রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

ছাত্রলীগের সম্মেলন ৬ ডিসেম্বর, শীর্ষ দুই পদপ্রত্যাশী তিন শতাধিক

আপডেট : ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫:১৬

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশীর সংখ্যা তিন শতাধিক। বিতর্কমুক্ত কমিটি দিতে তাদের সবার আমলনামা যাচাই-বাছাই করছেন আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড। এক্ষেত্রে কয়েকটি জরিপ রিপোর্টও করা হচ্ছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। এদিকে আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে ছাত্রলীগকে সু-সংগঠিত করতে চমক হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বাইরে থেকে আসতে পারে শীর্ষ এক পদ। এমন খবর চাউর হওয়ায় শীর্ষ পদ পেতে জীবনবৃত্তান্ত জমা দেওয়ার হিড়িক পড়েছে। 

দীর্ঘদিন ধরে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ দুটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের মধ্য থেকেই দেওয়া হচ্ছে। সর্বশেষ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি লিয়াকত শিকদার ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরের। 

প্রসঙ্গত, ছাত্রলীগের সম্মেলনে কাউন্সিলররা নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষমতা সাধারণত আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার উপর অর্পন করে থাকেন। গতবারের মতো এবারও সম্মেলনের দিন কিংবা কয়েক দিন পরে কমিটি ঘোষণা হতে পারে। পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে সাংগঠনিক দক্ষতা, চারিত্রিক উৎকর্ষতা, শিক্ষার্থীবান্ধব মানসিকতা এবং আওয়ামী পরিবারের নেতাদেরকেই নেতৃত্বে আনার কথা জানান আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারক ফোরামের একজন নেতা।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলন আগামী ৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

ছাত্রলীগের সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে উচ্ছ্বাস, ফিরে এসেছে প্রাণচাঞ্চল্য। কারা আসছে আগামীর নেতৃত্বে তারই প্রতীক্ষায় প্রহর গুণছে সবাই। ছাত্রলীগের বিগত কমিটিগুলো বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, বিভাগ ভিত্তিক রাজনৈতিক মেরুকরণের জন্য একেক সময় একেক বিভাগ থেকে নেতৃত্ব নিয়ে আসা হয়। জানা গেছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করার কারণে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় দীর্ঘদিন ধরেই অকার্যকর হয়ে পড়ে আছে। শীর্ষ নেতৃত্বসহ অন্য কোনো পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের কার্যালয়ে সচরাচর প্রবেশ করতে দেখা যায় না।

অপরদিকে করোনা মহামারীতে মানবিক কাজে যারা আলোচনায় এসেছেন তাদেরকেও এবার বিবেচনা করা হবে বলে জানা গেছে। বিগত কয়েক বছরে নির্দিষ্ট কয়েকটি অঞ্চল থেকেই ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব নির্বাচন করা হয়েছে। এরমধ্যে বৃহত্তর ফরিদপুর, বরিশাল, চট্টগ্রাম, উত্তরবঙ্গ, খুলনা, এবং ময়মনসিংহ উল্লেখযোগ্য।     

নেতৃত্বের দৌঁড়ে এসব অঞ্চলের যেসব নেতা এগিয়ে আছেন তাদের মধ্যে চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে রয়েছেন বর্তমান ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, উপ-সমাজসেবা সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তাহসান আহমেদ রাসেল, সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দীন, সহ সম্পাদক মো: আনফাল সরকার পমন। উত্তরবঙ্গ থেকে আলোচনায় আছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক হায়দার মোহাম্মদ জিতু, সহ-সভাপতি রাকিব হোসেন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহসীন হল ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান সানী, শহীদুল্লাহ হল ছাত্রলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, তথ্য ও গভেষণা সম্পাদক পল্লব কুমার বর্মন। বরিশাল বিভাগ থেকে আলোচনায় আছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ইয়াজ আল রিয়াদ, সহ-সভাপতি সৈয়দ আরিফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ (ইনান), উপ-বিজ্ঞান সম্পাদক সবুর খান কলিন্স, কর্মসংস্থান বিষয়ক উপ-সম্পাদক খাদিমুল বাশার জয়। খুলনা বিভাগ থেকে রয়েছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হল ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ফরিদা পারভীন, সাংগঠনিক সম্পাদক বরিকুল ইসলাম বাধন, মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক নাহিদ হাসান শাহিন, পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ ইমাম বাকের ও উপ-বিজ্ঞান সম্পাদক খন্দকার হাবিব আহসান।

