বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

প্রবাসীরা দেশপ্রেমের পরিচয় দেবেন: সেলিম মাহমুদ

আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২৩:২৫

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ বলেছেন, আমাদের প্রবাসীরা দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে বৈধ চ্যানেলে দেশে টাকা পাঠাবেন। ‌‌‌‌‌‌‌অবৈধ চ্যানেলে টাকা পাঠিয়ে খুব সামান্য কিছু আর্থিক সুবিধা পেলেও এতে দেশের বড় ক্ষতি হয়। দেশের এই ক্ষতির ফলে দেশে বসবাসরত প্রবাসীর পরিবার এবং বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে তিনি নিজেও ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলা করে দেশের অর্থনীতিকে সুরক্ষা দেওয়ার লক্ষ্যে আমাদের প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। দেশের অর্থনীতি সুরক্ষায় প্রবাসীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।‌

ড. সেলিম মাহমুদ মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) ওমানের রাজধানী মাসকাটের আল-হিল এলাকায় ওমানে অবস্থানরত চাঁদপুরের কচুয়ার কয়েকশ প্রবাসীর এক সম্বর্ধনায় এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা কঠোর পরিশ্রম করে বাংলাদেশকে বিশ্বের একটি শক্তিশালী অর্থনীতিতে রূপান্তরিত করেছেন। গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করার জন্য দেশি-বিদেশে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কাছে সব ষড়যন্ত্রকারীরা পরাস্ত হয়েছে। বিদেশে লবিস্টের মাধ্যমে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার খরচ করা হয়েছে বাংলাদেশের ক্ষতি করার জন্য। প্রবাসীরা যাতে দেশে বৈধভাবে রেমিটেন্স না পাঠায় সেজন্য বিএনপি জামাত অনেক অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র করেছে। দেশের প্রতি প্রবাসীদেরও দায়িত্ব রয়েছে। দেশের ক্ষতি হলে তারা নিজেরাও ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। 

ড. সেলিম আরও বলেন, মধ্যপ্রাচ্যসহ সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশের মানুষের জন্য চাকরির বাজার সৃষ্টি এবং বাংলাদেশের জন্য এই বাজার টেকসই করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ও অবদান রয়েছে। বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের মানুষের যত কল্যাণ হয়েছে। তার সবই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এবং রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার হাত দিয়ে হয়েছে। 

ওমানে বাংলাদেশি প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, প্রবাসীদের কল্যাণে শেখ হাসিনার সরকার কাজ করে যাচ্ছে। ওমানে রাষ্ট্রদূত হিসেবে আমাদের সরকার একজন দক্ষ ও অভিজ্ঞ কূটনীতিককে দায়িত্ব দিয়েছেন। ‌আমাদের প্রবাসীদের কিছু দাবি ইতিমধ্যে আমি তাকে অবহিত করেছি।‌‌‌‌‌ প্রবাসীদের কল্যাণে বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষে যা যা করণীয়, তার সবটুকুই করবেন বলে তিনি আমাকে আশ্বস্ত করেছেন। 

সম্বর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে ড. সেলিম মাহমুদ ওমানে অবস্থানরত কচুয়ার প্রবাসীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন এবং তাদের ব্যক্তিগত জীবনের খোঁজখবর নেন। 

কচুয়ার ওমান প্রবাসীদের পক্ষে সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন তাফাজ্জল মজুমদার, বোরহান পাঠান, মানিক প্রধান, আবুল খায়ের, সাইফুল ইসলাম মানিক, প্রদীপ সরকার, রাকিবুল ইসলাম, নুর মোহাম্মদ মুন্সী, ফিরোজ আলম প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন আবু সালেহ জাফর। কচুয়ার কয়েকশ ওমান প্রবাসী এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/পিও