বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

পদত্যাগের সিদ্ধান্তে কোনো অনুশোচনা নেই: জেসিন্ডা

আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২৩, ২৩:৫৬

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্তে কোনো অনুশোচনা নেই বলে জানিয়েছে জেসিন্ডা আর্ডান। শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) নেপিয়ারের এক বিমানবন্দরের বাইরে তিনি সাংবাদিকদের আরও বলেছেন, ‘দীর্ঘ সময় পর আমি লম্বা সময় ঘুমিয়েছি।’ খবর বিবিসির। 

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার জেসিন্ডা আরডার্ন পদত্যাগের সিদ্ধান্ত জানান। এর কারণ হিসেবে বলেন, তিনি পরিশ্রান্ত এবং নেতৃত্ব দেবার মতো তার ‘যথেষ্ট শক্তি নেই’। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন। তার এই সিদ্ধান্ত তার সমর্থক এবং সমালোচক উভয়কেই হতবাক করেছিল।

আরডার্ন আগামী ৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তার পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন। লেবার পার্টির এমপিরা যদি এর মধ্যে তার উত্তরসূরি নির্বাচন করতে না পারেন, তাহলে পার্টির সদস্যরা ভোটাভুটির মাধ্যমে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন করবেন। লেবার পার্টির এমপিরা আগামী রোববার তার উত্তরসূরি নির্বাচন করবেন।

জেসিন্ডার এই ঘোষণা এমন সময়ে এসেছে যখন জনমত সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, আগামী ১৪ অক্টোবর যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, তাতে তার দল লেবার পার্টির পুনরায় জয়লাভের সম্ভাবনা কম।

আরডার্ন তার ছয় বছরের ‘চ্যালেঞ্জিং’ শাসনকালের বর্ণনা দেওয়ার সময় আবেগে তার কণ্ঠ রুদ্ধ হয়ে আসে।

৪২ বছর বয়সী জেসিন্ডা আরডার্ন বলেছেন, তার ভবিষ্যতের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য তিনি সময় নিয়েছেন। প্রচুর চিন্তাভাবনা করেছেন। তিনি আশা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য তিন হয়তো তার প্রাণশক্তি ফিরে পাবেন। 

জেসিন্ডা আরডার্ন ২০১৭ সালে যখন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন, তখন তিনি ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে কম বয়সী নারী সরকার প্রধান। সেই সময় তার বয়স ছিল মাত্র ৩৭ বছর।

ইত্তেফাক/এফএস/এএএম