রোববার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

ঢামেক হাসপাতালের উপাধ্যক্ষ হলেন আব্দুল হানিফ টাবলু

আপডেট : ০৬ জানুয়ারি ২০২৩, ০১:০৮

অধ্যাপক ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের উপাধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। গত ৩ জানুয়ারি স্বাস্থ্য মন্ত্রণায়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব মল্লিকা খাতুন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ আদেশ দেওয়া হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতালে যোগদানের পর বুধবার (৪ জানুয়ারি) ধানমন্ডি ৩২-এ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন টাবলু। এ সময় চিকিৎসকরা তার সঙ্গে ছিলেন।

যোগদানের পর তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ঢাকা মেডিকেল কলেজও হাসপাতালের ছাত্র-ছাত্রী, চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু একই হাসপাতালের নিওনেটাল সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। গত ১ জানুয়ারি তাকে মুগদা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

তিনি বলেন, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল খুবই ভালো। প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার পর ওখানে যোগদান করিনি। ওখানে নিওনেটাল সার্জারি বিভাগ নেই। তাছাড়া ঢামেক হাসপাতালে থাকলে শত শত রোগীর অনায়াসে সার্জারি করা যাবে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের নিওনেটাল সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু ঢাকা মেডিকেল কলেজের K40 ব্যাচের ছাত্র। তিনি ১৯৮৯ সালে এমবিবিএস পাশ করে ১৯৯৩ সালে একাদশ বিসিএসে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি বাংলাদেশ শিশু হাসপাতালের বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব চাইল্ড হেলথ থেকে ৫ বছর মেয়াদী এমএস (শিশু সার্জারি) সম্পন্ন করেন। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের টিচিং হাসপাতাল, বোস্টন চিলড্রেন্স হাসপাতাল থেকে ২০০৪ সালে শিশু সার্জারি ও শিশু ইউরোলোজিতে ৬ মাসের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। 

পরে জাপানের ওসাকা চিলড্রেন্স হাসপাতালের নিওনেটাল সার্জারি এবং ইন্দিরা গান্ধী ইন্সটিটিউট অফ চাইল্ড হেলথ, বেঙ্গালুর থেকে পেডিয়াট্রিক, ল্যাপারোস্কোপিক সার্জারিতেও প্রশিক্ষণ নেন। তিনি মেডিকেল এডুকেশনের ওপর এমএমএড ডিগ্রি অর্জন করেন।

তিনি প্রথম বাংলাদেশি শিক্ষক হিসেবে ফিলাডেলফিয়ায় অবস্থিত FAIMER ইন্সটিটিউটে ফেলো হিসেবে ২০১০ সালে মনোনীত হন এবং দুই বছর মেয়াদী এই ফেলোশিপ সম্পন্ন করেন। এই ফেলোশিপের মূলমন্ত্র ''ভালো শিক্ষক ভালো চিকিৎসক তৈরি করবেন এবং সমাজ ভালো মানবিক দক্ষ সেবা পাবে''।

প্রাথমিক অবস্থায় অ্যাপেনডিসাইটিস এর অপারেশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসার জন্য জাপানের Japanese Society of Pediatric Sungeon এবং অটোয়া  বিশ্ববিদ্যালয় BRT 2017-2 ফেলোশিপের আমন্ত্রণ পান ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু।

জাপানিজ সোসাইটি অফ পেডিয়াট্রিক সার্জন্স এবং কানাডার অটোয়া বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত Bethune Round Table 2017 রিসার্চ পেপারের জন্য ভিজিটিং স্কলার হিসাবে আমন্ত্রিত হন। তিনি জাপানে ১০ বার জাপানিজ সোসাইটি অফ পেডিয়াট্রিক সার্জনস এর বার্ষিক সভায় বৈজ্ঞানিক পেপার উপস্থাপন ও আন্তর্জাতিক সেশন চেয়ার করার জন্য আমন্ত্রিত হয়েছেন।গ্লাসগো মেডিকেল কলেজও মেডিকেল এডুকেশনের জন্য তাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। আমেরিকান সোসাইটি অফ পেডিয়াট্রিক সার্জন্স- APSA এর ৫০তম বার্ষিক সভায় তার পেপার গৃহীত হয়।

জবলপুর ভারতের নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস মেডিকেল কলেজ ২০১৭ সালে অধ্যাপক টাবলুকে প্রফেসর রাইনা Oration এ আমন্ত্রণ জানান।

২০১৫ সালে মাগুরারা আলোড়ন সৃষ্টিকারী পেটে গুলিবিদ্ধ শিশু সুরাইয়াকে সারিয়ে তোলা এই চিকিৎসক দম্পতির আরেকজন ঢাকা মেডিকেল কলেজের Pediatric Surgical Oncology এর বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. কানিজ হাসিনা শিউলী।

ছাত্র-ছাত্রীদের মানবিক দক্ষ চিকিৎসক হওয়ার জন্য  4E- Eampathy, Ethics, Excellence, Endeavour with compassion এর প্রবক্তা অধ্যাপক ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু। ২০০১ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সহকারী রেজিস্টার হিসেবে যোগদান করেন এবং পর্যায়ক্রমে রেজিস্টার, সহকারী অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু একাদশ বিসিএস ফোরামের জেনারেল সেক্রেটারি এবং এসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্রিক সার্জন অব বাংলাদেশের ভাইস প্রেসিডেন্ট, জাইকা এলামনাই এসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট। 

এছাড়াও ঢাকা মেডিকেল কলেজ এলামনাই ট্রাষ্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ভোটে নির্বাচিত নির্বাহী কমিটির সদস্য হন।

তিনি সহযোগী অধ্যাপক, অধ্যাপক, পেডিয়াট্রিক সার্জারী ও নবজাতকদের জটিল জন্মগত ক্রটির সার্জারী তথা নিওনেটাল সার্জারী বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান হিসাবে কর্মরত ছিলেন এবং আছেন।

ডা. আব্দুল হানিফ টাবলু ঢাকা মেডিকেল কলেজ Students Welfare Committee এর সভাপতি হিসাবে প্রতিবছর আর্থিকভাব সহযোগিতা প্রয়োজন এরকম প্রায় ৩০ জন ছাত্র ছাত্রীর ৫ বছর মেয়াদী বৃত্তির ব্যবস্হা করছেন।

সম্প্রতি করোনার সময় তিনি ঢাকা মেডিকেলসহ অনেক প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসক দের জন্য মুল্যবান মাস্কসহ অন্যান্য সুরক্ষা সামগ্রী বিভিন্নভাবে সংগ্রহ করে সবরারাহ করেন এবং ঢাকা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে ক্রিটিকাল করোনা রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহের হাইফ্লোহ ন্যাসাল ক্যানুলাসহ অন্যান্য চিকিৎসা সামগ্রী যোগার করেন।

ইত্তেফাক/এসকে