শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

গুচ্ছ নয়, নিজস্ব পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় ফিরতে চায় ইবি

আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০:৫৩

গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি প্রক্রিয়ার সমন্বয়হীনতা ও দীর্ঘসূত্রিতা ভর্তি প্রক্রিয়াকে আরও জটিল করে তুলেছে দাবি করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনার ভর্তি পরীক্ষায় ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শিক্ষক সমিতি। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

রোববার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকালে শিক্ষক সমিতির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন এ তথ্য জানানো হয়। এ সময় গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না করা নিয়ে নিজেদের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছেন শিক্ষকরা। 

সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. জাহাঙ্গীর হোসেনের সভাপতিত্বে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. তপন কুমার জোদ্দার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এবং শিক্ষক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ। 

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক নেতারা বলেন, আমাদেরকে বলা হয়েছিল যে প্রথমবার এ কারণে গুচ্ছে বিভিন্নরকম ত্রুটি দেখা দিয়েছে। সামনে এরকম ত্রুটি থাকবে না। কিন্তু দ্বিতীয়বার গুচ্ছে যাওয়ার পর আগের চেয়ে আরও বেশি ঝামেলা দেখা দিয়েছে। তৃতীয় বারে এর চেয়েও বেশি হতে পারে। আমরা গুচ্ছের পক্ষে বা বিপক্ষে নই আমাদের মত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের হয়রানি এবং দীর্ঘসূত্রিতা কমাতে হবে। 

তবে গুচ্ছ ভালো কিছু বয়ে আনছে না। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। যেখানে অনেক প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টার শেষ হয়ে যাচ্ছে সেখানে একটা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু করতেই পারছে না। যে উদ্দেশ্য নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা চালু করা হয়েছে, তা পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে।

তারা আরও বলেন, আমরা মনে করি এসকল কারণে গুচ্ছে যাওয়া সম্ভব নয়। আমরা চাচ্ছি না শিক্ষার্থীদের নিয়ে কোনো পরীক্ষানিরীক্ষা করা হোক। আমরা নিজস্ব পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় ফিরতে চাই। এ নিয়ে আমরা উপাচার্য এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি এবং লিখিতভাবেও জানিয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে অনেকের মধ্যে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান রাকিব, সাধারণ সম্পাদক তাসনিমুল হাসান প্রান্ত, সাংগঠনিক সম্পাদক সোহান সিদ্দিকী, কার্যনির্বাহী সদস্য সামি, যায়িদ, ইমন, মংসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/পিও