রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

৩৭ বছর পর উদ্ধার হলো সাগরে ফেলে দেওয়া চিঠি

আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:০৩

কেউ কি কয়েক দশক আগে ফেলে দেওয়া কিছু ফিরে পাওয়ার আশা করে? সাধারণত এ রকম হয় না। আমেরিকান নাগরিক ট্রয় হেলারও এই চিন্তা করেননি। কিন্তু তার ভাগ্য ব্যতিক্রমী। ৩৭ বছর আগে সমুদ্রে ফেলে দেওয়া একটি চিঠি তিনি না চাইতেই ফেরত পেয়েছেন।

চিঠি ফেরত পাওয়ার ঘটনাটি ঘটে গত ১৩ নভেম্বর। সেদিন কেটি কারম্যাক্স ও অ্যানি কারম্যাক্স ফ্লোরিডার সেবাস্টিয়ানের সমুদ্র সৈকতে হাঁটছিলেন। এলাকাটি এর আগে হারিকেন নিকোলে আঘাত হানে। সেদিন হারিকেনের কারণে সৈকতে জমে থাকা আবর্জনা পরিষ্কার করছিলেন কয়েকজন শিক্ষক।

৩৭ বছর আগে সমুদ্রে ফেলে দেওয়া একটি চিঠি তিনি না চাইতেই ফেরত পেয়েছেন।

তারা কেটি ও অ্যানির হাতে একটি বোতল দেয়। সেই বোতলে একটা চিঠি ছিল। এতে ট্রয় হেলারের নাম, একটি ঠিকানা এবং ফোন নম্বর ছিল। এই তথ্য ব্যবহার করে কেটি ও অ্যানি ট্রয়কে অনলাইনে খুঁজতে শুরু করে। পরে দেখা গেল মাউন্ট ওয়াশিংটন, কেন্টাকিতে একই নামের এক ব্যক্তি বাস করছিলেন।

তারপর দুইজনে ওই ঠিকানায় ফোন দেন। অচেনা নম্বর দেখে প্রথমে ফোন ধরেন না ট্রয়। পরে ছোট্ট একটি বার্তা দেখে তিনি অবাক হন। তিনি বলেন, 'যখনই মেসেজ দেখলাম, চিঠিটা বোতলে রেখে ফেলে দেওয়ার ঘটনা মনে পড়ে।'

ট্রয় এখন তার ছবিসহ চিঠিটি ফ্রেমবন্দি করে রেখেছেন।

স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে ট্রয় জানান, ১৯৮৫ সালে তিনি ফ্লোরিডার ভেরো বিচ পরিদর্শন করেন। তখন তার বয়স মাত্র ১০ বছর। এ সময় তিনি বোতলটি সমুদ্রের পানিতে ফেলে দেন। তবে প্রায় চার দশক পরেও যে তা ঠিক থাকবে তা তিনি আশা করেননি। 

এদিকে, ট্রয়কে খুঁজে পাওয়ার পর কেটি ও অ্যানি তাকে চিঠিটি পাঠায়। ট্রয় এখন তার ছবিসহ চিঠিটি ফ্রেমবন্দি করে রেখেছেন। ছবিটা তোলা হয়েছিল যখন তিনি চিঠিসহ বোতলটি পানিতে ফেলে দিচ্ছিলেন।

ট্রয়কে খুঁজে পাওয়ার পর কেটি ও অ্যানি তাকে চিঠিটি পাঠায়।

ট্রয় বলেন, 'এটি এমন একটি ঘটনা যা আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না। ভাবলাম বোতলটা পানিতে ফেলে দেখি কতদূর যায়। কিন্তু অবশেষে বোতলটা আমার কাছে ফিরে পাওয়াটা আশ্চর্যজনক।'

ইত্তেফাক/ডিএস