বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

কর ফাঁকির মামলায় খালাস পেলেন নোবেলজয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসা

আপডেট : ১৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৩:৪৪

ফিলিপাইনের আদালত কর ফাঁকির অভিযোগে নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসাকে খালাস দিয়েছেন। একই মামলায় তার কোম্পানি র‌্যাপলারকেও খালাস দেওয়া হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রেসার মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়াকে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য বিজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে। এই মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে র‌্যাপলারের প্রতিষ্ঠাতা মারিয়া রেসাকে ৩৪ বছরের জেল হতে পারতো। 

ফিলিপাইনের আদালত কর ফাঁকির অভিযোগে নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসাকে খালাস দিয়েছেন।

বুধবার (১৮ জানুয়ারি) মামলার রায় ঘোষণার পর রেসা বলেন, 'আজ তথ্যের জয় হয়েছে, সত্যের জয় হয়েছে, ন্যায়ের জয় হয়েছে।'

২০১৮ সালে ফিলিপাইন সরকার রেসা ও র‌্যাপলারের বিরুদ্ধে কর ফাঁকির মামলা দায়ের করে। ফিলিপাইনে রদ্রিগো দুতের্তে নেতৃত্বাধীন সাবেক সরকার কর ফাঁকির মামলা দায়ের করে।অভিযোগ করা হয়েছিল, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে অংশীদারিত্বের মাধ্যমে র‌্যাপলার মূলধন বাড়াচ্ছে। আর এ জন্য তারা কোনো কর দিচ্ছে না।

২০১৮ সালে ফিলিপাইন সরকার রেসা ও র‌্যাপলারের বিরুদ্ধে কর ফাঁকির মামলা দায়ের করে।

ফিলিপাইনের বিচার বিভাগ জানিয়েছে, বিদেশী বিনিয়োগ সংস্থা ওমিডিয়া নেটওয়ার্ক ও নর্থ বেস মিডিয়াকে দেওয়া র্যাপলার লেনদেনের রসিদ অনুসারে, কোম্পানির করযোগ্য আয় ছিল ১ হাজার ৪১৮ লাখ ৬০ হাজার পেসো। ২০১৫ সালে তারা এই আয় দেখায়নি।

র‌্যাপলার কর্তৃপক্ষ ও রেসা অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তারা জানিয়েছে, বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আইনিভাবে আর্থিক লেনদেন হয়েছে। কোনো করযোগ্য আয় নেই। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ফিলিপাইন সরকারও র‌্যাপলারের অপারেটিং লাইসেন্স প্রত্যাহার করে। 

র‌্যাপলার কর্তৃপক্ষ ও রেসা অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

তখন অভিযোগ করা হয়, র‌্যাপলারের সঙ্গে দুই মার্কিন বিনিয়োগকারী থাকা সংবিধানের একটি ধারা লঙ্ঘন। সংবিধান প্রেসের মালিকানা শুধুমাত্র ফিলিপিনো নাগরিকদের জন্য সীমাবদ্ধ করে। এর আগে মানহানির মামলায়ও দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন রেসা। 

২০২০ সালের জুনে সেই মামলায় তাকে ছয় বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। পরে তিনি জামিনে মুক্তি পান।

ইত্তেফাক/ডিএস