বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

কুমিল্লায় গৃহবধূ খুনের মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ২২:১৪

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে ডাকাতিকালে শাহনাজ বেগম নামে এক গৃহবধূকে খুনের ঘটনায় দায়ের করা মামলার ৬ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। 

বুধবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-৫ আদালতের বিচারক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন এ রায় দেন। 

রায় ঘোষণার সময় অভিযুক্ত ৬ আসামির মধ্যে ৫ জন উপস্থিত ছিলেন। প্রধান আসামি মো. কাউসার জামিনে গিয়ে পলাতক রয়েছে। মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী আ হ ম তাইফুর আলম এসব তথ্য জানিয়েছেন।

মামলার অভিযোগ ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার শব্দলপুর গ্রামের মৃত আনু মিয়ার ছেলে ফারুক মিয়া তার স্ত্রী শাহনাজ বেগমকে নিয়ে জেলার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জে বসবাস করতেন। ২০০৭ সালের ১ নভেম্বর রাতে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল ভিকটিম শাহনাজ বেগমের বাসায় হানা দেয় এবং ঘরের মূল্যবান মালামাল ডাকাতিকালে গৃহবধূ শাহনাজ বেগম টের পেয়ে চিৎকার শুরু করেন। এ সময় ডাকাতরা ওই গৃহবধূর হাত-পা বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরদিন গৃহবধূর বাবা সৈয়দ আহমদ সরকার বাদী হয়ে দাউদকান্দি থানায় অজ্ঞাতনামা ডাকাতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। থানা পুলিশের পর মামলাটি তদন্ত করে জেলা ডিবি পুলিশ, পিবিআই ও সিআইডি। সর্বশেষ তদন্তে ২০১৮ সালে ১৯ মার্চ সিআইডিও ৬ ডাকাতের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে। 

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. জাকির হোসেন জানান, মামলায় ৪৭ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বুধবার আদালত ৬ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন। 

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন জেলার দাউদকান্দি উপজেলার বড়সাতপাড়া গ্রামের মো. কাউছার ওরফে অপূর্ব, সাতপাড়া গ্রামের শফিকুল বাশার, আক্তার হোসেন, লালচান স্বর্ণকার, মুরাদনগর উপজেলার বরইয়াকুড়ি গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম ও দেবিদ্বার উপজেলার ভানি গ্রামের মহসিন। 

রায় ঘোষণার সময় প্রধান আসামি কাউছার ছাড়া সবাই আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/পিও