রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

রাজশাহীতে অনুমতি ছাড়াই গণসমাবেশের মঞ্চ নির্মাণ, পুলিশের বাধা

আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৬:৫২

রাজশাহীতে বিএনপির গণসমাবেশের অনুমতি এখনো মেলেনি। অনুমতি না নিয়েই গণসমাবেশের মঞ্চ নির্মাণ কাজ করায় পুলিশ তাতে বাধা দিয়েছে। মহানগরীর মাদরাসা মাঠে গণসমাবেশের আয়োজন করতে চায় বিএনপি। আগামী ৩ ডিসেম্বর রাজশাহীতে বিএনপির এই বিভাগীয় গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বর্তমানে মাদরাসা মাঠে তালা ঝুলিয়ে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সোমবার (২৮ নভেম্বর) মাদরাসা মাঠে মঞ্চ নির্মাণের জন্য ডেকোরেটরের লোকজন গেলে পুলিশ তাদের ফিরিয়ে দেয়। পরে এ নিয়ে জেলা ও মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে গণসমাবেশের মঞ্চ নির্মাণের বাধা দেওয়ার অভিযোগ তোলেন বিএনপির নেতারা। বেলা ১১টার দিকে রাজশাহী নগরের মালোপাড়া বিএনপির কার্যালয়ে জেলা ও মহানগর বিএনপি যৌথভাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী জেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন শওকত খালেক বলেন, ‘আজ পর্যন্ত আমাদের মাঠ দেওয়া হয়নি। মাদরাসা মাঠে পুলিশ তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। আমরা আবেদন করেছি, কিন্তু এখনো মাঠ বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে না। পুলিশ ককটেলের নামে নতুন সন্ত্রাস তৈরি করছে। নয়টি উপজেলায় মামলা হয়েছে। সেই মামলায় পুলিশ গ্রেফতার বাণিজ্য করছে।’

সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদ বলেন, ‘রাজশাহী জেলার সব থানাতেই মামলা দেওয়া হয়েছে। সেই মামলাগুলোর নকল দেওয়া হচ্ছে না। আবেদন করার পরও সেটা পাচ্ছি না। বিদেশে থাকা নেতা-কর্মীদের নামেও মামলা হয়েছে। জেলার বাইরে যারা আছেন, তাদের নামেও মামলা হচ্ছে। তবে যত বাধাই আসুক, আমরা এই সমাবেশ করব।’

সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এরশাদ আলী, জেলা বিএনপির সদস্যসচিব বিশ্বনাথ সরকার, মহানগর বিএনপির সদস্যসচিব মামুনুর রশিদসহ অন্য নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক মহানগর পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা জানান, মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দেবে জেলা প্রশাসন। সমাবেশ ও মাইক ব্যবহারের অনুমতি দেয় পুলিশ। আমার জানা মতে বিএনপি এখনো মাঠ ব্যবহারের অনুমতি পায়নি। আর সমাবেশের অনুমতির বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। অন্য জায়গায় সমাবেশের দুই থেকে তিন দিন আগে অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

রাজশাহীর জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল বলেন, ‘মাঠ ব্যবহারের জন্য জেলা প্রশাসনের অনুমতি লাগবে। আমি শুনেছি, বিএনপির পক্ষ থেকে এই বিষয়ে একটি আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু এখনো সেটা হাতে পাননি। আবেদনপত্র পেলে দেখবো বিএনপি কী শর্তে মাঠটি চেয়েছে। তারপর সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে। আর মাঠের অনুমতি পেলে পুলিশ কমিশনার সমাবেশের অনুমতি দিতে পারবেন।’

ইত্তেফাক/পিও