শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ, মিথ্যা মামলা ও হয়রানির অভিযোগ

আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০২২, ২২:১৪

রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশকে (৩ ডিসেম্বর) কেন্দ্র করে নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (২৮ নভেম্বর) দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির নেতা-কর্মীরা এই অভিযোগ করেন।

তারা বলেন, অসহনীয় দ্রব্যমূল্য, লাগাতার লোডশেডিং, দুর্নীতি-দুঃশাসন, গুম, হত্যা, মামলা-হামলা, ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

নেতা-কর্মীরা আরও বলেন গণসমাবেশ বানচাল করতে ইতোমধ্যে সরকারের তরফ থেকে আইন শৃংখলা বাহিনীকে দিয়ে রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও থানাসমূহে সংগঠনের নেতাদের নামে শত শত মিথ্যা মামলা করার প্রতিবাদে রাজশাহী বিএনপির উদ্যোগে সংবাদ সম্মেলন করা হয়।
 
সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী জেলা ও মহানগরের সমন্বয়ক এডভোকেট শাহিন শওকত স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্য পাঠ করা হয়। 

তিনি বলেন, জনগণ যেন সমাবেশ স্থলে উপস্থিত হতে না পারে সেজন্য সকল প্রকার যানবাহনর বন্ধ করার ঘোষণা করা হয়েছে। মঞ্চ তৈরিতেও বাধা দেওয়া হয়েছে। রাসিক ৩ নম্বর ওয়ার্ডের নিমতলা মোড়ে ডিবি পুলিশ নিজেই ৫টি বোমা ফাটিয়ে দুইশ নেতা-কর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়েছে।

উপস্থিত নেতা-কর্মীরা সকল মামলা, যানবাহন ধর্মঘট ও মঞ্চ তৈরিতে বাধা প্রদানের তীব্র নিন্দা জানান। এই ধরণের কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য আরএমপি কমিশনার ও রাজশাহী জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্শন করেন। সেই সঙ্গে সকল বাধা অতিক্রম করে নির্ধারিত দিনে গণসমাবেশ হবে বলে উল্লেখ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শাহীন শওকত খালেক, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সাঈদ চাঁদ, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা বিএনপির সদস্য দেবাশিষ রায় মধু, রাজশাহী মহানগর বিএনপির আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট এরশাদ আলী ঈশা, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক নজরুল হুদা, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অধ্যাপক বিশ্বনাথ সরকার, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আলহাজ্ব মামুনুর রশিদ মামুন, জেলা বিএনপির সদস্য সৈয়দ মহসিন, রোকনুজ্জামান আলম, রায়হানুল আলম রায়হান ও গোলাম মোস্তফা মামুন, মহানগর বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক শফিকুল ইসলাম শাফিক ও বজলুল হক মন্টুসহ বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মী।

ইত্তেফাক/আই/পিও