডিসি কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস এম জাহিদুল ইসলামকে সভাপতি ও চট্টগ্রাম ডিসি কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইউনুছকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়েছে।

শনিবার রাজধানীর ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনির্য়াস বাংলাদেশ (আইডিইবি) মিলায়তনে অনুষ্ঠিত সাধারণসভা শেষে এই কমিটি গঠন করা হয়। সভাপতি ও মহাসচিব আলোচনার মাধ্যমে অবিলম্বে পূণার্ঙ্গ কমিটি গঠন করবেন বলে সংগঠনের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। 

এর আগে সকাল ১০টায় ঢাকা ডিসি কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস এম জাহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. শহীদুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মমতাজ বেগম এবং ডেমরা সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জামাল হোসেন। এছাড়া সাধারণ সভায় দেশের সব জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাকার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, মাঠ প্রশাসনে ডিসি অফিসের প্রশাসনিক কর্মকর্তার (এও) পদটি সচিবালয়ের মতো পদোন্নতিযোগ্য করা হবে। 

ঢাকার ডিসি আরও বলেন, অপনারা ডিসির হাত ও চোখ হিসেবে কাজ করছেন। কারণ কালেক্টরিয়েটের স্থায়ী কর্মকর্তা হিসেবে আপনারা যা জানেন একজন ডিসি ৩ বছরে তা জানা অসম্ভব। প্রশাসনের মাঝখানে বসে সরকারের যাবতীয় কর্মকাণ্ডে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আপনাদের নিচেও কম করে হলেও ছয় পদবীর কর্মচারী আছে। আবার উপর দিকেও ছয় পদবীর কর্মকর্তা আছেন। আপনাদের পদ পদোন্নতিযোগ্য করার দাবি যৌক্তিক। আমরা বলতে পারি সময়ের ব্যবধানে আপনাদের এ দুঃখ থাকবে না। তবে আপনাদের প্রযুক্তির সঙ্গে নিজেদের সমৃদ্ধ করতে হবে। মানসিক পরিবর্তন করতে হবে। ডিসি অফিসে আসা অসহায়, গরীব মানুষকে তাদের অধিকার দিতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এডিসি মমতাজ বেগম বলেন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা থেকে নন ক্যাডার সহকারী, সিনিয়র সহকারী সচিব কিংবা উপ সচিব করার দাবি যৌক্তিক। এটা আপনাদের অধিকার। তবে অধিকার আদায়ে বিনয়ী ভদ্র হতে হয়। শৃঙ্খলার পরিপন্থী কিছুই করা যাবে না।

ইত্তেফাক/এএএম