বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

নির্মাণাধীন রাস্তাটি বিধ্বস্ত

সেতু নির্মাণ না করেই রাস্তা নির্মাণ, ১০ গ্রামের দুর্ভোগ চরমে

আপডেট : ১৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪১

শেরপুরের ঝিনাইগাতীর দাড়িয়ারপারে পাগলা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ না করেই দুপাশে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে বাঁশের সাঁকো দিয়ে নদী পারাপার হতে হচ্ছে স্থানীয়দের। সেতু নির্মাণ না করেই রাস্তা নির্মাণ করায় বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে অন্তত ১০ গ্রামের শতশত মানুষের।

এদিকে, পাহাড়ি ঢলের পানির তোড়ে নির্মাণাধীন রাস্তাটি বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, ২০২১ সালে ঝিনাইগাতীর সদর ইউনিয়নের আহমদ নগর থেকে ধানশাইল ইউনিয়নের মোহনগঞ্জ বাজার পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। বর্তমানে নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। গত বর্ষার আগে রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু হলেও দাড়িয়ারপার এলাকায় পাগলা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ না করেই নদী ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ করা হয়। কিন্তু কাজ শেষ হতে না হতেই পাহাড়ি ঢলের পানির তোড়ে রাস্তাটি বিধ্বস্ত হয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

এব্যাপারে ধানশাইল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, নদীর ওপর সেতু নির্মাণ না করেই রাস্তা নির্মাণ করা হয়। ফলে নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই পাগলা নদীর ওই স্থানে নির্মাণাধীন রাস্তাটি ভেঙে পুনরায় একটি নদীর সৃষ্টি হয়।

ছবি: ইত্তেফাক

তিনি জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে যোগাযোগ ব্যবস্থা চালুর বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। গ্রামবাসী নিজ উদ্যোগে ওই নদীর ওপর একটি বাঁশের সাঁকো তৈরি করে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে। অনেক সময় অতি জরুরি প্রয়োজনে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শত শত গ্রামবাসীকে।

ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জানান, জরুরি ভিত্তিতে এ নদীর ওপর একটি সেতু নির্মাণ প্রয়োজন। সেতু হলে যানবাহন চলাচলের পাশাপাশি শতশত মানুষের দুর্ভোগ লাগব হবে।

শেরপুরের এলজিইডি'র নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এখানে সেতু নির্মাণের জন্য প্রকল্প প্রণয়ন করে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়া গেলেই দ্রুত কাজ শুরু করা হবে। 

ইত্তেফাক/আরএজে