ময়মনসিংহ বিভাগ থেকে আলোচনায় আছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সোহান খান, সহ সভাপতি খায়রুল হাসান আকন্দ, এসএম হলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান তাপস, উপ- প্রচার সম্পাদক সুরাপ মিয়া সোহাগ, সহ-সম্পাদক এসএম রাকিব সিরাজী, তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপ সম্পাদক রশিদ শাহরিয়ার উদয়। ঢাকার পার্শ্ববর্তী ছাত্রলীগের সাংগঠনিক বিভাগ ফরিদপুর থেকে আলোচনায় আছেন কর্মসংস্থান সম্পাদক রনি মোহাম্মদ, আইন বিষয়ক সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন শাহাদাত, ঢাবির মুহসীন হল ছাত্রলীগের সভাপতি শহীদুল হক শিশির। ঢাকা অঞ্চলের প্রার্থীদের মধ্যে সার্জেন্ট জহরুল হক হলের সাবেক ভিপি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপ গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্ত, এফ রহমান হলের সাবেক জিএস ও কেন্দ্রীয় উপ দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রাহিম, গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক শামীম শেখ তুর্জ, শহীদুল্লাহ হল ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস ও কেন্দ্রীয় উপ বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক মো. ইরফানুল হাই সৌরভ, উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক মো: নিয়ামত উল্লাহ তপন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের রিক্তিক চক্রবর্তী প্রমুখ।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বয়স ২৭ এর মধ্যে থাকলেই কেবল নেতৃত্বে আসার সুযোগ রয়েছে। সেই হিসেবে বিভিন্ন অঞ্চলের অনেকেই ছিটকে পড়বে কেন্দ্রীয় শীর্ষ পদ থেকে। তবে বিগত কয়েকটি কমিটিতে ছাত্রলীগের সাংগঠনিক নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২ বছর বাড়িয়ে অনুর্ধ্ব ২৯ করেছেন। নীতি নির্ধারকরা মনে করছেন গঠনতন্ত্রে ২৭ বছর বয়স, এর বাইরে নেত্রী (প্রধানমন্ত্রী) বড়জোর অনুর্ধ্ব ৩০ এর মধ্যে যেতে পারেন। কোনভাবেই ৩০ বছরের বেশি বয়সী কেউ নেতা হতে পারবেন না। সেই হিসেবে বয়স ৩০ এর বেশি হলেও শীর্ষ পদের জন্য প্রার্থী হয়েছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সোহান খান, যার বয়স ৩২ অতিক্রম করেছে অনেক আগেই। ছাত্রলীগের সভাপতি পদ প্রত্যাশী বর্তমান কেন্দ্রীয় আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক আশরাফুল ফাহাদ। তার বয়স এখনো ৩০ অতিক্রম করেনি। বয়সের বাধা না থাকলে তিনি এবার শক্তিশালী প্রার্থী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনও নিজেকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন, যার বয়স ৩০ অতিক্রম করেছে কয়েকমাস আগে। এছাড়া ছয় বছরের মধ্যে চার বছর মেয়াদী অনার্স শেষ করার নিয়ম থাকলেও ৯ বছর পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ডিগ্রি অর্জন করছেন আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক এজিএস সাদ্দাম হোসেন। এছাড়া বয়স ৩০ বছরের কোটা পার করেছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী, সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শামীম, সহ-সভাপতি ইয়াজ আল রিয়াদ। আর ২৯ বছর অতিক্রম করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের প্রার্থী হয়ে আছেন, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দীন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তাহসান আহমেদ রাসেল, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক হায়দার মোহাম্মদ জিতু, সহ-সভাপতি রাকিব হোসেন, সহ-সভাপতি সৈয়দ আরিফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক বরিকুল ইসলাম বাধন, আইন বিষয়ক সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন শাহাদাত। তবে করোনা মহামারীর সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার সময়টুকু বিবেচনায় নিলে কপাল খুলতে পারে অনেকের।

  • জরুরি সভা ডেকেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সম্মেলন সামনে রেখে জরুরি সভা ডেকেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় দেশের সব জেলা, মহানগর ও বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। গতকাল ছাত্রলীগের উপদপ্তর সম্পাদক নাজির আহমেদ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

 

ইত্তেফাক/ইআ